শনিবার, ১৩ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ২৯শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

উত্তরে মেয়র প্রার্থী সমর্থন দেওয়া নিয়ে খালেদা ও তারেকের দ্বিমত

2011-01-30__Khaleda-Tariqueডেস্ক রির্পোট : সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের উত্তরের প্রাথী হিসাবে ব্যবসায়ী আব্দুল আউয়াল মিন্টু এখনও পর্যন্ত আদালাতে আপিল করে টিকে থাকার লড়াই করছেন। সেটা সিদ্ধান্ত হতে পারে বৃহস্পতিবার। তার আপিলের শুনানী হবে ওই দিন। এই অবস্থায় আদালতের রায় মিন্টুর পক্ষে গেলে শেষ পর্যন্ত তিনই প্রার্থী থাকতে পারবেন। কিন্তু আদালত সেই সুযোগ না দিলে, কিংবা রায় তার পক্ষে না গেলে বিএনপিকে বিকল্প সিদ্ধান্ত নিতেই হবে। সেই হিসাবেই বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানও সিদ্ধান্ত নিতে অপেক্ষা করছেন।
বিএনপি চেয়ারপারসন ও তারেক রহমানের ঘনিষ্ট সূত্র জানায়, উত্তরে মেয়র পদে প্রার্থী সমর্থণ দেওয়া নিয়ে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের মধ্যে দ্বিমত তেরি হয়েছে। এখনও তারা একমত হতে পারছেন না। এই কারণে বিএনপির নীতি নির্ধারকদের কয়েকজনের সঙ্গে আলাদা আলাদা করেও কথা বলছেন। কথা বলে সিদ্ধান্ত নিবেন ৮ এপ্রিল কিংবা ৯ এপ্রিল। এই ব্যাপারে খালেদা জিয়ার ঘনিষ্ট একটি সূত্র বলেছে, সব দিক বিবেচনা করেই বিকল্প ধাররার মাহী বি চৌধুরীকেই সমর্থন দেওয়ার পক্ষে ভাবা হচ্ছে। আর তারেক রহমানের ঘনিষ্ট সূত্র বলছে, তাবিথ আউয়ালকেই শেষ পর্যন্ত বিএনপি সমর্থন দিতে পারে। তিনি বলেন, এর বাইরে অন্য কোন প্রার্থীকে সমর্থন দেওয়ার ব্যাপারে ভাবা হচ্ছে না। তাই এখন এনিয়ে মা ও ছেলের মধ্যে যে মত দ্বৈততা রয়েছে তা দূর হলেই প্রার্থীর নাম ঘোষণা করা হবে। এখানে যে জয়ী হতে পারবে তাকেই দেওয়া হবে। এই জন্য মাঠেও জরিপ চলছে। তা ৮ এপ্রিলের মধ্যে শেষ করা হবে। দুইজনেক জরিপের ফলাফল জানানো হবে। ওই দিন কিংবা তারপর দিন সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।
বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অধ্যাপক এমাজউদ্দীন আহমদ বলেন, সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিএনপির দক্ষিণে ও চট্টগ্রামে জয়ী হওয়ার সম্ভাবনাময় প্রার্থী বিএনপির বিচারে থাকলেও উত্তরে বিজয়ী হওয়ার মতো এখনও প্রার্থী নিশ্চিত করতে পাারেনি। বিএনপি উত্তরে অনেক আশা করেই একমাত্র প্রার্থী হিসাবে আব্দুল আওয়াল মিন্টুকে প্রার্থী দিয়েছিল। সেই হিসাবে তিনি মনোনয়নপত্রও জমা দেন। কিন্তু সেই মিন্টুই খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের আস্থা নষ্ট করেছেন। বিশ্বাস ভঙ্গ করেছেন। মেয়র পদের প্রার্থীতা নিয়ে অনেক খাম খেয়ালী করেছেন বলে মনে করছেন বিএনপির হাইকমান্ড। আর তার কারণে এখন শেষ দিনে সেখানে নতুন কোন প্রার্থী দেওয়ার সুযোগ ছিল না।
বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা এমাজউদ্দীন আহমদ আরো বলেন, আব্দুল আইয়াল মিন্টু ইচ্ছে করেই আমার ধারনা ,মনোনয়ন পত্রে ভুল করেছেন। কারণ তিনি মেয়র হতে চান না। আরো বড় কিছু হতে চান। সেটা যদি তিনি চানই তাহলে তিনি সেটা বলে দিলেই পারতেন।  সেটাও বললেন না আবার মনোনয়ন পত্র জমা দিলেন। আবার ছেলেকে দিয়েও দেওয়ালেন। তার ছেলের মনোনয়ন পত্র জমা দেওয়ার ব্যাপারে ম্যাডাম কোন অনুমতি দেননি। এখন অনেক চেষ্টা করছেন টিকে থাকার শেষ পর্যন্ত পারবেন কিনা আমার জানা নেই।
তিনি বলেন, এখন উত্তরে প্রার্থী নিয়ে সংকট চলছে। আমরা উত্তরে মিন্টুর কারণে নিশ্চিত বিজয় হবে মনে করেছিলাম। বিকল্প চিন্তাই করিনি। কিন্তু তিনি সেটা শেষ করে দিয়েছেন। এখন আমরা এখন অন্য কোন প্রার্থী সেখানে পাচ্ছি না দলের বাইরে যে যাকে সমর্থন দেব। সেটা দিলে তিনিও যে দলের পক্ষে কাজ করবেন এমনটা বলা যায় না। আর এই কারণে আমরা ও ম্যাডাম বিপাকে পড়েছেন। এখন বিকল্প প্রার্থী হিসাবে দুই জনের নাম আলোচনায় রয়েছে। এক হলো আব্দুল আউয়াল মিন্টুর ছেলে তাবিথ আউয়াল আর অপর একজন সাবেক রাষ্ট্রপতি অধ্যাপক এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরীর ছেলে মাহী বি চৌধুরী। এই দুই জনের মধ্যে যিনি যোগ্য তাদের একজনকে দেওয়া হতে পারে।
এমাজউদ্দীন আহমেদ বলেন, এখন দুই জনের যোগ্যতা বিচার করা হচ্ছে। অন্যান্য আনুসঙ্গিক বিষয়ও বিবেচনা করা হচ্ছে। বক্তিজীবনও দেখা হচ্ছে বিবেচনায় কার পাল্লা ভারী সেটাও দেখা হবে। মাহী কে দিলে কি লাভ হবে,তাবিথ কে দিলে কি লাভ হবে সেটাও দেখতে হবে। যোগ্যতা বিচার করে প্রার্থী সময়ন দিয়ে জয় আনতে হবে এটাই বড় কথা।  ভোটারদের মধ্যে কার প্রতি মানুষের আগ্র বেশি সেটাও দেখা হচ্ছে।
তিনি বলেন, মাহী বি চেীধুরীর সম্ভাবনা এখনও অনেক কম। কারণ তিনি একটু অন্য রকম। তাছাড়া এর আগে তারেক রহমানের সঙ্গে তার যে ঠান্ডা লড়াই ছিল সেটাও ম্যাডাম ও তারেক রহমান ভুলে যাননি। এছাড়াও তার আরো অনেক ব্যাপার আছে। তিনি নিজেকে যেই রকম মনে করেন এটা বিএনপিতে থাকলে তাকে মনে করলে হলে না। বিএনপির মতো করে থাকতে হবে। এখন তিনি বিকল্প ধারার হিসাবে আছে, আবার বিকল্প ধারা জোটেরও নেই। একসঙ্গে কিছু কর্মসূচী পালন করে এটাই। কিন্তু এর বেশি সম্পর্ক নেই। সেই হিসাবে মাহী বি চৌধুরীর বিষয়টি নানা দিক থেকেই তাবিথ আউয়ালের তুলানায় পিছিয়ে আছেন। তাবিথ আউয়ালের তুলনায় তিনি কেবল একদিকে এগিয়ে আছেন সেটা হলো তিনি বেশি পরিচিত। এর আগে এমপি ছিলেন। আরো কিছু গুনাবলী তার আছে। তার কিছু পজিটিভ দিকও আছে। কিন্তু দেখতে হবে সেটা দিয়ে তিনি ভোটারদের মন জয় করতে পারবেন কিনা ভেটাররা তাকে জয়ী করবেন কিনা। বিএনপির কি লাভ হবে। বিএনপি তাকে সমর্থণ দিলো। তিনি পাস করলেন। এরপর আর বিএনপির সঙ্গে থাকলেন না। বিকল্প ধারা নিয়েই থাকলেন তাহলোতো হবে না। এছাড়াও আরো দেখা হবে নানা বিষয়। আমরা এনিয়ে আলোচনা করবো।
তিনি বলেন, তাবিথ আউয়ালকে বিএনপি সমর্থণ দিবে কিনা এই ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, তাবিথ আউয়ালের বিষয়টি এখনও চুড়ান্ত হয়নি। তাকে সমর্থন দেওয়া হতে পারে। চিন্তাভাবনা চলছে। তবে এর আগে মিন্টুর বিষয়টি আপিলে কি রায় সেটা জানতে হবে। আপিলে যদি দেখা যায় যে ভুল সংশোধন করতে পারেন তাহলে ভিন্ন বিষয়। তিনিই থাকবেন। আর তিনি যদি সেটাতে ছাড় না পান ও কারেকশন করতে না পারেন তাহলে অবশ্যই তাবিথ আওয়ালের বিষয়টি গভীরভাবে ভাবতে হবে।
তিনি বলেন, তাবিথ আউয়ালের যোগ্যতা কেমন , তিনি মাহী বি’র চেয়ে কতটা এগিয়ে আছেন। তিনি ভোটারতের কাছে কত খানি পৌঁছাতে পারবেন ও মন জয় করতে পারবেন সেটাও একটা বিষয় হবে। আর এই কারণেই বলা যায় এটা এমন ভাবেই করা হবে। তিনি বলেন, তাবিথ আউয়ালকে সমর্থণ দিলে এনিয়ে অনেক কাজ করতে হবে। দেখা যাক শেষ পর্যন্ত কি হয়।
আপনার কি মনে হচ্ছে আব্দুল আউয়াল মিন্টু নিজে মেয়র হবেন না বলেই ছেলেকে বিকল্প প্রার্থী হিসাবে আগেই ঠিক করে রাখেন? তিনি বলেন, সেটা আমি ঠিক বলতে পারবো না। কে কি পরিকল্পনা করে চলেন সেটা আমার জানা নেই। আপনার কি ,মনে হচ্ছে শেষ পর্যন্ত যোগ্য প্রার্থীর অভাবে বিএনপি উত্তরের মেয়রের পদটা হারাবে? তিনি বলেন, সেটা আমি এখনই বলতে চাই না। আমরা আশাবাদী। সেই রকম প্রার্থীই দেব।
এদিকে খালেদা জিয়ার অপর একজন উপদেষ্টা এডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, উত্তরে আব্দুল আউয়াল মিন্টুর ছেলে নয় বরং মাহী বি চৌধুরীকে সমর্থণ দিলেই বিএনপির জন্য ভাল হবে। কারণ মাহীবির একটা ঐতিহ্য রয়েছে। পরিচিতি রয়েছে। সে এমপি ছিল। তার বাবা রাষ্ট্রপতি ছিলেন। তাদের নিজস্ব একটি পরিচিত রয়েছে। মাহী মেধাবী ছেলে। তার কাজ করার অভিজ্ঞতাও আছে। তাছাড়াও প্রার্থী হিসাবেও ভাল। তিনি বিকল্প ধারার প্রার্থী, বিএনপির জোটেও নেই, তাহলে অন্য দলের প্রার্থীকে সমর্থন দেওয়ার দরকার কি, নিজের দলের নেতার ছেলের ছেলে থাকতে এই ব্যাপারে তিনি বলেন, বিকল্প ধারা তারা হলেও তারা আমাদের সঙ্গে অনেক কর্মসূচী একসঙ্গে পালন করে।
মাহী বি বিকল্প ধারা ছেড়ে বিএনপিকে যোগ দিবে?
তিনি বলেন, তা যোগ দিবেন না। তবে তিনি তার দলে থেকেই বিএনটির জোটের সঙ্গে আসতে পারেন।
সেটা কেমন করে?
সেটা হলে এখন ২০ দলীয় জোট আছে আমরা তাকে সমর্থণ দিয়ে মেয়র করতে পারলে তারা আমাদের জোটে আসবে। পরে ২১ দলীয় জোট হয়ে যাবে। আগামী দিনে আমরা ২১ দলীয় জোট সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন করবো। সেই দিক থেকে মাহী বি চৌধুরী ভাল হবে।
শোনা যায় মাহী বি চৌধুরীর সঙ্গে তারেক রহমানের ঠান্ডা লড়াই রয়েছে এর কি হবে?
তিনি বলেন, কেউ কেউ এটা বলেন। তবে সেটা নিয়ে আমি কোন কথা বলতে চাই না। মাহীবির কখনো মনে করা উচিত হবে না তিনি তারেক রহমানের সমান বা তার চেয়ে যেগ্যে। কারণ তারা দুই জনের অবস্থান দুই রকম। তাই বলা যায় দুই জনের মধ্যে মনস্তাস্তিক এই ধরনের বিষয়গুলো এখন না আসাই ভাল। বরং মাহী বি যদি উত্তরের মেয়র হতে চান তাহলে বিএনপির সমর্তন তার প্রয়োজন। আর  সেটাই তাকে দেওয়া হতে পারে। দিলেই সেই ভাবে কথা বার্তা বলেই দেওয়া হবে। এনিয়ে অনেক কথাও হচ্ছে।
তার মানে কি শেষ পর্যন্ত মাহীই বিএনপির সমর্থন পাবেন? তিনি বলেন, এটা আমি ঠিক ৯ এপ্রিলের আগে নিশ্চিত করে বলতে পারি না। চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিবেন ম্যাডাম। সেই হিসাবে এখনই বলা যাবে না। তাারেক রহমান কি মনে নিবেন? তিনি বলেন, এটা আমি বলতে পারবো না। দুই জনের মধ্যে এনিয়ে আলোচনা হবে নিশ্চয়ই।
সূত্র জানায়, মিন্টু উত্তরে জয়ী হবেই বিএনপির প্রার্থী এমনটি মনে করেছিলেন তারেক ও খালেদা। আর  এখন সেখানে অনিশ্চয়তা তৈরি হওয়ায় মিন্টুর মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়ার বিষয়টি নিয়ে নাখোশ বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান। তিনি যত যাই হোক নির্বাচনে বাতিল হবেন না মনে করে তাকে দলের একমাত্র প্রার্থী রাখেন বিকল্প কাউকে রাখেননি। যেটা উত্তরে আব্বাসকে নিয়ে সংশয় থাকায় অতিরিক্ত তিনজন রাখেন। কিন্তু উত্তরেই বিপত্তি ঘটে। এখন উত্তরে প্রার্থী নেই। আওয়াউলের ভুল সংশোধন করতে দিলে তিনি নির্বাচন করতে পারবেন না হলে তাকে বেরিয়ে যেতেই হবে। এই কারণে তারা উত্তরে কাকে বিএনপির সমর্থন দিবেন এনিয়ে চিন্তিত। তবে শেষ মুহুর্তে মিন্টু থাকলে না পারলে তার ছেলে তাবিথ আউয়ালকে বিএনপি সমর্থন দিতে পারে। যদিও আশান্বিত হতে পারছেন না। এডিদােক তাবিথ আউয়াল তার মাকে নিয়ে বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে তার বাসভবনে দেখা করেছেন। সমর্থন পাওয়ার জন্য চেষ্টাও করছেন।
এই ব্যাপারে আব্দুল আউয়াল মিন্টুর ছেলে তাবিথ আউয়াল বলেন, আমার বাবার মনোনয়ন পত্র পূরণ করার জন্য প্রয়োজনীয় সব ধরনের তথ্য দেওয়া হয়েছে। আয়কর, হলফনামা, অঙ্গীকার নামা সহ সব ধরনের নথি পত্র দেওয়া হয়েছে। কোন হিসাবে কোন ভুল নেই। এগুলো ঠিক করতে গিয়ে দেখা গেল ছোট একটু ভুল রয়ে গেছে। আর সেই ভুলেই তার মনোনয়ন পত্র বাতিল করে দিলো।
তিনি বলেন, আসলে এত কিছু দেখা হলো অথচ বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী আবদুল আউয়াল মিন্টুর প্রার্থিতায় সমর্থক আবদুর রাজ্জাক উত্তর সিটি করপোরেশনের ভোটার নন, এটা দেখাই হয়নি। মনে করা হয়েছে তিনি উত্তরেরই ভোটার। কিন্তু তা না হওয়ায় তার মনোনয়নপত্রটি বাতিল বলে ঘোষণা করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা। রিটার্নিং কর্মকর্তার এ সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপিল করা হয়। তাতে কোন লাভ হয়নি। এরপর আদালতে রিট করা হয়। তা খারিজ হয়ে যায়। পরে আবার আপিল করা হয়। এখন বুহস্পতিবার সিদ্ধান্ত হতে পারে। অপেক্ষা করতে হবে।
আপনার কি মনে হয় বিএনপির একটি মেয়র পদ হাতছাড়া হয়ে গেল?
তাবিথ আউয়াল বলেন, সেটা বলবো না। আমি আশাবাদী ছিলাম নির্বাচন কমিশন তাকে ভুল কারেকশন করার সুযোগ দিবে। বুধবারতো চট্টগ্রামের অনেককেই দিয়েছে। ঢাকায় দিলে সমস্যা কি। আমি মনে করি এটা দেওয়া উচিত। কিন্তু দেয়নি। এই জন্য কোর্টে যেতে হয়েছে।
আচ্ছা ধরে নিন আপনার বাবার আপিল রায় পক্ষে গেল না ভুল কারেকশন করার সুযোগ দেওয়া হলো না সেই ক্ষেত্রে কি হবে? তিনি বলেন, সেই ক্ষেত্রেতো আর কিছুই করার থাকবে না।
সেটা যদি হয় আপনি কি বিএনপির হয়ে প্রতিদ্ধন্ধীতাকরবেন? তিনি বলেন, এই রকম কোন চিন্তা করে নির্বাচনে আসিনি। নির্বাচনে এসেছিলেন তরুন প্রজšে§র একজন প্রার্থী হিসাবে। কোন দিন ভাবিনি বাবার প্রতিদ্বন্ধী হবো। কিন্তু সেটাও হয়ে গেছে। আপনি কি আপনার বাবার সঙ্গে আলোচনা করেই মনোনয়ন পত্র জমা দেন? তিনি বলেন, মাহী বি চৌধুরী, ববি হাজ্জাজসহ তরুন প্রজšে§র আমরা যারা আছি তারা নির্বাচনে নতুনত্ব আনার জন্য প্রার্থী হই। বাবা প্রার্থী থাকতে পারলে কি আপনি প্রার্থী থাকবেন? তিনি বলেন, বাবা থাকলেও আমি প্রার্থী থাকবো। স্বতন্ত্র হিসাবে করবো। এখানে ২৩ লাখ লোক ভোটার সেই হিসাবে ভোটারার তাদের পছন্দ মতো ভোট দিবে। আমি হয়তো বাবার সঙ্গে জয়ী হতে পারবো না। কিন্তু আমরা যে গ্রুপ মেইনটেইন করি সেখানেতো অন্তত আমাদের অবস্থানটি জানান দেওয়া হবে। আচ্ছা আপনার বাবার মনোনায়ন পত্র চুড়ান্ত ভাবে বাতিল হয়ে গেলে আপনি কি বিএনপির প্রার্থী হিসাবে নির্বাচন করবেন?  তিনি বলেন, আমি এমনটি ভাবিনি। বিএনপির প্রার্থী হওয়ার জন্য কত নেতা আছে। আমাকে কি দিবে।
আর যদি আপনাকে বাবার ছেলে হিসাবে বিএনপি সমর্থন দেয় তাহলে কি করবেন? তিনি বলেন, সেটা হবে আমার জন্য অনেক বড় সৌভাগ্যের বিষয়। সেটা আমি ভাবিনি। কিন্তু বিএনপি যদি আমাদের এমন কোন সুযোগ দেয় তাহলে বিজয় ছিনিয়ে আনার জন্য যা যা করার আমি তা সবই করবো।
আচ্ছা বিএনপি নির্বাচনে না থাকলেও কি আপনি নির্বাচন করবেন? তিনি বলেন, হ্যাঁ করবো। কারণ আমি কোন দলীয় ব্যানারে আসিনি। বাবার প্রতিদ্বন্ধী হিসাবেই অন্য সবার মতো একজন হয়ে প্রার্থী থাকবো। বিষয়টা কেমন হলো না? তিনি বলেন, এতে আমার বাবা আমার উপর নাখোশ নন। বরং তিনি আমার প্রার্থী হওয়ার বিষয়টি জানেন।  এই নিয়ে তিনি কখনো আমাকে বিরোধিতা করেননি।
আপনার বাবার মনোনয়ন পত্র বাতিল ঘোষণা করলো কমিশন, আপনি বিএনপি চেয়ারপারসনের সঙ্গে দেখা করলেন এরপর খালেদা জিয়া কিংবা তারেক রহমানের তরফ থেকে কেউ কি আপনাকে বিএনপির প্রার্থী হওয়ার জন্য সমর্থণ দিতে পারেন এমন আভাস দিয়েছেন? তিনি বলেন, এই ব্যাপারে এখন কিছু বলতে চাই না।
আপনার বাবার মনোনয়ন পত্রে একজন সমর্থকের ভুলটি কি ইচ্ছাকৃত, কেউ কেউ বলছে আপনাকে বিএনপির সমর্থন পাওয়ানোর জন্য ও আপনার বাবারটি বাতিল করানোর জন্যই এমন ভুল করা হয়েছে? তিনি বলেন, আমি সেটা স্বীকার করি না। আমার বাবা আড়াই মাস ধরে আতœগোপনে আছেন। সেখান থেকে ফরপ ফিলাপ করেছেন বলেই এই রকম একটি ভুল হতে পারে। এটা ইচ্ছাকৃত নয়। এটা যারা বলেন তা সম্পূর্ন অপপ্রচার।