বুধবার, ১৮ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নতুন পুলিশ সুপার আগমন উপলক্ষ্যে ট্রাফিক পুলিশের তৎপরতা

news-image

ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের প্রবেশদ্বার, কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়কের কাউতলি বাসষ্ট্যান্ডের প্রতিদিনকার চিত্র হঠাৎ করেই আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে বদলে যায়। সড়কে নেই সিএনজি চালিত অটোরিক্সা ও ইজিবাইকের জট। ফুটপাতে নেই ক্ষুদ্র ব্যবাসয়িরা। সড়কে ট্রাফিক পুলিশের তৎপরতা চোখে পড়ার মতো। তবে প্রতিদিনকার সাধারণ দৃশ্যপট হঠাৎ এমন বদলে যাওয়ায় জনমনে কৌতুহলের সৃষ্টি হয়েছে।

জানা গেল, এই জেলায় নতুন পুলিশ সুপার অবস্থান নিয়েছেন। তার আগমন উপলক্ষ্যেই ট্রাফিক পুলিশ এমন তৎপরতা দেখিয়েছে।

কাউতলি সিএনজি স্ট্যান্ডের ইজারাদার কাউছার মিয়া বলেন, ‘ট্রাফিকের বড় স্যার আজ গরম। কাউতলি মোড় থেকে সকল সিএনজি অটোরিক্সা উঠাই দিছে। হুনতে (শুনতে) পাইলাম নতুন এসপি সাব আইবো। তাই একটু গোছগাছ করা অইতাছে।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়কের কাউতলির কুরুলিয়া খালের পুরাতন সেতুর গোড়ায় শত শত সিএনজি সারিবদ্ধভাবে রাখা। বদলে গেছে চিরচেনা কাউতলি বাসষ্ট্যান্ডের কোলাহলময় দৃশ্যপট। পুরো কাউতলি বাসষ্ট্যান্ড সুনসান নীরব। বাসষ্ট্যান্ডের উত্তর পশ্চিম দিকে একটি পুলিশের গাড়ি ছাড়া অন্য কোন গাড়ি দেখা যায়নি।

আখাউড়া থেকে সিএনজি অটোরিক্সাযোগে আসা কাউতলি এলাকার বাসিন্দা মুছা মিয়া বলেন, ‘সিএনজির ড্রাইভার তো আমারে ব্রিজের গোড়ায় নামাইয়া দিলো। কারণ জিজ্ঞেস করলে ড্রাইভার বললো- একটু সামনে আগান, সব বুঝবেন। সামনে এগিয়ে তিনি সব বুঝে এই প্রতিবেদকের কাছে মন্তব্য করে বলেন, ’ভাই প্রতিদিনই যদি এসপি সাহেব আসতেন’।

সিএনজি চালক ফারুক মিয়া বলেন, ‘আগে ২০/২৫ টাকা দিলেই কাউতলি মোড়ে যাত্রী উঠা-নামা করা যেতো। আজকে দেখি উল্টা। টাকা পয়সা দিবার কোন সুযোগ নাই। ঠেলার নাম বাবাজি’।

পরীক্ষা দিতে আসা ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজের শিক্ষার্থী সুমাইয়া জাহান ও লাবনী আক্তার এই চিত্র বদলে যাওয়া দেখে তাজ্জব বনে যান। তারা এর কারণ না জানলেও বলেন, কাউতলি মোড়ের আজকের পরিবেশ দেখে ভালো লাগছে। এই পদক্ষেপ দীর্ঘস্থায়ী হলে ভালো হতো। ক্ষণিকের জন্য এমন করে তো লাভ নেই বলে মন্তব্য করেন এই দুই শিক্ষার্থী।

কাউতলি মোড়ে যানজট নিয়ন্ত্রণে তৎপর জেলা ট্রাফিক পুলিশের পরিদর্শক (টিআই) ছাইদুল ইসলাম দাবি করে বলেন, ‘এটি আমাদের প্রতিদিনকার রুটিন ওয়ার্ক’।

কিন্তু আজকের ভিন্ন চিত্র সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি প্রথমে পাশ কাটিয়ে যান। পরে মৃদু হেসে বলেন, ‘নতুন স্যার আসলে শহরের চেহারাটাকেও একটু নতুন করতে হয়’।

প্রসঙ্গত, গত ৩০ মে ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে জেলার পুলিশ সুপার মো. মনিরুজ্জামান বদলি হয়েছেন। গোপালগঞ্জের পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ সুপার পদে স্থলাভিষিক্ত হবার কথা রয়েছে।

 

এ জাতীয় আরও খবর

বাংলাদেশকে লিডের স্বপ্ন দেখাচ্ছেন তামিম-মুশফিক-লিটন

দেশের শীর্ষ ৫ ব্যাংকের একটি হওয়ার লক্ষ্য এনসিসি ব্যাংকের

এআইইউবি রোবোটিক দলকে পৃষ্ঠপোষকতা ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের

গ্যাস ট্যাবলেট খেয়ে প্রবাসীর স্ত্রীর ‘আত্মহত্যা’

সুনামগঞ্জে পাহাড়ি ঢলে যোগাযোগ-বিচ্ছিন্ন

নাতির সঙ্গে ধস্তাধস্তিতে দাদার মৃত্যু

ট্রেনের টয়লেট থেকে বৃদ্ধের মরদেহ উদ্ধার

হামলায় মাথা ফাটল ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীর

প্রেমিকার বাড়ির পাশে প্রেমিকের ক্ষত-বিক্ষত লাশ

ওষুধ খাইয়ে স্বামীকে ঘুম পারান স্ত্রী, গলাটিপে হত্যা করেন পরকীয়া প্রেমিক

আকস্মিক ধুলি-ঝড়ে বিপর্যস্ত সৌদির রাজধানী রিয়াদ

রিয়াজের মাছ ধরা নিয়ে চলছে হাসিঠাট্টা