রবিবার, ২১শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৬ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রস্তুত ফাঁসির মঞ্চ ও জল্লাদ

1_73367ডেস্ক রির্পোট : মহান মুক্তিযুদ্ধে স্বাধীনতাবিরোধী সংগঠন আলবদর  বাহিনীর ময়মনসিংহ অঞ্চলপ্রধান কামারুজ্জামানের    ফাঁসির রায় কার্যকর এখন যে কোনো মুহূর্তে। নাজিমুদ্দিন রোডের ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের ফাঁসির মঞ্চ এখন প্রস্তুত, তৈরি রাখা হয়েছে তিন জল্লাদকেও। অ্যাম্বুলেন্সে করে কারাগারের ভিতরে নেওয়া হয়েছে শবাধার। ইতিমধ্যে পরিবারের সদস্যরাও কারাগারে গিয়ে কামারুজ্জামানের সঙ্গে সাক্ষাৎ পর্বও সম্পন্ন করেছেন। কঠোর গোপনীয়তা রক্ষা করে যুদ্ধাপরাধী কামারুজ্জামানের ফাঁসির আয়োজন সম্পন্ন করা হয় গতকাল। সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগে রিভিউ খারিজের সংক্ষিপ্ত আদেশ হাতে পেলেই কারা কর্তৃপক্ষ কামারুজ্জামানকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করবে। আজ যে কোনো সময়েই এই রায়ের কপি কারা কর্তৃপক্ষের হাতে পৌঁছার কথা। কারাগারের দায়িত্বশীল এক কর্মকর্তা গত রাতে বলেন, আমরা প্রস্তুত আছি, আপিল বিভাগে রিভিউ খারিজের রায় পেলে যা করা দরকার করব। কিন্তু রায় এখনো হাতে এসে পৌঁছেনি। রায় সম্পর্কে কামারুজ্জামানকেও জানানো যায়নি। আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২ ২০১৩ সালের ৯ মে কামারুজ্জামানকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দেন। এরপর গত নভেম্বরে তার আপিল আবেদন খারিজ করে দেওয়া হয়। সর্বশেষ গতকাল সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগ তার মৃত্যুদণ্ডের রায় পুনর্বিবেচনার (রিভিউ) আবেদন খারিজ করে দেন। এরপর থেকেই রায় কার্যকরের প্রস্তুতি নিতে থাকে কারা কর্তৃপক্ষ। এর আগে গত ৫ নভেম্বর তাকে কাশিমপুর থেকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে নিয়ে আসা হয়। ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেলসুপার ফরমান আলী বলেন, আমরা প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছি। আদেশের কপি পেলেই কার্যকর।  পুলিশের উপ-কমিশনার (লালবাগ) মফিজ উদ্দিন আহমেদ বলেন, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে পুলিশকে সতর্ক রাখা হয়েছে। বিশেষ করে কারাগার এলাকায় গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। সারা দেশে সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি করা হয়েছে। বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে গতকাল বিকাল থেকেই।

ক্ষমা প্রার্থনা : কারাবিধি অনুযায়ী প্রত্যেক মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত বন্দী রাষ্ট্রপতির ক্ষমা প্রার্থনার সুযোগ পাবেন। মামলার চূড়ান্ত নিষ্পত্তির পর জেলসুপার তা বন্দীকে জানিয়ে রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করার বিষয়ে তার মত চাইবেন। যৌক্তিক সময়ে তাকে ক্ষমা প্রার্থনা করতে হবে। কারা কর্তৃপক্ষ ইতিমধ্যে ক্ষমা প্রার্থনার একটি ফাইল প্রস্তুত করে রেখেছে। তবে কামারুজ্জামানের পারিবারিক সূত্র বলেছে, তিনি ক্ষমা প্রার্থনা করবেন না। কারা কর্তৃপক্ষ জানায়, রিভিউ আবেদন খারিজ আদেশের কোনো কিছুই এখনো পৌঁছেনি কারাগারে। এরপরও পুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডের এই কারাগারকে ঘিরে নেওয়া হয়েছে বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা। যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় সর্বোচ্চ সতর্কতায় রয়েছে পুলিশ ও র‌্যাব। এদিকে কামারুজ্জামানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে তার আইনজীবীরা গতকাল আবেদন জানালে কারা কর্তৃপক্ষ তা গ্রহণ করেনি। তবে কামারুজ্জামানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে পরিবারের কাছে চিঠি দেয় কারা কর্তৃপক্ষ। পরিবারের ১৪ সদস্য কামারুজ্জামানের সঙ্গে জেলখানায় গিয়ে দেখা করেছেন। ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে চলে ফাঁসি কার্যকরের প্রস্তুতি। সরকারি নির্দেশ আসার পর যেন বিলম্ব না হয় সেজন্য কারা কর্তৃপক্ষ সব প্রস্তুতি চূড়ান্ত করে। গতকালই একটি অ্যাম্বুলেন্সে করে কফিন কারাগারের ভিতরে পাঠানো হয়েছে। পাশাপাশি কারাগার ও এর আশপাশের এলাকায় নিরাপত্তা বাড়ানো হয়।দুবার মহড়া : আলবদর বাহিনীর অন্যতম নেতা বর্তমানে জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মুহাম্মদ কামারুজ্জামানের ফাঁসির দুবার মহড়া দেওয়া হয়েছে গতকাল। এ ছাড়াও কমপক্ষে ২০ জন জল্লাদের তালিকা কারা কর্তৃপক্ষের হাতে আছে। তাদের মধ্যে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের জল্লাদ জনি, রাজু, পল্টু, আলমগীর, এরশাদ, সাত্তার ও রানা রয়েছেন। জনি মানবতাবিরোধী অপরাধে কাদের মোল্লার ফাঁসি কার্যকরে সহযোগীর দায়িত্ব পালন করেন। জল্লাদের তালিকায় তার নাম প্রথম স্থানে রাখা হয়েছে। ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার নেছার আলম জানান, কাশিমপুর, ময়মনসিংহ ও কুমিল্লা কারাগারের জল্লাদদেরও তালিকা করা হয়েছে। সূত্র জানায়, ফাঁসির মঞ্চ প্রস্তুতিতে যা যা প্রয়োজন তা করা হয়েছে। শামিয়ানা টানানো হয়েছে। দড়িও প্রস্তুত করা হয়েছে।  কামারুজ্জামানের পুত্র হাসান ইকবাল জানান, বেলা দেড়টার দিকে কেন্দ্রীয় কারাগারের একজন ডেপুটি জেলার তার মাকে ফোন করে দেখা করবেন কিনা তা জানতে চেয়েছেন। ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার নেসার আলম বলেন, আমরা আমাদের কর্তব্য কাজ এগিয়ে রাখছি। তবে এখন পর্যন্ত আদালতের কোনো আদেশ পাওয়া যায়নি বলেও মন্তব্য করেন তিনি।কারাগারে কামারুজ্জামানের পরিবার : কামারুজ্জামানের পরিবারের সদস্যরা সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় দেখা করতে কারাগারে যান। একটি মাইক্রোবাসে (নং- ঢাকা মেট্রো-চ-২৫৮৬) করে কারাগারে পৌঁছেন পরিবারের সদস্যরা। তাদের মধ্যে পাঁচজন বয়স্ক ও চার শিশু। পরিবারের সদস্যদের মধ্যে রয়েছেন কামারুজ্জামানের স্ত্রী নুরুন্নাহার, দুই ছেলে হাসান ইকবাল ওয়ামি ও হাসান ইমাম ওয়াফি, মেয়ে আতিয়া নূর ও ভাগ্নি রোকসানা জেবিন। আগে থেকেই কারা ফটকে ছিলেন জামায়াতের একাধিক নেতা। সন্ধ্যা ৬টা ৪৭ মিনিটে তারাসহ মোট ১৪ জন কামারুজ্জামানের সঙ্গে দেখা করতে কারাগারের ভিতরে ঢোকেন।