মঙ্গলবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আফিফের লড়াই সত্ত্বেও হারল বাংলাদেশ

news-image

স্পোর্টস ডেস্ক : নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজের শেষটা ভালো হলো না বাংলাদেশের। পঞ্চম ও শেষ টি-টোয়েন্টিতে হার সঙ্গী মাহমুদউল্লাহদের।

আগেই সিরিজ নিশ্চিত করে ফেলা বাংলাদেশ শুক্রবার ২৭ রানে হেরেছে। মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে ১৬২ রানের বড় লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ৮ উইকেটে ১৩৪ করতে পারে বাংলাদেশ।

৪৬ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে বিপাকে পড়ে যাওয়া দলকে টানছিলেন আফিফ হোসেন ধ্রুব। অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের সঙ্গে পঞ্চম উইকেটে ৬৩ রান যোগ করেন তিনি। এই দুজন যতক্ষণ উইকেটে ছিলেন, আশা ছিল বাংলাদেশের।

কিন্তু মাহমুদউল্লাহ ২১ বলে ২৩ রান করে ফিরতেই ফের আশা যাওয়ার মিছিল শুরু হয়। হতাশ করেন নুরুল হাসান (৪ বলে ৪) ও শামীম হোসেন (৫ বলে ২)।

একপ্রান্তে আফিফ যদিও অবিচল থাকলেন। কিন্তু তার ৩৩ বলে ৩ ছক্কা ও ২ চারে সাজানো অপরাজিত ৪৯ রান শেষ পর্যন্ত যথেষ্ট হয়নি।

এদিন ওপেনার লিটন দাস আবারো ব্যর্থ হয়েছেন। ১২ বলে মাত্র ১০ রান করেন। সিরিজে প্রথম ম্যাচ খেলতে নামা সৌম্য সরকার ৯ বলে ৪ রান করে আউট হন।

মোহাম্মদ নাঈম ২১ বলে ২৩ রান করেন ৩ চারে। মাহমুদউল্লাহর সঙ্গে যা যৌথভাবে বাংলাদেশ ইনিংসের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ স্কোর।

কিউইরা এদিন পেস ও স্পিনের সম্মিলনে ঘায়েল করেছে টাইগারদের। বাঁহাতি স্পিনার অ্যাজাজ প্যাটেল ও স্কট কুগেলাইন ২টি করে উইকেট নিয়েছেন। ১টি করে উইকেট নিয়েছেন জ্যাকব ডাফি, কোল ম্যাকনকি, বেন সিয়ার্স ও রাচিন রবিন্দ্র।

এর আগে টস জিতে ব্যাট করতে নামা নিউজিল্যান্ড ওপেনার ফিল অ্যালেনের ব্যাটে দুর্দান্ত শুরু পায়। পরে অধিনায়ক টম ল্যাথাম তুলে নেন অপরাজিত ফিফটি। সুবাদে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৫ উইকেটে ১৬১ রানের পুঁজি গড়ে সফরকারী দল। চলতি সিরিজে এটিই সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহ।

তিন নম্বরে খেলতে নামা ল্যাথাম ৩৭ বলে ২টি করে চার ও ছক্কায় অপরাজিত ৫০ রান করেন। ওপেনার অ্যালেন ২৪ বলে ৪১ রানের বিস্ফোরক ইনিংস খেলেন। ৪টি চারের সঙ্গে হাঁকান ৩ ছক্কা। হেনরি নিকোলস ২১ বলে ২০ ও কোল ম্যাকনকি ১০ বলে অপরাজিত ১৭ রান করেন।

অ্যালেন ও রাচিন রবিন্দ্র এদিন উদ্বোধনী জুটিতেই ৫৮ রান যোগ করেন। ষষ্ঠ ওভারে রাচিনকে ফিরিয়ে জুটি ভাঙেন শরিফুল ইসলাম। দুই বল পরই অ্যালেনকেও বোল্ড করেন সিরিজে প্রথম ম্যাচ খেলতে নামা এই পেসার।

এই দুজন ফেরার পর ল্যাথাম টেনে নিয়ে যান দলকে। তাকে যোগ্য সহায়তা দেন নিকোলস ও ম্যাকনকি। ল্যাথাম-নিকোলস পঞ্চম উইকেট জুটিতে আসে ৩৫ রান। অবিচ্ছিন্ন ষষ্ঠ উইকেট জুটিতে ২১ বলে ৪৩ রান যোগ করেন ল্যাথাম ও ম্যাকনকি।

বাংলাদেশের পক্ষে ২ উইকেট নিয়ে শরিফুলই সবচেয়ে সফল। ১টি করে উইকেট নিয়েছেন তাসকিন আহমেদ, নাসুম আহমেদ ও আফিফ হোসেন।

ম্যাচসেরা হয়েছেন টম ল্যাথাম। সিরিজসেরা নাসুম আহমেদ।