শনিবার, ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৫ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

হুঙ্কারে ভয় মির্জা ফখরুলের! বিএনপি জোটের লক্ষ্যহীন বৈঠক!

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : ২০ দলীয় জোট‘ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন নিয়ে নির্বাচন কমিশনকে এবং খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলা বিষয়ে সংবাদ সম্মেলনে একটা হুঙ্কার দিতে হবে’-২০ দলীয় জোটের শরিক জাগপা সভাপতি শফিউল আলম প্রধানের এই বক্তব্য থামিয়ে দিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘হুঙ্কার দিলে চলবে না, হুঙ্কার বাস্তবায়ন না করলে জনগণের কাছে দাম থাকে না। হালকা হয়ে যেতে হয়।’ শুক্রবার সন্ধ্যা সোয়া সাতটার দিকে খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের বৈঠকের শুরুতে এমন আলোচনা ছিল বলে দাবি করেছেন জোটের চারটি শরিক দলের শীর্ষনেতারা।

 

c3b85004a5d4db10ba046bed16fb26df-
পাশাপাশি বৈঠকে অংশ নেওয়া নেতাদের দাবি, বৈঠকে জোটের নিবন্ধনহীন ও কার্যালয়হীন দলগুলো নিয়ে লেবার পার্টির মুস্তাফিজুর রহমান ইরান প্রশ্ন তুলেছেন। তিনি বলেছেন, যে ধরনের দল দিয়ে ২০ দলীয় জোট চলছে, এসব দল নিয়ে তাকে লজ্জার মুখে পড়তে হয় এবং এই লজ্জা সমন্বয়ক হিসেবে মির্জা ফখরুলেরও। তিনি ফখরুলকে শরিক দলগুলোর কার্যালয় পরিদর্শনের আহ্বান জানান।
উল্লেখ্য, মুস্তাফিজুর রহমান ইরানের লেবার পার্টিও একটি নিবন্ধনহীন রাজনৈতিক দল।

 
জোট নেতারা বলছেন, বৈঠকে না ছিল কোনও লক্ষ্য, না ছিল কোনও এজেন্ডা। মূলত আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে নিয়ম রক্ষার্থেই এ বৈঠক ডাকে বিএনপি। শুরুতেই জোট সমন্বয়ক মির্জা ফখরুল এ বিষয়টি পরিস্কার করে দেন। তিনি বলেন, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে আপনাদের সঙ্গে তড়িঘড়ি করে বসতে হলো।
এরপর ইরানকে আলোচনার জন্য বলা হলে লেবার পার্টির এই চেয়ারম্যান শফিউল আলম প্রধানকে আলোচনার জন্য অনুরোধ করেন। বক্তব্যের শুরুতেই তিনি সরকারের উদ্দেশ্যে হুঙ্কার দেওয়ার আহ্বান রাখলে মির্জা ফখরুল সেটি নাকচ করে দেন।
বৈঠকে মুস্তাফিজুর রহমান ইরান জোটের শরিকদলগুলোর সমালোচনা করেন। তিনি বলেন, ১৪ দলীয় জোট ক্ষমতায় আছে। তারা প্রতি সপ্তাহে বৈঠক করে। আর বিএনপি ক্ষমতায় যেতে চায় কিন্তু প্রতি মাসেও বৈঠক করার সুযোগ নাই। তিনি মির্জা ফখরুলকে শরিকদলগুলোকে উজ্জীবীত ও ঐক্যবদ্ধ করার আহ্বান জানান।

 
বিএনপি জোটের শরিকদলগুলোর অনেকের নিবন্ধন নেই, কার্যালয় নেই, এমনকী অনেককে শুধুমাত্র জোটের প্রেস কনফারেন্স ছাড়া কোথাও দেখা যায় না, এসব দলগুলোকে মূল্যায়নের দাবি জানান ইরান। লেবার পার্টির চেয়ারম্যান বলেন, ৫-৬ জন কর্মী নেই, অফিস-আদালত নেই, নিজেদের কোনও প্রোগ্রাম নেই। এসব দলের কারণে ইরানকে লজ্জা পেতে হচ্ছে এবং অনেকের কথা শুনতে হচ্ছে বলেও তিনি জানান। ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে উদ্দেশ্য করে বলেন, জোট সমন্বয়ক হিসেবে আপনিও লজ্জা পাচ্ছেন। বৈঠকে ফখরুল বলেন, ইরান সাহেব বাস্তবতা বুঝে তো চলতে হবে।

 
নিজের আলোচনায় জাতীয় পার্টি (জাফর) মহাসচিব মোস্তফা জামাল হায়দার বিগত পৌরসভা নির্বাচনের প্রসঙ্গ টেনে বলেন, বিগত নির্বাচনে আমাদের দলীয় প্রার্থীকে দাঁড় করানো হলেও বিপুল ভোটে তিনি হেরে যান। এ কারণে আমাদের এখন বিএনপির প্রার্থীদেরকেই সমর্থন দেওয়া মঙ্গলজনক। তৃণমূলে বিএনপির সমর্থন আছে। বিএনপিকে সুযোগ করে দেওয়া দরকার। উল্লেখ্য, কুষ্টিয়া ভেড়ামারা পৌরসভা নির্বাচনে জাতীয় পার্টি (জাফর) এর প্রার্থী হেরেছেন।
মোস্তফা জামালের বক্তব্যের পর কয়েকজন শরিক কোন পদ্ধতিতে শরিক দলগুলোর সঙ্গে সমন্বয় হবে, এ বিষয়ে জানতে চাইলে মির্জা ফখরুল বলেন, এটা শাহজাহান সাব দেখবেন। তার সঙ্গে যোগাযোগ করে আপনাদের প্রার্থীদের তালিকা দেন। আমি ম্যাডামের সঙ্গে কথা বলব। উনিই সব ফাইনাল করবেন।

 
এ নিয়ে জানতে চাইলে জোটের প্রতিষ্ঠাকালীন শরিক খেলাফত মজলিসের মহাসচিব আহমদ আবদুল কাদের  বলেন, ঘরোয়া পরিবেশে নানা আলোচনা হয়। এগুলো নিয়ে মন্তব্য না করাই ভাল।
তবে জানা গেছে, জোটের বৈঠকে বক্তব্য রাখেননি আহমদ আবদুল কাদের।
বৈঠকসূত্র জানায়, অনেকটা নিয়ম রক্ষার্থে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে । সভা শেষে মির্জা ফখরুল সাংবাদিকদের কাছে আলোচনার বিভিন্ন দিক তুলে ধরলেও আদতে কোনও আলোচনই হয়নি বলে জোটের চারটি শরিক দলের শীর্ষনেতাদের সূত্রে জানা গেছে।

 
রাত আটটার কয়েক মিনিট পর সংবাদ সম্মেলন করেন মির্জা ফখরুল ও জোট নেতারা। ওই সময় ফখরুল বলেন, জোটের সভায় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতা মামলার তীব্র নিন্দা জানানো হয়েছে। পাশাপাশি ইউনিয়ন নির্বাচনে ঐক্যবদ্ধভাবে নির্বাচনে অংশ গ্রহণের সিদ্ধান্তের কথা জানান তিনি।
আলাপকালে আহমদ আবদুল কাদের বলেন, সবাই মিলে নির্বাচন করব। আমরা আমাদের প্রার্থী দেবো যেখানে আছে। এটা তো ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন। আর কীভাবে সমন্বয় হবে এ নিয়ে পরে দেখা যাবে। আগে তো সমন্বয় হতে হবে।
যদিও মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর দাবি করেছেন, কোনও দল কত পাবে, এ নিয়ে পরে জানানো হবে।

 
জোটের কয়েকজন শরিক নেতা বাংলা ট্রিবিউনকে জানান, পৌরসভা নির্বাচনেও কোনও সমঝোতা হয়নি। জামায়াত পৃথকভাবে নির্বাচন করেছে। এবারও তারা নির্বাচন করবে। যদিও জামায়াত শুক্রবারের এই বৈঠকে অংশ নেয়নি।
প্রসঙ্গত, বিগত পৌরসভা নির্বাচনের সময়ও শরিক দলগুলোর তোপের মুখে পড়েছিলেন মির্জা ফখরুল। ওই সময় শরিক নেতাদের অভিযোগ ছিল, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব শাহজাহানকে দায়িত্ব দেওয়া হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

 
এদিকে শুক্রবার রাত সাড়ে আটটার দিকে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে মনোনয়নপত্র বিতরণ শুরু করেছে বিএনপি। মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, শাহজাহান ও এমরান সালেহ প্রিন্স বগুড়ার দুঁপচাচিয়ার তালোড়া ইউনিয়নে মুহাম্মদ মোজাফফর হোসেন খন্দকারের হাতে মনোনয়নপত্র তুলে দেন।
প্রিন্স জানান, শুক্রবার দিবাগত রাতেই ২১৬টি মনোনয়নপত্র বিতরণ করা হবে। আগামী দুদিনের মধ্যে বাকিগুলো শেষ হবে।
এমরান সালেহ প্রিন্স বলেন, ইসিকে সাত বিভাগের সাতজনকে মনোনয়নদাতা হিসেবে অনুমোদন দিতে অনুরোধ করা হলেও তারা শুনেননি। এটা করলে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি সবার জন্য সুবিধা হতো।