শনিবার, ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৫ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আসছে রেভিনিউ গার্ড, হত্যার হুমকিতে শুল্ক কর্মকর্তারা

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : কাস্টম হাউসশুল্ক ফাঁকি আর চোরাকারবারিদের সঙ্গে আপোষ না করে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়ায় হত্যার হুমকির মুখে রয়েছেন শুল্ক কর্মকর্তারা। চোরাকারবারিদের বিরুদ্ধে দেশের বিভিন্ন কাস্টম হাউসে তৎপর কর্মকর্তাদের প্রতিনিয়ত বাড়ছে হত্যার হুমকি।
এমনকি চোরাকারবারিরা প্রভাবশালীদের নাম ভাঙিয়ে কর্মকর্তাদের বদলির হুমকি ও তাদের নামে নানা অপপ্রচার করা হচ্ছে বলে অভিযোগ শুল্ক কর্মকর্তাদের।

da40f20b5d4a413277bc2a2b7be29bf3-
এসব ঘটনায় চোরকারবারি প্রতিরোধের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের অস্ত্র বা দেহ নিরাপত্তা দেওয়া উচিত বলে জানিয়েছেন রাজস্ব বোর্ডের সাবেক সদস্যরা। অন্যদিকে রাজস্ব বোর্ড ‘রেভিনিউ গার্ড’ নামে একটি নিরাপত্তা বাহিনী গঠনের পরীক্ষা নীরিক্ষা করছে বলে সূত্রে জানা গেছে।
জানা গেছে, গত বুধবার বেনাপোল কাস্টম হাউসের যুগ্ম-কমিশনার মোস্তাফিজুর রহমান ও সহকারী কমিশনার নিতিশ বিশ্বাসের ওপর হামলার ঘটনা ঘটে। কাস্টমসে মটর সাইকেল নিলাম আহবান করা হলেই ক্ষমতাসীন দলের স্থানীয় নেতাকর্মীরা প্রভাব খাটিয়ে তা নিতে চান। কিন্তু তাতে বাধা দেওয়ায় মঙ্গলবার ২০/২৫ জনের একটি গ্রুপ যুগ্ম কমিশনার মোস্তাফিজুর রহমানের ওপর হামলা করেন। এসময় মোস্তাফিজুর রহমানকে বাঁচাতে গিয়ে সহকারী কমিশনার নিতীশ চন্দ্রও হামলার শিকার হন। এ ঘটনায় বেনাপোল বন্দর থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে (মামলা নম্বর ৫২/ ১৭ জানুয়ারি)। মামলায় আসামি করা হয় আকুল হোসেন, মো. আলী খান, গিয়াস মেম্বার, আবুল কাসেম মো. আরিফুর, আজিয়ারসহ অজ্ঞাত ২০ জন।

 

 
এ প্রসঙ্গে বেনাপোল কাস্টম হাউসের যুগ্ম-কমিশনার মোস্তাফিজুর রহমান  বলেন, ‘আমাকে অনৈতিকভাবে সুবিধা নেওয়ার প্রস্তাব দেওয়া হয়। আমি তাদের প্রস্তাবে রাজি হইনি বলে হামলার শিকার হয়েছি।’
জানা গেছে, ঢাকা কাস্টম হাউসের সহকারি কমিশনার শহিদুজ্জামান সরকারকে হত্যার হুমকি দিচ্ছে দুর্বৃত্তরা। টেলিফোনের পাশিপাশি তার বাড়িতেও কাফনের কাপড় পাঠিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এমনকি তাকে বদলি করা হবে বলেও হুঁশিয়ারি দেয় দুর্বৃত্তরা।
র‌্যাব ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ঢাকা কাস্টম হাউসের সহকারি কমিশনার শহিদুজ্জামান সরকারকে হত্যা হুমকির ঘটনায় বিমানবন্দর থানায় ১০ ফেব্রুয়ারি একটি মামলা হয়েছে (মামলা নম্বর ২৪)। এ ঘটনায় বিমান বন্দরের সিএন্ডএফের এক এজেন্টসহ দু’জনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। তারা হলেন- সিএন্ডএফ এজেন্ট কামরুজ্জামান লিটন এবং কুরিয়ার ব্যবসার সঙ্গে জড়িত ইয়াকুব চৌধুরী। মামলায় বিমানবন্দর থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক লিজাউর রহমান বিপুল, তার চাচাতো ভাই নজরুল ইসলাম সুজন, কামরুজ্জামান লিটন, ইয়াকুব চৌধুরীসহ ৬ জনকে আসামি করা হয়। পরে কাস্টম কর্মকর্তা র‌্যাব-১ এর কাছে এ বিষয়ে একটি অভিযোগ দেন। মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, আসামিরা কাস্টম ফাঁকি দিয়ে ও ভুয়া কাগজপত্র দেখিয়ে পণ্য খালাসের চেষ্টা করে এবং কাস্টম কর্মকর্তাদের পণ্য আটকের সময় সরকারি কাজে বাধা দেয়। পরবর্তীতে তারা ওই কর্মকর্তাকে মোবাইল ফোনে হত্যার হুমকি দেয়।

 

 
রাজস্ব বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, সহকারি কমিশনার শহিদুজ্জামান ঢাকা কাস্টম হাউসের প্রিভেনটিভ দলে প্রধান। তিনি ঢাকা কাস্টম হাউসে দায়িত্ব পাবার পর থেকেই বেড়েছে বিমানবন্দরে চোরচালানের স্বর্ণ উদ্ধারের ঘটনা। গত সাত মাসে বিমান বন্দর থেকে আটক হয়েছে ১০৫ কোটি ১১ লাখ টাকার প্রায় ২৬২ কেজি স্বর্ণ। এমনকী বেড়েছে কুরিয়ার সার্ভিসে শুল্ক আদায়ের পরিমাণ। ছয় মাস আগেও কুরিয়ারে দিনে এক লাখ টাকা শুল্ক আদায় হতো, যা এখন প্রায় ১ কোটি টাকা।

 

জানা গেছে, চোরাকারবারিরা প্রভাবশালীদের মাধ্যমে প্রিভেনটিভ দলের প্রধান পদ থেকে শহিদুজ্জামানকে সরাতে তৎপর রয়েছে।
এ প্রসঙ্গে কাস্টম হাউসের সহকারি কমিশনার শহিদুজ্জামান সরকার  বলেন, নাসিম এন্টারপ্রাইজের মালিক নজরুল ইসলাম সুজন ২০ জানুয়ারি শুল্ক ফাঁকি দিয়ে ৬ বস্তা জুতা ও অন্যান্য জিনিস বিমানবন্দর থেকে ছাড়াতে চেষ্টা করেন। এরপর তিনি হত্যার হুমকি দেন। এর আগেও গত ৫ ফেব্রুয়ারি টেলিফোনে হত্যার হুমকি পেয়েছি। আমার বাসায় কাফনের কাপড় পাঠিয়েছে। ফোনে প্রলোভন দেখিয়ে প্রস্তাব করা হয়, ‘চোরাচালানে সহায়তা করলে সুবিধা দেওয়া হবে।’ তাদের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় একের পর এক হুমকি দেওয়া হচ্ছে। বিভিন্নভাবে হেয় করতে অপপ্রচার করছে।পণ্য খালাস করতে গেলে আমি নাকি ঘুষ নেই- এমন মিথ্যা তথ্য সাংবাদিকদের কাছে দেওয়া হচ্ছে নামে বেনামে। মন্ত্রী এমপিদের নাম ভাঙিয়ে আমাকে বদলি করা হবে এমন হুঁশিয়ারিও দিচ্ছে প্রতিনিয়ত।

 
আসছে রেভিনিউ গার্ড

রাজস্ব বোর্ডে শুল্ক কর্মকর্তা, গোয়েন্দাসহ বোর্ডের অন্যান্য কর্মকর্তাদের নিরাপত্তায় ‘রেভিনিউ গার্ড’ নামে একটি বাহিনী গঠনের পরীক্ষা -নিরীক্ষা করা হচ্ছে। বাহিনীর জন্য লোকবল এবং অর্থ বরাদ্দের অপেক্ষায় রাজস্ব বোর্ড।
শুল্ক কর্মকর্তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত জরুরি বলে মনে করেন রাজস্ব বোর্ডের সাবেক সদস্য আবদুল লতিফ সিকদার। তিনি বলেন, যারা চোরাকারবার বা শুল্ক ফাঁকি রোধে কাজ করেন, তারা সব সময়ই হুমকির মধ্যে থাকেন। চোরাকারবারিরা তো চাইবে না তাদের পথে কেউ বাধা দিক। বিশেষ করে শুল্ক গোয়েন্দা আর প্রিভেনটিভ কর্মকর্তারা বেশি ঝুঁকিতে থাকেন। পাকিস্তান আমলে এমন কর্মকর্তারা অস্ত্রধারী ছিলেন পুলিশের মতন। স্বাধীনতার পর তা বাতিল হয়েছে। চোরাচালান রোধ করতে হলে সংশ্লিষ্টদের নিরাপত্তা দিতে হবে। তাদের অস্ত্র ব্যবহারের প্রশিক্ষণ দিয়ে অস্ত্র দেওয়া যেতে পারে। অথবা তাদের অস্ত্রধারী দেহরক্ষির ব্যবস্থা করা উচিত। তাহলে চোরাচালান রোধে শুল্ক কর্মকর্তারা আরো বেশি সক্রিয় হবেন ।

 
রেভিনিউ গার্ড প্রসঙ্গে রাজস্ব বোর্ডের সদস্য (শুল্ক ও ভ্যাট প্রশাসন) সুলতান মোহাম্মদ ইকবাল  বলেন, যেসব কর্মকর্তা অপরাধিদের ছাড় দেয় না, তারা বেশি হুমকির মুখে পড়েন। এজন্য একটি নিরাপত্তা বাহিনী আমাদের পরিকল্পনায় রয়েছে। অনেক দিন ধরেই আলোচনায় আছে ‘রেভিনিউ গার্ড’। এটি বাস্তবায়নের লক্ষে বোর্ডে পরীক্ষা-নিরিক্ষা চলছে।