বুধবার, ২০শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ঢাক-ঢোল পিটিয়ে লাশ দাফনকারী সেই ‘ভণ্ড পীর’ গ্রেপ্তার

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : ধর্ম অবমাননার মামলায় কুষ্টিয়ার দৌলতপুরের সেই ‘ভণ্ড পীর’ আব্দুর রহমান ওরফে শামীমকে (৬৫) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গতকাল বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১টার দিকে উপজেলার দক্ষিণ ফিলিপনগর গ্রামের তার আস্তানা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এর আগে কুষ্টিয়ার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আমলি আদালতে মামলা দায়ের করেন সদর উপজেলার বড় আইলচারা গ্রামের বাসিন্দা ও হক্কানী দরবারের পরিচালক খালিদ হাসান সিপাই। আদালত মামলা গ্রহণ করে এ বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য দৌলতপুর থানাকে নির্দেশ দেন। পরে তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। মামলাটিতে আইনি সহায়তা করছেন কুষ্টিয়া জর্জ কোটের আইনজীবি এ্যাডভোকেট রাজিব হোসেন।

মামলার বাদী খালিদ হাসান সিপাই বলেন, ‘কুষ্টিয়ার দৌলতপুরের ভণ্ড শামীম ও তার অনুসারীরা স্থানীয় সহজ সরল মানুষকে ধর্মের অপব্যাখা করে মানুষকে বিভ্রান্ত করছিল। একজন মুসলমান হিসেবে শামীমের ইসলামবিরোধী ওই সব কর্মকাণ্ড বন্ধের জন্য আদালতের সহায়তা কামনা করেছি।’

এর আগে কথিত পীর শামীমের বিরুদ্ধে গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হলে বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়। তার এসব কর্মকাণ্ড কর্মকাণ্ড বন্ধের দাবি জানিয়ে আসছিলেন স্থানীয়রা। তারা জেলা প্রশাসক সাইদুল ইসলামের কাছেও শামীমের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করেন বলে জানা গেছে।

জানা যায়, চার মাস আগে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একটি ভিডিও ভাইরাল হয়। ওই ভিডিওতে দেখা যায়, শামীম ফুলের মালা গলায় দিয়ে চেয়ারে বসে আছেন। চারদিক থেকে তাকে ঘিরে রেখে নারী-পুরুষ নেচে-গেয়ে ‘হরে হরে, হরে হরে, হরে শামীম, হরে শামীম’ বলে চিৎকার করছেন। এ ছাড়া শামীম একটি বড় গামলায় দুই পা দিয়ে রেখেছেন। আর ভক্তরা দুধ দিয়ে তার পা ধুয়ে দিচ্ছেন, কেউবা চুমু খাচ্ছেন। কেউ আবার হামাগুড়ি দিয়ে পায়ে মাথা ঠুকে তাকে সিজদা করছেন।

এ ছাড়া গত ১৬ মে রাতে পশ্চিম-দক্ষিণ ফিলিপনগর গ্রামের মহাসিন আলীর কিশোর ছেলে আঁখি (১৭) ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে মারা যায়। মহাসিন কথিত পীর শামীমের অনুসারী হওয়ায় ছেলের মরদেহ তার হাতে তুলে দেন। ওই দিন রাতে শামীম তার অনুসারীদের নিয়ে ঢাকঢোল পিটিয়ে নেচে-গেয়ে আঁখির মরদেহ দাফন করেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দৌলতপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) শফিকুল ইসলাম জানান, শামীমের বিরুদ্ধে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানা ছাড়াও মানুষকে জিম্মি করে ভয়ভীতি প্রদর্শন ও চাঁদাবাজিসহ মামলার এজাহারে আটটি অভিযোগ আনা হয়েছে।

শামীমের ব্যাপারে তার ভাই অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক ফজলুর রহমান (সান্টু মাস্টার) বলেন, ‘যত দ্রুত সম্ভব তাকে বিচারের আওতায় নেওয়া উচিত। তার কর্মকাণ্ডে এলাকার মানুষ অতিষ্ঠ।’

বিষয়টি নিয়ে কুষ্টিয়া-১ দৌলতপুর আসনের সংসদ সদস্য আ ক ম সারোয়ার জাহান বাদশা বলেন, ‘আমরা একই গ্রামের মানুষ। প্রায় এক যুগেরও বেশি সময় শামীম নিখোঁজ ছিল। ইসলামের নামে শামীম আস্তানা বানিয়ে যা করছে তা কোনোভাবেই সমর্থনযোগ্য নয়।’

দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শারমিন আক্তার বলেন, কয়েক মাস আগে শামীমের ইসলাম বিরোধী কর্মকাণ্ড জানার পর আমরা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাকে সর্তক করে দিয়েছিলাম।’

দৌলতপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাসির উদ্দিন জানান, আস্তানায় অভিযান চালিয়ে শামীমকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’