মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মিরপুরে ৫০ লাখ জাল টাকাসহ আটক ৬

news-image

অপরাধ ডেস্কসোমবার রাতে মিরপুরের বিভিন্ন স্থান থেকে রাজধানীর মিরপুরে জাল টাকা তৈরি চক্রের ছয় সদস্যকে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

মঙ্গলবার দুপুরে ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান ডিসি ডিবি (উত্তর) শেখ নাজমুল আলম।

শেখ নাজমুল আলম বলেন, গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলো চক্রের মূলহোতা শফিকুল ইসলাম ওরফে শামীম। তার পাঁচ সহযোগী সোহাগ অধিকারী, সুমন আহমেদ,বায়েজিদ উদ্দীন, সিদ্দিকুর রহমান ও মোসা. জেসমিন আকতার। রাজধানীর মিরপুরের মধ্যমণিপুর ভাড়া বাসা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

তিনি বলেন, গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের কাছ থেকে ১ হাজার ও ৫০০ টাকা মূল্যমানের ৫০ লাখ টাকার জাল নোট, বিপুল পরিমাণ জাল নোট তৈরির কাগজ, নিরাপত্তা সূতা, তিনটা ল্যাপটপ, একটা ডেস্কটপ ও ১২ বান্ডিল জলছাপ দেয়ার কাগজ উদ্ধার করা হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা গেছে, তারা রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে বাসা ভাড়া নিয়ে জাল নোট তেরি করে আসছিল। প্রথমে তারা জালনোট তৈরি করে পরে সেগুলো বাজারজাত করে। রমজানকে সামনে রেখে এই চক্র ৪ থেকে ৫ কোটি টাকার জাল নোট বাজারে ছাড়ার পরিকল্পনা করেছিল বলে দাবি করেছেন শেখ নাজমুল আলম।

তিনি জানান, তিনটা গ্রুপে ভাগ হয়ে এই কাজ করা হয়। একটা গ্রুপ জালনোট ছাপায়। একটা গ্রুপ নিরাপত্তা সূতা বসায়। আরেকটা গ্রুপ জালটাকা বাজারজাত করে। বাজারের চাহিদা অনুযায়ী তারা ভারতীয় রূপী, ডলার, ইউরোসহ মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশের মুদ্রা তারা তৈরি করে। ঈদ, রোজা, পূজা ও অন্যান্য উৎসবকে সামনে রেখে তারা সাধারণত এই জাল টাকা তৈরি ও বাজারজাত করে। এর আগেও শফিকুল ও তার সহযোগীরা একাধিকবার পুলিশের হাতে ধরা পরে।

এক প্রশ্নের উত্তরে শেখ নাজমুল আলম জানান, আমরা যথাযথভাবে চার্জশিট দেই। কেন তারা মুক্তিপায় এটা আদালাতের ব্যাপার। জালাটাকা ছাপা ও বাজারজাতের ঘটনায় গত এক বছরে ৪৭ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

এ জাতীয় আরও খবর