রবিবার, ২১শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৬ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ত্রিপুরা থেকে আখাউড়ায় আসছে দূষিত পানি

Brahmanbaria-home-show-1ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের আগরতলা থেকে প্রতিদিন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় আসছে দূষিত পানি। এ পানির কারণে এলাকার পরিবেশ দূষণ বাড়ছে। এ ছাড়া ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সীমান্তবর্তী ১৫টি গ্রামে ছড়িয়ে পড়ছে চর্মরোগসহ পানিবাহিত নানা রোগ।

সরেজমিন রবিবার ঘুরে দেখা যায়, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া স্থলবন্দর সংলগ্ন কালন্দি খাল দিয়ে ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের রাজধানী আগরতলা থেকে আসছে আবর্জনা ও কেমিক্যাল মিশ্রিত পানি। সেখানকার ডাইং কারখানা, চামড়া কারখানা, মেলামাইন কারখানা, ইন্দিরা গান্ধী মেমোরিয়াল হাসপাতাল, বিভিন্ন বাসা-বাড়ির সুয়ারেজ লাইনসহ সমস্ত এলাকার বর্জ্য পানি কোনোরকম শোধন ছাড়াই বাংলাদেশের কালন্দি খালে ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে। এ পানি আখাউড়া স্থলবন্দর হয়ে খালে বয়ে আশপাশের গ্রামগুলোকে দূষিত করে তিতাস নদীতে গিয়ে মিশছে।

স্থানীয় বাসিন্দা কুলসুম বেগম (৩০) বলেন, ‘কী করব ভাই, উপায় নেই। বাড়িঘর ছেড়ে কোথায় যাব? র্দীঘদিন এ অবস্থা থাকায় গন্ধ এখন সয়ে গেছে।’

আখাউড়া কৃষি বিভাগ সূত্রে প্রাপ্ত তথ্যে জানা গেছে, প্রায় ১৫শ’ হেক্টর জমিতে এ কালো পানি দিয়ে ধান চাষ হয়। উপজেলার দক্ষিণ ইউনিয়নের ধানি জমি বেশি। মোগড়া ইউনিয়ন ও আখাউড়া পৌরসভারও কিছু জমি আছে। নদী ও খাল থেকে মেশিনে জমিতে পানি দেওয়ার সময় মাথা সমান উঁচু ফেনা হয়। ওই ফেনা আর কালো পানি ধান গাছের পাতায় লাগলে গাছ লাল হয়ে মরে যাচ্ছে। সেচের পানি যেখানে প্রথম পড়ছে সেখানকার ধান গাছ পুড়ে গেছে।

সীমান্তে কর্মরত বিজিবির নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জওয়ানরা জানান, তাদের ক্যাম্পে ডিউটি করতে মারাত্মক সমস্যা হয়। কেউ কেউ অসুস্থ হয়ে পড়েন। বিষাক্ত পানির প্রভাবে শ্বাসকষ্ট আর চুলকানির প্রকোপ বাড়ছে প্রতিদিন। এ পানি মোগড়া ইউনিয়নের ধাতুর পহেলা আর নয়াদিল দিয়ে আসার পাশাপাশি পৌর শহরের তারাগন হয়ে দেবগ্রাম দিয়ে এবং শহরের প্রধান সড়কের পাশ ধরে নেমে এসে মিশে যাচ্ছে তিতাস নদীতে। এতে নদীর মাছ ও জলজ প্রাণী, বিস্তীর্ণ এলাকার ফসলের জমি ও প্রাকৃতিক ও জলজ পরিবেশের ওপর বিরূপ প্রভাব পড়ছে।

আখাউড়া স্থলবন্দর আমদানি রফতানিকারক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মনির হোসেন বাবুল বলেন, ‘দূষিত পানি আসায় দুর্গন্ধের কারণে ঠিকমতো ব্যবসা করতে পারছি না। ভারত ময়লা পানি দিয়ে এলাকা ভাসিয়ে দিচ্ছে।’

পরিবেশ অধিদফতরের ব্রাহ্মণবাড়িয়ার উপ-পরিচালক সাইফউল্লাহ তালুকদার বলেন, ‘বিষয়টি আমি অবগত হয়েছি। পাশাপাশি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য কাজ করব।’

আখাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো.আহসান হাবীব বলেন, ‘কৃষি, বন ও পরিবেশ এবং মৎস্য বিভাগ প্রাথমিক কিছু তথ্য সংগ্রহ করেছে। তাতে ভারতের এ পানিতে আখাউড়ার সীমান্তবর্তী দুটি ইউনিয়ন আর পৌরসভার একটি অংশে বড় ধরনের বিরূপ প্রভাব ফেলছে বলে প্রমাণ পাওয়া গেছে।’

জেলা প্রশাসক ড. মুহাম্মদ মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘আমরা গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। ভারতকে উদ্বেগের কথা জানানো হয়েছে। ভারত দ্রুত সমস্যা সমাধানের জন্য আশ্বাস দিয়েছে।’