বুধবার, ১৮ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশকে সঙ্গে নিয়ে চলতে চায় ভারত

news-image

ডেস্ক রির্পোট বাংলাদেশকে পাশে নিয়ে উন্নয়নের পথে এগিয়ে যাওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। গতকাল বিকালে বাংলাদেশ ত্যাগের আগে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে উন্মুক্ত বক্তৃতায় তিনি এ প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। বক্তব্যের শুরুতে বাংলায় তিনি বলেন, আমরা তোমার সঙ্গে আছি। আমরা তোমাকে সঙ্গে নিয়ে চলবো। সোয়া এক ঘণ্টার বক্তৃতায় মোদি বাংলাদেশের উন্নয়নে ভারতের সহায়তা অব্যাহত রাখার কথা বলেন। ভারতকে বাংলাদেশের সড়ক ও বন্দর ব্যবহারের সুযোগ দেয়ায় বাংলাদেশের জনগণের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। বাংলাদেশে ভারতের বিনিয়োগ বাড়ানোর পাশাপাশি দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলে সার্ক স্যাটেলাইট বসানোর ঘোষণা দেন। তবে বক্তৃতায় তিনি গণতন্ত্র ও ধর্মনিরপেক্ষতা নিয়ে কোন কথা বলেননি। মোদি বলেন, দুই দিনের সফরে বাংলাদেশের মানুষ যে সম্মান দিয়েছে তা একজন ব্যক্তির সম্মান নয়। পুরো ভারতের একশ কোটি মানুষের সম্মান।

বাংলাদেশের সঙ্গে আবেগের সম্পর্ক জড়িয়ে আছে উল্লেখ করে মোদি জানান, যৌবনে তিনি রাজনীতিতে জড়িত ছিলেন না। তখন সামাজিক কার্যক্রমের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশকে সমর্থন দিতে দিল্লিতে আন্দোলনে অংশ নিতে গিয়েছেন। এটা তার জীবনে প্রথম রাজনৈতিক কর্মসূচি। মুক্তিযুদ্ধের কথা স্মরণ করে মোদি বলেন, তখন আপনাদের রক্ত ঝরছিল, আমাদেরও রক্ত ঝরছিল। এখানকার অত্যাচারের আওয়াজ আমাদের কানে পৌঁছাচ্ছিল। ওপরওয়ালা হয়তো চেয়েছেন তাই আপনাদের সামনে নতুনরূপে এসেছি। সারা দুনিয়া ভাবে দুই দেশ পাশাপাশি চলছে। আমরা শুধুই পাশাপাশি নয়, সঙ্গে সঙ্গে আছি। দুই দেশের উন্নয়নকে সমানভাবে এগিয়ে নেয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করে মোদি বলেন, একটা দেশের যত শক্তিই থাকুক সে একা কিছু করতে পারে না। পুরো বিশ্ব আজ একে অপরের ওপর নির্ভরশীল। বাংলাদেশের উন্নয়ন হলে তার প্রভাব প্রতিবেশি ভারতেও পড়বে। আঞ্চলিক যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নয়নের ওপর গুরুত্বারোপ করে মোদি বলেন, ইউরোপ শুধুমাত্র আঞ্চলিক যোগাযোগের কারণে আজ উন্নত হয়েছে। যে কারণে গত সার্ক শীর্ষ সম্মেলনে ভারত আঞ্চলিক যোগাযোগ ব্যবস্থার ওপর জোর দিয়েছে। বাংলাদেশ, ভারত, নেপাল ও ভুটান এ বিষয়ে একমত হয়েছে।

তিনি বলেন, সারা দুনিয়ায় যুদ্ধ চলছে জমি নিয়ে। ভারত কখনও জমির জন্য যুদ্ধ করেনি। এখন সময় বদলে গেছে। এখন আধিপত্যবাদের বদলে উন্নয়নের দিকে ঝুঁকছে দেশগুলো। বাংলাদেশের সঙ্গে সীমান্ত চুক্তি শুধু জমির বিনিময় নয়। এই সমঝোতা দুই দেশের আত্মার বন্ধনের সমঝোতা। 

বাংলাদেশের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে মোদি বলেন, বাংলাদেশের সড়ক ব্যবহার করে ত্রিপুরায় বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের কারণে সেখানে অন্ধকার দূর হয়েছে। ওই বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে বাংলাদেশকে ১০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ দেয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে ৫০০ ও ১০০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ দেয়ার কাজ চলছে। এভাবে এই অঞ্চলে অন্ধকার দূর হবে বলে আশা প্রকাশ করেন।

শেখ হাসিনার প্রশংসা করে মোদি বলেন, শেখ হাসিনা ও আমার লক্ষ্য এক। আর তা হচ্ছে উন্নয়ন। শেখ হাসিনা একজন নারী হয়েও সন্ত্রাসবাদের বিপক্ষে জিরো টলারেন্স দেখিয়েছেন। মোদি বলেন, বিশ্বে সমৃদ্ধ দেশ নিয়ে অনেক কথা হয়, কিন্তু গরিব দেশ নিয়ে আলোচনা হয় না। বাংলাদেশে বার বার রাজনৈতিক সংকট এসেছে। মুক্তিযুদ্ধ ছাড়াও সংকট এসেছে, আর বাংলাদেশ মোকাবিলা করে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে। বাংলাদেশ শুধু মুক্তিযুদ্ধকালীন সময় নয়, পরবর্তীতে অনেক সংকট মোকাবিলা করেছে। এত সংকটের পরেও বাংলাদেশের বিভিন্নক্ষেত্রে কৃতিত্বের পরিচয় দিয়েছে। বিশেষ করে বাংলাদেশের গার্মেন্টস শিল্প সারাবিশ্বে প্রশংসিত। ভারতের প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ নতুন উচ্চতায় পৌঁছুক এটাই ছিল স্বপ্ন। আমরা চেয়েছি বাংলাদেশের বিকাশ। আমাদের চিন্তায় ছিল বাংলাদেশের স্বাধীনতা। যার কারণে আমরা সেদিন আমাদের সমস্যার দিকে তাকাইনি।

তিনি আরও বলেন, আমাদের সেনাদের চরিত্র দেখুন যে, একটি দেশের ৯৫ হাজার সেনাকে আত্মসমর্পণে বাধ্য করেছিল। একটি বিমান হাইজ্যাক করে কত কিছু দাবি করা হয়। ভাবতে পারেন সেদিন ৯৫ হাজার সেনাকে আমরা কাছে নিয়েও তাদের দেশে ফিরতে দেয়া হয়। আমাদের তো কোন কিছু চাওয়া ছিল না। স্থল সীমান্ত চুক্তি নিয়ে তিনি বলেন, বাংলাদেশের খবরের কাগজে দেখলাম অনেকে বলেছেন এটা বার্লিনের দেয়াল ভেঙে পড়ার মতো। অন্য দেশের হলে নোবেল পুরস্কার দেয়া হতো। কিন্তু আমরা গরিব দেশ। তবে একসঙ্গে চললে সবাই দেখবে এরা এক সঙ্গে এগিয়ে চলছে। দেরিতে খেলা শুরু করলেও বাংলাদেশ ক্রিকেটকে এখন আর ছোট করে দেখার সুযোগ নেই বলে মন্তব্য করেন নরেন্দ্র মোদি। এ সময় ক্রিকেটে বাংলাদেশের সাম্প্রতিক পারফরমেন্সের ভূয়সী প্রশংসা করে আগামীতে আরও ভাল খেলবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।  সৌর বিদ্যুতে আস্থা রেখে তিনি বলেন, এক সময় সূর্য সমস্যার কারণ ছিল। কিন্তু এখন সূর্য শক্তিতে পরিণত হয়েছে। বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের আবেগপূর্ণ যোগাযোগ রয়েছে বলেও মন্তব্য করেন মোদি। জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে স্থায়ী সদস্যপদ না পাওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী। জাতিসংঘকে ব্যাকডেটেড অ্যাখ্যা দিয়ে মোদি বলেন, নিরাপত্তা পরিষদে স্থায়ীভাবে স্থান না পেলেও শান্তিরক্ষা মিশনে বিশ্বে সুনাম অর্জন করেছে ভারত। মোদি তার বক্তৃতা শেষ করেন জীবনানন্দের ‘আবার আসিব ফিরে’ কবিতার মধ্য দিয়ে।

 ঢাকাস্থ ভারতীয় হাই কমিশনের সহায়তায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এ বক্তৃতা অনুষ্ঠান আয়োজন করে। অনুষ্ঠানের শুরুতেই স্বাগত বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি  অধ্যাপক আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক। এরপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই প্রো ভিসি নরেন্দ্র মোদিকে মঞ্চে নিয়ে যান। তার হাতে ক্রেস্ট তুলে দেন ঢাবি ভিসি। মন্ত্রীপরিষদের সদস্য, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা, বিভিন্ন দেশের কূটনীতিক, বুুদ্ধিজীবী, রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ ও শিক্ষার্থীরা বক্তৃতা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

এ জাতীয় আরও খবর

বাংলাদেশকে লিডের স্বপ্ন দেখাচ্ছেন তামিম-মুশফিক-লিটন

দেশের শীর্ষ ৫ ব্যাংকের একটি হওয়ার লক্ষ্য এনসিসি ব্যাংকের

এআইইউবি রোবোটিক দলকে পৃষ্ঠপোষকতা ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের

গ্যাস ট্যাবলেট খেয়ে প্রবাসীর স্ত্রীর ‘আত্মহত্যা’

সুনামগঞ্জে পাহাড়ি ঢলে যোগাযোগ-বিচ্ছিন্ন

নাতির সঙ্গে ধস্তাধস্তিতে দাদার মৃত্যু

ট্রেনের টয়লেট থেকে বৃদ্ধের মরদেহ উদ্ধার

হামলায় মাথা ফাটল ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীর

প্রেমিকার বাড়ির পাশে প্রেমিকের ক্ষত-বিক্ষত লাশ

ওষুধ খাইয়ে স্বামীকে ঘুম পারান স্ত্রী, গলাটিপে হত্যা করেন পরকীয়া প্রেমিক

আকস্মিক ধুলি-ঝড়ে বিপর্যস্ত সৌদির রাজধানী রিয়াদ

রিয়াজের মাছ ধরা নিয়ে চলছে হাসিঠাট্টা