শনিবার, ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৫ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শিক্ষককে পেটালেন ছাত্রলীগ সভাপতি নকলে বাধা দেওয়ায়

 

 
নিজস্ব প্রতিবেদক : বরিশাল সরকারি কলেজে অনার্স প্রথম বর্ষের পরীক্ষায় আ. রহিম নামে এক ছাত্রলীগ কর্মীকে নকল করায় বাধা দেওয়ায় এক শিক্ষককে প্রকাশ্যে পিটিয়েছে ওই কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতি আল মামুন। বুধবার সন্ধ্যায় কলেজের ৩১০ নম্বর কক্ষের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

সরকারি বরিশাল কলেজ অধ্যক্ষ অধ্যাপক খন্দকার অলিউল ইসলাম বলেন, নকলে বাধা দেওয়ায় কলেজের ছাত্রলীগ সভাপতি আল মামুন কক্ষ পরিদর্শকের দায়িত্বে থাকা উজিরপুর শহীদ স্মরণিকা কলেজের শিক্ষক কাজী নজরুল ইসলামকে বুধবার সন্ধ্যায় মারধর করেন।পরে কলেজের অপর শিক্ষকরা এসে ধাওয়া দিলে মামুনসহ তার সব সহযোগিরা পালিয়ে যায়।

 

53eda4998ef1818c0ed4d600214bb7c2-Barisal

এ ঘটনায় কলেজের সব শিক্ষকরা বিক্ষোভ করলে শিক্ষক পরিষদের বুধবার রাতে জরুরি সভা ডেকে আল মামুন এর ছাত্রত্ব বাতিল করে।উপাধ্যক্ষ নুরুল ইসলামের নেতৃত্বে তিন সদস্যের এক তদন্ত কমিটি গঠন করে তিন কর্মদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।একই সঙ্গে মহানগর ছাত্রলীগ বুধবার রাতেই জরুরি সভা করে বরিশাল কলেজ ছাত্রলীগের সব কার্যক্রম স্থগিত ঘোষণা করে।

 

লাঞ্চিত অধ্যাপক কাজী নজরুল ইসলাম জানান, ‘সম্মান প্রথম বর্ষের পরীক্ষার কক্ষ পরিদর্শক হিসেবে আমাকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল তিনতলার ৩১০ নম্বর কক্ষে। ওই কক্ষে ছাত্রলীগের এক কর্মী পরীক্ষা দিচ্ছে এমন বিষয় পরীক্ষার শুরুতেই অবহিত করে যান কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি আল মামুন। সে ওই পরীক্ষার্থীকে বিশেষ ছাড় দেওয়ার জন্য বলে যায়।’

তিনি আরও বলেন, ‘পরীক্ষা শুরু হওয়ার পরই ওই ছাত্রলীগ কর্মী প্রকাশ্যে বই খুলে লেখা শুরু করে। প্রথমে আমি তাকে নিষেধ করে এমনটি না করার জন্য। কিন্তু তাও সে না শোনার কারণে তার খাতা ও সঙ্গে থাকা বইটি নিয়ে যাই। কিছু সময় পরে তাকে পুনরায় খাতা দিয়ে দেওয়া হয়।’

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, নিয়মানুযায়ী বুধবার বিকাল ৫টায় পরীক্ষা শেষ হওয়ার পরই ছাত্রলীগ সভাপতি আল মামুন তার কয়েকজন সঙ্গীকে নিয়ে পরীক্ষা কক্ষের সামনে এসে অধ্যাপক কাজী নজরুল ইসলাম এর পথরোধ করে। এরপর সে নজরুল ইসলামকে প্রথমে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করে। তিনি এর প্রতিবাদ করলে মামুন তাকে এলোপাথাড়ি ঘুষি ও লাথি মারতে থাকে।