রবিবার, ২২শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিদেশি সাহায্য বাড়ছে, কমছে ঋণ পরিশোধ

news-image

টিপস ডেস্কএবার অর্থ ছাড়ের পাশাপাশি নিট সাহায্যের পরিমাণও বেড়েছে। তবে কমেছে আগের নেওয়া ঋণ পরিশোধের পরিমাণ।

অর্থবছর শেষে বিভিন্ন ঋণদাতা দেশ ও সংস্থার অর্থ ছাড়ের পরিমাণ ৩০০ কোটি (৩ বিলিয়ন) ডলার ছাড়িয়ে যাবে বলে আশা করছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

অর্থনীতির গবেষক জায়েদ বখত বলছেন, বছরের শুরুতে টানা তিন মাসের সহিংস রাজনীতির প্রভাব দাতাদের অর্থ ছাড়ের পরিসংখ্যানে খুব একটা দেখা যাচ্ছে না। পাইপলাইনে থাকা সহায়তা ‘ছাড়ের’ ব্যাপারে সরকার আন্তরিক হলে এই পরিমাণ আরও বাড়ত বলে তিনি মনে করেন।

অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ (ইআরডি) চলতি অর্থবছরের প্রথম দশ মাসে (জুলাই-এপ্রিল) বিদেশি ঋণ-সহায়তা ছাড়ের যে তথ্য প্রকাশ করেছে, তাতে দেখা যায়, এই সময়ে বিভিন্ন দাতা দেশ ও সংস্থা সব মিলিয়ে ২৩৮ কোটি ৮ লাখ (২ দশমিক ৩৯ বিলিয়ন) ডলার ছাড় করেছে। এই অর্থ গত অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে ২ কোটি ডলার বেশি।

এই সময়ে আগের নেওয়া ঋণের সুদ-আসল বাবদ ৯৬ কোটি ৪৫ লাখ ডলার পরিশোধ করেছে সরকার। এ হিসেবে জুলাই-এপ্রিল সময়ে নিট বিদেশি সাহায্য এসেছে ১৪১ কোটি ৫৮ লাখ ডলার।

২০১৩-১৪ অর্থবছরের জুলাই-এপ্রিল সময়ে মোট ২৩৬ কোটি ৯৬ লাখ (২ দশমিক ৩৭ বিলিয়ন) ডলার অর্থ ছাড় করেছিল ঋণদাতারা। সুদ-আসল পরিশোধে চলে গিয়েছিল ১০৮ কোটি ৮৮ লাখ ডলার। অর্থাৎ, নিট সাহায্যের পরিমাণ ছিল ১২৮ কোটি ৮ লাখ ডলার।

চলতি অর্থবছরের জুলাই-এপ্রিল সময়ে যে ঋণ-সহায়তা এসেছে, তার মধ্যে ঋণের পরিমাণ ১৯১ কোটি ১১ লাখ ডলার; আর অনুদান ৪৬ কোটি ৯৬ লাখ ডলার।

গত অর্থবছরের একই সময়ে দাতারা যে অর্থ ছাড় করেছিল তার মধ্যে ঋণ ছিল ১৭৪ কোটি ৩৯ লাখ ডলার; অনুদান ৬২ কোটি ৫৭ লাখ ডলার। 

ইআরডির তথ্য বিশ্লেষণে দেখা যায়, চলতি অর্থবছরের দশ মাসে দাতারা যে ঋণ-সহায়তা দেবে বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল তা পূরণ হয়নি।

এ সময়ে ২৫৫ কোটি ৭ লাখ ডলারের প্রতিশ্রুতি এসেছিল। গত অর্থ বছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ৩৪৫ কোটি ৮২ লাখ ডলার।

চলতি অর্থ বছরের জুলাই-এপ্রিল পর্যন্ত যে অর্থ ছাড়ের প্রতিশ্রুতি এসেছে তার মধ্যে ঋণের পরিমাণ ২১৮ কোটি ২৯ লাখ ডলার এবং অনুদান ৩৬ কোটি ৭৯ লাখ ডলার।

গত অর্থ বছরের একই সময়ে যে প্রতিশ্রুতি এসেছিল তার মধ্যে ঋণ ছিল ২৯৮ কোটি ডলার; অনুদান ৪৭ কোটি ৮৫ লাখ ডলার।

২০১৪-১৫ অর্থবছরের প্রথম দশ মাসে বাংলাদেশ সরকার বিভন্ন দাতা দেশ ও সংস্থার কাছ থেকে আগের নেওয়া ঋণের সুদ-আসল বাবদ ৯৬ কোটি ৪৫ লাখ ডলার পরিশোধ করেছে। এর মধ্যে আসল ৮০ কোটি ৩৭ লাখ এবং সুদ ১৬ কোটি ৮ লাখ ডলার।

গত অর্থবছরের একই সময়ে সরকার ঋণের কিস্তি বাবদ ১০৮ কোটি ৮৮ লাখ ডলার পরিশোধ করেছিল। এর মধ্যে আসল ছিল ৯১ কোটি ৩১ লাখ ডলার; আর সুদ ১৭ কোটি ৫৭ লাখ ডলার।

২০১২-১৩ অর্থবছরে সুদ-আসল বাবদ সরকার পরিশোধ করা হয়েছিল ৯০ কোটি ডলার।

অর্থ ছাড়ে এগিয়ে বিশ্ব ব্যাংক

শেষ হতে যাওয়া অর্থবছরের জুলাই-এপ্রিল সময়ে সবচেয়ে বেশি অর্থ ছাড় করেছে বিশ্ব ব্যাংক। এ সংস্থার অর্থছাড়ের পরিমাণ ৭৮ কোটি ২ লাখ ডলার। এর মধ্যে ঋণের পরিমাণ ৬৬ কোটি ৩ লাখ, আর ১২ কোটি ডলার অনুদান।

দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক-এডিবি। এ সংস্থা দশ মাসে ৫৮ কোটি ৫৭ লাখ ডলার ছাড় করেছে।

তৃতীয় অবস্থানে থাকা জাপান আন্তর্জাতিক সহযোগিতা সংস্থা -জাইকা ছাড় করেছে ২৫ কোটি ৬৯ লাখ ডলার। এছাড়া ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংক- আইডিবি ১১ কোটি ৮৭ লাখ ডলার ছাড় করেছে।

এবার লক্ষ্য ৩৪ হাজার ৫০০ কোটি টাকা

চলতি ২০১৪-১৫ অর্থবছরের আড়াই লাখ কোটি টাকার বাজেটে মূল এডিপির আকার ধরা হয়েছিল ৮০ হাজার ৩১৪ কোটি ৫২ লাখ টাকা। যার মধ্যে প্রকল্প সাহায্যের পরিমাণ ধরা ছিল ২৭ হাজার ৭০০ কোটি টাকা।

বাস্তবায়ন সন্তোষজনক না হওয়ায় এডিপির আকার কমিয়ে ৭৫ হাজার কোটি টাকায় নামিয়ে আনা হয়। আর বিদেশি সাহায্য বা প্রকল্প সাহায্য কমিয়ে ধরা হয় ২৪ হাজার ৯০০ কোটি টাকা।

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “চলতি অর্থবছর ডোনারদের বেশি অর্থ ছাড়ের বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে নতুন বাজেটে ফরেন এইডের পরিমাণ বেশি ধরা হয়েছে। গত অর্থবছরে (২০১৩-১৪) প্রায় ৩ বিলিয়ন (৩০০ কোটি) ডলার ফরেন এইড এসেছিল। এবার সেটা ৩১০ কোটি ডলার ছাড়িয়ে যাবে বলে আমরা আশা করছি।”

আর এ বিষয়টি বিবেচনায় নিয়েই নতুন এডিপিতে ৩৪ হাজার ৫০০ কোটি টাকা বিদেশি সাহায্যের লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করা হয়েছে বলে জানান মুহিত।

“এখানে একটি বিষয় আমি উল্লেখ করতে চাই। সবাই আশঙ্কা করেছিল পদ্মা সেতুতে বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়ন ‘না’ করে দেওয়ার পর আমাদের ফরেন এইড কমে যাবে। কিন্তু সেটা হয়নি। উল্টো আরও বেড়েছে।”

বিশ্ব ব্যাংক ‘ভুল বুঝতে পেরে’ অন্যান্য প্রকল্পে বেশি ঋণ-সহায়তা দিচ্ছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

মুহিত জানান, আগামী ২০১৫-১৬ অর্থবছর ‘বাজেট সহায়তা’ হিসেবে বিশ্বে ব্যাংক ৫০ কোটি ডলার দেবে বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

৪ জুন জাতীয় সংসদে ২০১৫-১৬ অর্থবছরের যে বাজেট প্রস্তাব অর্থমন্ত্রী উপস্থাপন করেছেন, তাতে সরকারের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) আকার ধরা হয়েছে ৯৭ হাজার কোটি টাকা।

নতুন এডিপির ৬৪ দশমিক ৪৩ শতাংশ বা ৬২ হাজার ৫০০ কোটি টাকা সরকারের নিজস্ব তহবিল থেকে খরচ করা হবে। বাকি ৩৫ দশমিক ৫৬ শতাংশ বা ৩৪ হাজার ৫০০ কোটি টাকা প্রকল্প সাহায্য হিসেবে আসবে বলে ধরেছেন অর্থমন্ত্রী।

বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী বলেন, বিদায়ী ২০১৪-১৫ অর্থবছরের বাজেটে বিদেশি উৎস থেকে ২৪ হাজার ২৭৫ কোটি টাকা অর্থায়ন (বিদেশি সাহায্য) হবে বলে প্রাক্কলন করা হয়েছিল। কিন্তু সংশোধিত বাজেটে তা ২১ হাজার ৫৮৩ কোটি টাকায় নামিয়ে আনা হয়েছে।

“আমরা সরকারের আয় বাড়াতে বিদেশি সাহায্যের অনুপাত ব্যাপকভাবে বাড়িয়েছি। কিন্তু সেই অনুপাতে আমাদের প্রকল্প ব্যয় তেমন বাড়েনি। এক্ষেত্রে দক্ষতা বৃদ্ধি এবং ব্যয়ের নিয়ম-কানুন সরল ও সহজ করা অত্যন্ত জরুরি।”

প্রকল্প বাস্তবায়নের বিষয়টি বিবেচনার জন্য সচিব পর্যায়ের একটি ‘স্থায়ী’ কমিটি গঠনেরও ঘোষণা দেন মুহিত।

বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানে (বিআইডিএস) গবেষণা পরিচালক জায়েদ বখত বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “আশঙ্কা করা হয়েছিল তিন মাসের সহিংস রাজনীতির কারণে দাতারা এবার কম অর্থ ছাড় করবে। কিন্তু সেটা হয়নি। এটা বাংলাদেশের অর্থনীতির জন্য একটা ভালো খবর।”

তবে সরকার যদি পাইপলাইনে থাকা সহায়তা ছাড়ের ব্যাপারে দাতাদের সঙ্গে দরকষাকষি করত, তাহলে আরও বেশি বিদেশি সাহয্য আসত বলে মনে করেন এই গবেষক।

পাইপলাইনের বিদেশি সাহায্যের বিষয়ে বাজেট বক্তৃতায় মুহিত বলেন, “বিদেশি সহায়তার যে বিশাল পাইপলাইন গড়ে তোলা হয়েছে সেখান থেকে ব্যয় বাড়াতে পারলে অভ্যন্তরীণ উৎসের ওপর নির্ভরশীলতা যথেষ্ট কমানো সম্ভব হবে বলে আমার বিশ্বাস।

“আর সেই প্রচেষ্টা আমরা চালিয়ে যাব- যাতে অন্তত আগামী অর্থবছরে (২০১৫-১৬) বিদেশি সহায়তা ব্যবহারের হার বৃদ্ধি পায়।”

এ জাতীয় আরও খবর

দুদকের মামলা স্থগিতে বদির আবেদন খারিজ

সকালে তীব্র, দুপুরে সহনীয় যানজট

অর্থ আত্মসাৎ: নর্থ সাউথের চার ট্রাস্টিকে গ্রেফতারের নির্দেশ

‘মুজিব’ সিনেমার ট্রেলার দেখে সবাই কেন হতাশ তার কারণ পাচ্ছেনা পরিচালক

হয়রানির শিকার বলিউড অভিনেত্রী দিয়া মির্জা

অ্যান্থনি নরম্যান আলবানিজকে শেখ হাসিনার অভিনন্দন

উত্তরায় নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

আজ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির আবেদন শুরু

কাশিমপুর কারাগারে নারী হাজতির মৃত্যু

সিঙ্গাপুরের হেড কোচ হলেন সালমান বাট

ধানুশের আসল বাবা-মা নাকি তারাই! মানতে নারাজ অভিনেতা

পাকিস্তানি নারীর ‘প্রেমের ফাঁদে’ গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাচার, ভারতীয় সেনা গ্রেপ্তার