বৃহস্পতিবার, ১৮ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৫ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঢাকার যানজট নিরসনে এবার যানবাহনের জন্য ১০ আন্ডারপাস

UNDERPASS-copy-300x228প্রায় দেড়কোটি মানুষের আবাসস্থল রাজধানী ঢাকা। এই বিপুল সংখ্যক মানুষের শহরে রাস্তা পারাপার নির্বিঘ্ন ও নিরাপদ করতে নির্মাণ করা হয়েছে ফুটওভার ব্রিজ ও আন্ডারপাস। যদিও এসবের বেশিরভাগ ব্যবহৃত হয় না বলে জানা যায়।

এবার নগরবাসীর নিত্যদিনের যন্ত্রণা যানজট নিরসনের মহাপরিকল্পনা নিয়েছে সরকার। রাজধানীর শাহজাহানপুর থেকে মিরপুর রোড সিগন্যালমুক্ত করার লক্ষ্যে ৬৪০ কোটি টাকা ব্যয়ে ১০টি আন্ডারপাস (ভেহিকুলার আন্ডারপাস) নির্মাণ করার উদ্যোগ নিয়েছে ঢাকা সিটি করপোরেশন (ডিসিসি)। এর মধ্যে প্রতিটি আন্ডারপাসের নির্মাণের পেছনে গড় ব্যয় হবে ৪৫ কোটি টাকা। আর ১৯ কোটি টাকা ব্যয় হবে প্রত্যেকটির আনুষঙ্গিক খাতে।

যানজটপ্রবণ রাস্তার সংযোগস্থলে মাটির নিচ দিয়ে স্বল্প দূরত্বের টানেলসদৃশ এ আন্ডারপাসগুলো নির্মাণ করা হবে। ট্রাফিক সিগন্যালের কিছুটা দূর থেকেই গাড়িগুলো টানেলের মধ্যে দিয়ে মাটির নিচ দিয়ে সিগন্যাল পয়েন্ট অতিক্রম করতে পারবে। ফলে ওইসব পয়েন্টে গাড়িগুলোকে দীর্ঘ সময় সিগন্যালে দাঁড়িয়ে থাকতে হবে না।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) ঢাকা আরবান ট্রান্সপোর্ট প্রজেক্ট (ডিইউটিপি) থেকে এ প্রকল্পটি বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। প্রকল্পটি ইতিমত্যে স্থানীয় সরকারের অনুমোদন পেয়েছে। এখন পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে অনুমোদনের অপেক্ষায় আছে।

২০০৭ সালে এ পরিকল্পনা গ্রহণ করে তৎকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকার। ওই বছরের অক্টোবরে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের তৎকালীন উপদেষ্টা আনোয়ারুল ইকবালের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদল এর সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের জন্য ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লি যায়।সফর থেকে ফিরে তারা এ পদ্ধতি গ্রহণের জন্য সরকারকে সুপারিশ করে।

তাদের মতে, রাজধানীতে এ পদ্ধতি চালু করা হলে মতিঝিল থেকে মিরপুর রোডে কোনো যানজটে পড়তে হবে না। এতে মহানগরীর যানজট অনেকাংশে কমবে।

সিটি করপোরেশন কর্মকর্তাদের মতে, যানজট নিরসনে ফ্লাইওভারের চেয়ে এই ভেহিকুলার আন্ডারপাস অধিক কাযর্কর। ফ্লাইওভারের তুলনায় এর নির্মাণ ব্যয়ও অনেক কম।

এ বিষয়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) ট্রাফিক ইঞ্জিনিয়ারিং ডিভিশনের সহকারী প্রকৌশলী জহির আহামেদ জানান, যানজট নিরসনে সেন্ট্রাল করিডর, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় বুয়েট ও সিটি করপোরেশনের ট্রাফিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের মাধ্যমে যৌথভাবে এক সমীক্ষা পরিচালনা করা হয়। এতে আন্ডারপাসকে যানজট নিরসনের জন্য উপযুক্ত পদ্ধতি বলে প্রস্তাব করা হয়। প্রকল্পটি বাস্তবায়নের এক বছরের চেয়ে কম সময় লাগায় সড়কের প্রতিটি ইন্টারসেকশনে আন্ডারপাস নির্মাণের জন্য জোর সুপারিশ করেছে বুয়েট।

প্রস্তাব মোতাবেক প্রথম ধাপে ধানমণ্ডি ২৭ নম্বর, ৭ নম্বর, ২ নম্বর, রাসেল স্কোয়ার, সায়েন্স ল্যাবরেটরি, নীলক্ষেত, ফকিরাপুল ও রাজারবাগ-শাহজাহানপুরের ইন্টারসেকশনে ভেহিকুলার আন্ডারপাস নির্মাণ করা হবে। এছাড়া মিরপুর রোডের টিচার্স ট্রেনিং কলেজ ও ধানমণ্ডি ২৭ নম্বরের মানিক মিয়া এভিনিউ ইন্টারসেকশনে হবে ইউটার্ন ভেহিকুলার আন্ডারপাস। এ দুটির মাধ্যমে গাড়িগুলো মাটির নিচ দিয়ে ইউটার্ন নিতে পারবে।

এগুলো পুরোপুরি বাস্তবায়ন হলে দ্বিতীয় দফায় পল্টন, এফডিসির পাশের রেলক্রসিং, বনানীর স্টাফ রোড রেলক্রসিং, মালিবাগ রেলক্রসিং, আগারগাঁও, গুলশান ২ নম্বর গোলচত্বর, গ্রীন রোড-পান্থপথ ক্রসিং, তেজগাঁও নাবিস্কো মোড় এবং কাঁটাবন-এলিফ্যান্ট রোড ক্রসিংয়ে ১১টি আন্ডারপাস নির্মাণেরও পরিকল্পনা রয়েছে ঢাকা সিটি করপোরেশনের।

এর আগে যেসব এলাকায় মেট্রোরেল বা ফ্লাইওভার রয়েছে বা নির্মাণ করা হচ্ছে সেখানে এই ভেহিকুলার আন্ডারপাস সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে বলে আপত্তি উঠেছিল। কিন্তু ওইসব পয়েন্ট এড়িয়ে এসব আন্ডারপাস নির্মাণ করা হবে বিধায় এট কোনো বাধা হবে না বলে মনে করছে ডিএসসিসি।

এছাড়া, সমীক্ষা অনুযায়ী এ প্রকল্পের সুবিধা হলো, নগরীর নান্দনিক সৌন্দর্য বাড়বে, কমবে অর্থ ব্যয়। এতে ভূমি অধিগ্রহণের কোনো প্রয়োজন হবে না। ফলে আন্ডারপাস সংলগ্ন এলাকার কেউ ক্ষতিগ্রস্ত হবে না।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) ট্রাফিক ইঞ্জিনিয়ারিং ডিভিশনের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী ও প্রকল্প পরিচালক আশিকুর রহমান বলেন, ‘নয়াদিল্লিতে এই পদ্ধতি গ্রহণ করে ভালো ফল পাওয়া গেছে। সেখানে এখন টানা ১৮ কিলোমিটার রাস্তায় আর কোনো গাড়িকে সিগন্যালে দাঁড়াতে হয় না।’

ডিসিসির ট্রাফিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সমীক্ষা অনুযায়ী, একটি ফ্লাইওভার নির্মাণের খরচ দিয়ে ৬টি আন্ডারপাস নির্মাণ সম্ভব। আর এ খরচ এক বছরেই পুষিয়ে নেয়া যায়। ঢাকা সিটির অভ্যন্তরে ফ্লাইওভার নির্মাণ না করে আন্ডারপাস নির্মাণ অধিক উপযুক্ত কাঠামো হতে পারে।

চলতি বছরের শুরুতেই প্রকল্পটি নিয়ে চিন্তাভাবনা শুরু করে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) ট্রাফিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ (টিইডি)। গত ২৫ আগস্ট প্রকল্পটির ডিপিপি অনুমোদনের জন্য স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিবের বরাবরে পাঠানো হয় বলে জানিয়েছেন ডিএসসিসির টিইডির তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আশিকুর রহমান। এই প্রকল্প শেষ করতে নয় মাস সময় লাগবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এ জাতীয় আরও খবর

৮৭ হাজার টাকার মদ খান পরীমণি, পার্সেল না দেওয়ায় চালান তাণ্ডব

যুদ্ধ পরিস্থিতি মোকাবিলায় আগাম প্রস্তুতির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

ভারতের পররাষ্ট্র সচিব ঢাকায় আসছেন শনিবার

পি কে হালদারের বিরুদ্ধে প্রথম চার্জশিট দিচ্ছে দুদক

কেমন ছিল জিম্মিদশার দিনগুলো, জানালেন জাহাজের ক্যাপ্টেন রশিদ

ইসরায়েলে ড্রোন হামলা হিজবুল্লাহর, ১৪ সেনাসদস্য আহত

হাথুরুকে নিয়ে ধোঁয়াশা নেই, ২১ এপ্রিল রাতে ফিরছেন ঢাকায়

উপজেলা নির্বাচন সরকারের আরেকটা ভাওতাবাজি : আমীর খসরু

গরমে গতি কমিয়ে ট্রেন চালানোর নির্দেশ

পশ্চিমবঙ্গে ৪৬ ডিগ্রিতে পৌঁছাবে তাপমাত্রা

গুলশানে চুলোচুলি করা সেই ৩ নারী গ্রেপ্তার

দায়িত্বশীল ও টেকসই সমুদ্র ব্যবস্থাপনার আহ্বান পররাষ্ট্রমন্ত্রীর