শনিবার, ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৫ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি শহীদ মিনারে

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : শহীদ মিনারে চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতিচলছে ভাষার মাস ফেব্রুয়ারি। প্রতি বছর এই মাসটিতে যথাযোগ্য মর্যাদায় ভাষা শহীদদের স্মরণ করে বাঙালি জাতি। মাতৃভাষা দিবসের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পাওয়ায় ২১ ফেব্রুয়ারি দিনটিতে তাই আনুষ্ঠানিভাবে শহীদ মিনারে গিয়ে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান সব শ্রেণি-পেশার মানুষ। আর ওই উপলক্ষে এ বছরও কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারকে সাজানো হচ্ছে। পাশাপাশি শ্রদ্ধা নিবেদন করতে আসা জনসাধারণের স্বার্থে নেওয়া হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থাও।
শুক্রবার সকালে সরেজমিনে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, ধোয়া-মোছার কাজ শেষে এখন চলছে রংয়ের কাজ। শহীদ মিনারের মূলস্তম্ভগুলোয় চুন লাগানো হয়েছে। বেদীসহ অন্যান্য জায়গায় লাগানো হয়েছে লাল রং। এছাড়া, শহীদ মিনারের পাশের রাস্তার দেয়ালে লেখা হচ্ছে, ‘‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি/ আমি কি ভুলিতে পারি’, ‘মাতৃভাষায় যাহার শ্রদ্ধা নাই, সে মানুষ নহে’,’ ‘একুশ মানে মাথা নত না করা’সহ নানা পঙ্‌ক্তি।

 

 

f69244ffe1cbcb37fe2da7279b07d903-

শহীদ মিনারে রঙের কাজ করা চারুকলা অনুষদের শিক্ষার্থী রতন পাল জানান, রঙের কাজ মোটামুটি এখন শেষের দিকে। যতটুকু কাজ বাকি আছে তা আজই শেষ হয়ে যাবে।

প্রস্তুতি সম্পর্কে জানতে চাইলে অমর একুশে উদযাপন কেন্দ্রীয় সমন্বয় কমিটির সদস্য ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর এম আমজাদ বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন,‘প্রস্তুতির কাজ প্রায় শেষ। এখন টুকটাক গোছানোর কাজ চলছে।’নিরাপত্তা ব্যবস্থা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন,‘আগের তুলনায় এবার কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে। এবার প্রায় সাড়ে আট হাজার পুলিশ সদস্য নিয়োজিত থাকবেন। অন্যবারের মতো এবার যেন কোনও ত্রুটি না থাকে, সে চেষ্টা করা হবে।’

 

 

এদিকে, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করতে আসা সর্বধারণের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিতের জন্য শহীদ মিনার এলাকায় তিন স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে বলে জানিয়েছে র‌্যাব। পুরো এলাকাকে নজরদারিতে রাখতে স্পর্শকাতর স্থানগুলোয় পর্যাপ্ত সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে, জানিয়ে র‌্যাবের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, মাতৃভাষা দিবসের দিন শহীদ মিনার ও আজিমপুর কবরস্থান এলাকায় কবর জিয়ারত ও পুষ্পস্তবক অর্পণের জন্য আসা জনসাধারণ, রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, বিরোধী দলীয় নেতাসহ অন্যান্য মন্ত্রী ও বিদেশি অতিথিদের নিরাপত্তার জন্য এসব এলাকায় সিসি ক্যামেরা ও র‌্যাবের বম্বিং স্কোয়াড ও স্ট্রাইকিং ফোর্স কাজ করবে।

নিরাপত্তা ব্যবস্থা সুনিশ্চিত করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন পুলিশের আইজিপি মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান মিয়াও। শুক্রবার বিকেলে অমর একুশে গ্রন্থমেলা ঘুরতে এসে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন,‘নিরপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। একুশে ফেব্রুয়ারি উদযাপনে কোনও সমস্যা হবে না।’

ভাষা দিবসে ঢাবির কর্মসূচি

একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ও আজিমপুর কবরস্থানে জনসাধারণের শ্রদ্ধা নিবেদনের যাবতীয় অনুষ্ঠানের ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব বরাবরই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় পালন করে আসছে। এ বছরও যথাযোগ্য মর্যাদার সঙ্গে দিবসটি পালনের জন্য প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণের উদ্দেশ্যে একটি শক্তিশালী ‘অমর একুশে উদযাপন কেন্দ্রীয় সমন্বয় কমিটি’ এবং বিভিন্ন সাব-কমিটি গঠন করা হয়েছে। কেন্দ্রীয় সমন্বয় কমিটি দিবসটি সুষ্ঠুভাবে পালনের বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করেছে।

 

মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে ভাষা শহীদ আবুল বরকত স্মৃতি জাদুঘর ও সংগ্রহশালার উদ্যোগে দু’জন ভাষা সংগ্রামীকে সম্মাননা দেওয়ার মধ্যদিয়ে গত বৃহস্পতিবার শুরু হয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মসূচি। বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে, ২১ ফেব্রুয়ারি রবিবার সকাল ৬টা ৩০মিনিটে উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিকের নেতৃত্বে অপরাজেয় বাংলার পাদদেশ থেকে প্রভাতফেরি আজিমপুর কবরস্থান হয়ে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ। বাদ জোহর অমর একুশে হলে শহীদদের রুহের মাগফেরাত কামনায় বিশেষ মোনাজাত, বিশ্ববিদ্যালয় মসজিদুল জামিয়া, সব হলের মসজিদ ও বিশ্ববিদ্যালয় আবাসিক এলাকার মসজিদসহ অন্যান্য ধর্মীয় উপাসনালয়ে ভাষা শহীদদের রুহের শান্তি কামনা করে বিশেষ মোনাজাত প্রার্থনা অনুষ্ঠিত হবে। সন্ধ্যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সংগীত বিভাগের উদ্যোগে ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র মিলনায়তনে পরিবেশিত হবে ভাষা ও দেশের গান।

এছাড়া, ভাষা শহীদ আবুল বরকত স্মৃতি জাদুঘর ও সংগ্রহশালার উদ্যোগে আয়োজিত ভাষা আন্দোলনভিত্তিক স্মৃতিচারণ, পুস্তক, আলোকচিত্র ও প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শনী চলবে ২১ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত এবং ২৬ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা।