মঙ্গলবার, ২৪শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

উদ্ভোধনের ৪ দিন পরই সরাইল খাদ্য গুদামের চাউল সংগ্রহ বন্ধ

news-image

সরাইল প্রতিনিধিঃ ধান চাউল সংগ্রহ কার্যক্রম উদ্ভোধনের চার দিন পরই বন্ধ হয়ে গেছে সরাইল খাদ্য গুদামের চাউল সংগ্রহের কাজ। মিল মালিকরা দিনের পর দিন সরাইল-নাসিরনগর সড়কে দাড়িয়ে অপেক্ষা করছেন। ফলে এ সড়কে তীব্র যানজট এখন   নিত্যদিনের চিত্র। প্রচন্ড তাপদাহে ছটফট করছে ট্রাক শ্রমিকরা। মাত্র ৭২৫ মেট্রিকটন চাউল গ্রহনের পরই গুদামে জায়গার অভাব বলছেন কর্তৃপক্ষ। রোববার সকালে খাদ্য গুদামে গিয়ে দেখা যায় তিনটি গুডাউনেই ঝুলছে তালা। শ্রমিকদের কেউ ঘুমিয়ে আছে। কেউ মাটিতে বসে সিগারেট পান করছে। গুদামের ভিতর থেকে শুরু করে সরাইল-নাসিরনগর সড়কের পশ্চিম পাশে চাউল বোঝাই ৩৫টি ট্রাক দাঁড়িয়ে আছে। ফলে এ সড়কে সকাল থেকে রাত অবধি তীব্র যানজট এখন নিত্যদিনের চিত্র। জৈষ্ঠ্যের প্রচন্ড তাপদাহে ছটফট করছেন ট্রাক শ্রমিকরা। কবে চাউল ফের সংগ্রহ শুরু করবে কেউ বলতে পারছেন না। খাদ্য অফিস সূত্রে জানা যায়, এ বছর উর্দ্বতন কর্তৃপক্ষ ৩ হাজার ৯৪৬ মেট্রিকটন চাউল ও ৩৩০ মেট্রিকটন ধান সংগ্রহের লক্ষমাত্রা নির্ধারন করা করে। তিনটি গুডাউনের ধারন ক্ষমতা ১৫’শ- ১৮’শ মেট্রিকটন। পুরাতন মজুদ ছিল চাউল ১ হাজার ১৩ মেট্রিকটন ও গম ১১০ মেট্রিকটন। গত ৩০ মে থেকে শুরু হয় সংগ্রহ কার্যক্রম।  চার দিনে সংগ্রহ করেন ৭২৫ মেট্রিকটন চাউল। এরপরই কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায় গুদাম। গত ৩ জুন থেকে বন্ধ রয়েছে সংগ্রহ কার্যক্রম। মিলাররা চাউল বোঝাই ট্রাক নিয়ে গত চার দিন ধরে অপেক্ষা করছেন সড়কে। ট্রাক চালক ও শ্রমিকরা ট্রাকের ভিতরেই ঘুমিয়ে রাত পার করছেন। দিনের বেলা চারিদিকে ঘুরাফেরা করছেন। আশে পাশে কোন খাবার হোটেল না থাকায় অনেক কষ্ট হচ্ছে তাদের। তীব্র যানজটের কারনে দূর্ভোগে রয়েছেন সরাইল-নাসিরনগরের শতশত যাত্রী ও শিক্ষার্থীরা। গুদাম কর্মকর্তা মোঃ আবদুল গণি সড়কে যানজট ও ট্রাক শ্রমিকদের কষ্টের কথা স্বীকার করে বলেন, মিলারদের চাউলের গাড়ি নিয়ে আসতে নিষেধ করেছিলাম তারা শুনেনি।  উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মোঃ ইছহাক হাওলাদার বলেন, গুদামে একটু জায়গাও নেই। আমাদের কিছুই করার নেই। ৭’শ মেট্রিকটন ডেচপাসের অনুমতি পেয়েছি। ২-৩ দিনের মধ্যে একটা ব্যবস্থা হতে পারে।