বুধবার, ১৮ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

২০ দলীয় জোট না ভাঙ্গলেও কার্যকারিতা থাকছে না

news-image

বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট না ভাঙ্গলেও জোটের কোনো কার্যকারিতা থাকছেনা বললেই চলে। দেশি-বিদেশি চাপে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াসহ দলটির নীতিনির্ধারকরা এমনটাই চাচ্ছেন, দলের একাধিক দায়িত্বশীল নেতার সঙ্গে আলাপকালে আভাস পাওয়া গেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, বিএনপি আপাতত রাজনীতিতে ‘একলা চলো নীতি’ অবলম্বন করে এগিয়ে যেতে চাচ্ছে। তবে সেক্ষেত্রে জোট ভাঙ্গার মতো প্রযোজনীয়তাও দেখছে না দলটি।

বিএনপির দলীয় সূত্র জানায়, জামায়াত নিয়ে দলের একটা অংশে অস্বস্তি রয়েছে। এ অবস্থায় দলটির সঙ্গ ছাড়ার মধ্যে দলের স্বার্থ দেখছেন তারা। ওইসব নেতাদের মতে, জামায়াত-নির্ভরতার কারণে এত দিন বিএনপির ক্ষতিই হয়েছে। বিএনপির সঙ্গে থেকে লাভ হয়েছে জামায়াতের। এমন অবস্থায় সম্পর্ক আর দীর্ঘায়িত না করে এখনই ছিন্ন করা উচিত।  তাই বিএনপির উচিত হবে জামায়াতের সঙ্গ ছেড়ে দেওয়া। যদিও দলের বৃহৎ অংশের নেতা-কর্মীরা এমন বক্তব্যের সঙ্গে একমত নন, তারপরও বিশেষ করে আন্তর্জাতিক চাপে জামায়াত থেকে কিছুটা দূরত্ব বজায় রাখার নীতি গ্রহণ করতে যাচ্ছে বিএনপি।

শিগগিরই বিএনপির পক্ষ থেকে সেই বার্তা দেয়া হচ্ছে ২০ দলীয় জোটের অন্যতম শরিক জামায়াতকে। যুদ্ধাপরাধের তকমা পাওয়া দলটির সঙ্গ ছাড়তে বিএনপির চাপ ক্রমাগতই বাড়ছে বলে মনে হচ্ছে। দেশি-বিদেশি শুভাকাংক্ষীদের কারো কারো পক্ষ থেকে পরামর্শ আসছে জামায়াত ছেড়ে নিজস্ব শক্তিতে পথ চলার। বিশেষ করে আন্তর্জাতিক মহলে ধর্মভিত্তিক এ দলটি নিয়ে রয়েছে অসন্তোষ। যদিও এ বিষয়ে জামায়াতের কোন বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

জানা গেছে, জাতিসংঘ, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্যসহ পশ্চিমা দেশ ও দাতা সংস্থাগুলো প্রকাশ্যে ও পর্দার আড়ালে বিএনপিকে জামায়াতের সঙ্গ ছাড়ার পরামর্শ দিচ্ছে। কিন্তু ভোটের রাজনীতির হিসাব-নিকাশ করে জামায়াতকে ছাড়তে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি বিএনপির হাইকমান্ড। তাছাড়া জামায়াতের যে সাংগঠনিক শক্তি আছে, সেই তূলনায় বিএনপি অত্যন্ত দুর্বল। ভবিষ্যতে যদি আওয়ামী লীগকে রাজপথে মোকাবিলা করতে হয় সেক্ষেত্রে বিএনপি একার পক্ষে সম্ভব হবে না। মূলত এসব কারণেই জামায়াতের সঙ্গ পুরোপুরি ছাড়তে নারাজ বিএনপির নীতিনির্ধারকরা।

এদিকে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ৭ জুন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎকালে জামায়াতের সঙ্গ ছাড়ার পরামর্শ দিয়েছেন বলে খবর বেরিয়েছে। খবরে বলা হচ্ছে, ভারত গণতন্ত্রকে সমর্থন করলেও সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদকে সমর্থন করে না বলে জানিয়ে দিয়েছেন মোদী। প্রতিউত্তরে খালেদা জিয়াও নাকি জানিয়ে দেন, বিএনপিও জঙ্গি মৌলবাদের রাজনীতি বিশ্বাসী করে না। এরপর থেকে বেশকিছু গণমাধ্যমে বিএনপি ও জামায়াত জোট নিয়ে নানা রকমের খবর প্রকাশিত হচ্ছে। যদিও এব্যাপারে বিএনপির প্রধান খালেদা জিয়া ও জামায়াত ইসলামীর দায়িত্বশীল কারো কাছ থেকে ২০ দলীয় জোট প্রসঙ্গে  সুস্পষ্ট বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

গতকাল রাজধানীতে এক আলোচনা সভায় বিকল্পধারা বাংলাদেশের সভাপতি সাবেক রাষ্ট্রপতি ডা.এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী বলেছেন, বিএনপি বর্তমানে  যে স্টেজে চলছে, সেটি জামায়াত নির্ভর খালেদা জিয়ার রাজনীতি। দেশে-বিদেশে এখন যে চাপ তাতে এ রাজনীতি টিকবে বলে মনে হয় না।

এদিকে জামায়াত ও ২০ দলীয় জোটের বিষয়ে সম্প্রতি দলীয় চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার উপস্থিতিতে বিষোদ্গার করেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর। গত ২৮শে মে জিয়াউর রহমানের শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রকাশ্যে জোট ভেঙ্গে দেয়ার আহ্বান জানান তিনি। ওই সভায় উপস্থিত খালেদা জিয়ার উদ্দেশে তিনি বলেন, নির্বাচনের জন্য জিয়াউর রহমানও একসময় জোট গঠন করেছিলেন। পরে তিনি ওই জোট ভেঙ্গে দিয়ে তাদের বিএনপিতে আসার আহ্বান জানিয়েছিলেন। আমি মনে করি, এখন আর ২০ দলীয় জোটের প্রয়োজন নেই। কারণ যেসব জেলায় জোটের শরিক দলের আসন রয়েছে, সেসব জেলায় বিএনপির নেতৃত্ব তৈরি হচ্ছে না।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, দুই দলের টানাপড়েনের মধ্যেই গত বছরের জানুয়ারিতে ইউরোপীয় পার্লামেন্টে এক প্রস্তাবে বিএনপিকে জামায়াত ছাড়ার কথা বলা হয়েছে। পাস হওয়া ওই প্রস্তাবে বলা হয়, বাংলাদেশে গণতন্ত্রের সুনাম আছে। রাজনৈতিক দলগুলোর উচিত সেই সুনাম ধরে রাখা এবং একে অপরের প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন করার সংস্কৃতি বৃদ্ধি করা। বিএনপির উচিত জামায়াতে ইসলাম এবং হেফাজতে ইসলাম থেকে নিজেদের দূরে রাখা।

জোট নেতাদের কারো কারো মতে, বর্তমান বাস্তবতা বিবেচনায় আনতে হবে। প্রয়োজন হলে অবশ্যই নীতিতে পরিবর্তন আনতে হবে। তবে তারা (বিএনপি) একা নয়। সবার সঙ্গে আলোচনা করে নেয়া উচিত। তাদের মতে, বিএনপি হুটহাট সিদ্ধান্ত নিচ্ছে। শরিক দলগুলোর সঙ্গে কোনো ধরনের আলোচনার প্রয়োজন মনে করে না তারা।

২০ দলীয় জোটের শরিক কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইব্রাহিম বলেন, বিএনপি রাজনৈতিক দল হিসেবে আগেও যতটা গুরুত্বপূর্ণ ছিল, এখনও ততটাই গুরুত্বপূর্ণ। নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে বিএনপির চেয়ারপারসনের বৈঠক এটাই প্রমাণ করে। তবে কার্যকর বিরোধী দলের ভূমিকা পালন করতে তাদের আরও সুসংগঠিত হতে হবে। তিনি দাবি করেন, বিএনপি সঠিক পথেই চলছে।

জাতীয় পার্টি- বিজেপি সভাপতি ব্যারিস্টার আন্দালিব রহমান পার্থ বলেন, আমাদের রাজনীতি জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে । জামায়াত দাবি করে তারা ইসলামিক দল। আগের মতো এসব ইসলামি দলের পক্ষে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের অবস্থান নেই। বিএনপি যদি জামায়াতকে ছেড়ে দেয়, সে ক্ষেত্রে তারা তাদের মতো সিদ্ধান্ত নেবে। কারণ ২০ দলের সবারই জোট হয়েছে বিএনপির সঙ্গে। এখানে যদি জামায়াতকে জোট থেকে বিএনপি বের করে দেয়, তাহলে ১৯ দলীয় জোট হবে। কারণ ২০০১ সালের রাজনীতি ও প্রেক্ষাপট আর বর্তমান এক নয়। জনপ্রিয়তা থাকলেই হবে না, এর সঙ্গে আন্তর্জাতিক সমর্থনসহ আরও বেশকিছু উপাদান থাকতে হবে।

উল্লেখ্য, ২০০১ সালে অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিএনপি, জামায়াতে ইসলামী, ইসলামী ঐক্যজোট ও বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি বিজেপিকে নিয়ে চারদলীয় জোট গঠিত হয়। ওই নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে গঠন করা সরকারের মন্ত্রিসভায় জামায়াতের আমীর মতিউর রহমান নিজামী ও সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মুজাহিদ মন্ত্রী হন। জোট সরকারের বিদায়ের পর তত্ত্বাবধায়ক জমানায় এ জোটের তেমন তৎপরতা না থাকলেও ২০০৯ সালের নির্বাচনে জোটবদ্ধভাবেই অংশ নেয় বিএনপি-জামায়াত।

শীর্ষ নিউজ

এ জাতীয় আরও খবর

বাংলাদেশকে লিডের স্বপ্ন দেখাচ্ছেন তামিম-মুশফিক-লিটন

দেশের শীর্ষ ৫ ব্যাংকের একটি হওয়ার লক্ষ্য এনসিসি ব্যাংকের

এআইইউবি রোবোটিক দলকে পৃষ্ঠপোষকতা ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের

গ্যাস ট্যাবলেট খেয়ে প্রবাসীর স্ত্রীর ‘আত্মহত্যা’

সুনামগঞ্জে পাহাড়ি ঢলে যোগাযোগ-বিচ্ছিন্ন

নাতির সঙ্গে ধস্তাধস্তিতে দাদার মৃত্যু

ট্রেনের টয়লেট থেকে বৃদ্ধের মরদেহ উদ্ধার

হামলায় মাথা ফাটল ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীর

প্রেমিকার বাড়ির পাশে প্রেমিকের ক্ষত-বিক্ষত লাশ

ওষুধ খাইয়ে স্বামীকে ঘুম পারান স্ত্রী, গলাটিপে হত্যা করেন পরকীয়া প্রেমিক

আকস্মিক ধুলি-ঝড়ে বিপর্যস্ত সৌদির রাজধানী রিয়াদ

রিয়াজের মাছ ধরা নিয়ে চলছে হাসিঠাট্টা