মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

তাবুই হচ্ছে ৮ লাখ মানুষের ঘর

news-image

পাকিস্তানের উত্তর ওয়াজিরস্থানে  দেশটির সেনা বাহিনী সন্ত্রাসী হামলার বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রেখেছে। আর এর ফলে ওই এলাকার সাধারণ মানুষকে ঘর বাড়ি ছেড়ে আশ্রয় নিতে হয়েছে তাবুতে। বলা হচ্ছে যতদিন না এধরনের অভিযান বন্ধ হবে, ততদিন এধরনের তাবুতে বাস করতে হবে অন্তত ৮ লাখ মানুষকে।

গত এক বছর আগে পাকিস্তানের সেনা বাহিনী দেশটির  একটি প্রদেশে জঙ্গিদের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী  হামলার অভিযোগে অভিযান শুরু করে। এ অভিযানে জঙ্গি বিমান ব্যবহার করে পাকিস্তান। অভিযানে এক বছরে ২৭ হাজারেরও বেশি মানুষ নিহত হয়েছে বলে দেশটির সেনাবাহিনী দাবি করছে। ।

যদিও পাকিস্তানের তালেবান নেতারা এখনো বিভিন্ন জায়গায় রয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। আর সেই অভিযানের পাশাপাশি ঘর ছাড়া হয়েছে ৮ লাখেরও বেশি মানুষ।

গত এক বছর যাবৎ ঘর ছাড়া সেই মানুষগুলো কেমন আছে?

অনুসন্ধানে জানা যায়, ৯ বছর বয়সী হালিমার জন্য শরণার্থী শিবিরের মধ্যে তাবুর স্কুলে পড়াশোনা করা একেবারেই নতুন অভিজ্ঞতা। হাতে ইংরেজী নতুন বই আর সেখান থেকে জানা কিছু শব্দগুলো পড়ছে এই শিশু। এই এক বছর হালিমার এবং তার সহপাঠিদের জন্য ছিলো এক কঠিন সময়।

উত্তর ওয়াজিরস্থানে সেনা বাহিনীর অভিযান শুরু হলে তার বাবা সব কিছু ছেড়ে চলে আসেন। পরে তিনি আশ্রয় নেন এই শিবিরে। ৯ ভাই-বোন আর বাবা-মার এই পরিবার।

হালিমার বাবা বিবিসিকে বলছিলেন তার অভিজ্ঞতার কথা। হালিমার বাবা বলেন, আমি একটি দোকানে কাজ করতাম। সন্তান পরিবার নিয়ে বেশ ভালই ছিলাম। তবে আমার হাতে  তেমন কোনো অর্থ নেই। আমি আমার সন্তানদের জন্য কিছু করতে পারিনা। আমি চাই সেনা বাহিনীর অভিযান দ্রুত শেষে হোক, তাতে করে আমি পরিবার নিয়ে বাড়ি ফিরতে পারবো। আর তারা যদি যেতে দেয় তবে আমি আগামীকালই বাড়ি ফিরে যাবো। কিন্তু একই সাথে আমি আমার পরিবারকে নিরাপদে রাখতে চাই।

শরণার্থী শিবিরে ঘুরে বার বার একটি কথাই শুনা যায়। সেটি হলো- বাড়ি ফিরে যাবো।  ছোট-বড় বাবা-মা, শিশুসহ সকলেই চায় বাড়ি ফিরতে। আর সেই বাড়ি ঠিক এই শিবিরের পেছনে, পাহাড়ের ওপাশে।

পাকিস্তানের সেনা বাহিনী যদিও বলছে তারা সেখানকার বেশির ভাগ এলাকায়ই জঙ্গিদের পরাস্ত করেছে। কিন্তু আসলে নিশ্চিত হওয়া যাচ্ছেনা যে সেখানকার জীবন কেমন হবে। শরণার্থী শিবিরের মানুষ, যারা বাড়ি ফিরতে চান তাদের কাছে পরিষ্কার না যে, তারা কোথায় যাবেন ।

উত্তর ওয়াজিরস্থান, পাকিস্তান ও আফগানিস্তান তালেবানের শক্ত ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত। পাকিস্তান দীর্ঘদিন ধরে চাপের মুখে রয়েছে সেখানকার জঙ্গিদের উৎখাত করার জন্য। কিন্তু সেনা বাহিনীর অভিযান শুরু হয় যখন পাকিস্তান দেশটির একটি ব্যস্ততম এয়ারপোর্টে হামলা করে।

গত এক বছরে এ অভিযানে ২৭ হাজারেরও বেশি মানুষ নিহত হয়েছে বলে দাবি করছে। কিন্তু সমালোচকরা বলছেন, পাকিস্তান তালেবানেরা শীর্ষ নেতারা এখনো বেঁচে আছে।

পাকিস্তানের এক বিশ্লেষক খাদিম হুসেইন বলেন, হয়তো তারা কিছুটা ভেঙে পড়েছে। কিন্তু তাদেরকে পরাজিত করা যায়নি।

হালিমা বলেন, পাহাড়ের ওপারে তার গ্রামের কথা এখনো মনে পরে। কিন্তু যতদিন এই যুদ্ধ চলতে থাকবে ততদিন এই তাবুই তাদের ঘর, এটাই তাকে মেনে নিতে হবে।

এ জাতীয় আরও খবর