শুক্রবার, ১৯শে আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কোনটা স্বাভাবিক, কোনটা অস্বাভাবিক

imagesডেস্ক রির্পোট:শিশুদের মলত্যাগ নিয়ে প্রায়ই অভিভাবকদের উদ্বিগ্ন হতে দেখা যায়। কখনো শিশু দিনে বেশ কয়েকবার মলত্যাগ করছে, কখনো কয়েক দিন দিন ধরে করছেই না। আবার কখনো মলের ধরন ও রং পরিবর্তন হচ্ছে ঘন ঘন। কোনটা স্বাভাবিক, কোনটা অস্বাভাবিক—বুঝতে গিয়ে মা-বাবা গলদঘর্ম হন। কিছু হলেই তাঁরা ছোটেন চিকিৎসকের কাছে। কিন্তু আসলে হয়তো এতটা উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই।

শিশু কি সুস্থ ও উচ্ছল?

শিশুদের মলের রং ও গঠন একেক সময় একেক ধরনের হতে পারে। এই হরেক রকম অবস্থা সম্পর্কে কোনো ব্যাখ্যা এখনো নেই। তবে শিশু যদি ওজনে ঠিকঠাক বাড়ে, স্বাভাবিক উৎফুল্ল ও হাসিখুশি থাকে, খেলাধুলা করে, তবে এ নিয়ে অযথা মাথা ঘামানোর প্রয়োজন নেই, কোনো চিকিৎসারও দরকার নেই।

জন্মের পর শিশুর প্রথম মলত্যাগ

নবজাতকের প্রথম মল গামের মতো আঠালো, আর্দ্র ও কালচে বর্ণের হয়ে থাকে। মিকোনিয়ামের কারণে এ রকম হয়। শতকরা ৯০ জনের বেশি পূর্ণ গর্ভকাল পাওয়া (৩৭ সপ্তাহের বেশি গর্ভকাল পেরোনো) নবজাতক জন্মের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ও বাকিদের বেশিরভাগই জন্মের ৩৬ ঘণ্টার মধ্যে প্রথম মলত্যাগ করে থাকে। সুতরাং শিশুর প্রথম মলের জন্য এ সময় পর্যন্ত অপেক্ষা করা উচিত। এ সময় শিশুকে শুধু বুকের দুধ খাইয়ে যেতে হবে, অন্য কিছুর দরকার নেই। অন্যদিকে অত্যধিক কম ওজনের নবজাতকের (জন্মকালীন ওজন ১৫০০ গ্রামের কম) ২০ শতাংশ প্রথম ২৪ ঘণ্টায় মলত্যাগ নাও করতে পারে। শিশুকে খাওয়ানো শুরু করার পর মলের প্রাথমিক কালচে রং পরিবর্তিত হয়ে প্রথমে সবুজাভ-বাদামি ও চার-পাঁচ দিনের দিকে হলদে-বাদামি বর্ণ ধারণ করে।

দিনে কতবার মল?

একটি শিশু দিনে বেশ কয়েকবার মলত্যাগ করতে পারে। এই সংখ্যায় ব্যাপক তারতম্য স্বাভাবিক—যেমন কখনো দৈনিক শূন্যবার কখনো সাতবার পর্যন্তও হয়। স্তন্যপানরত শিশু প্রথম দিকে সারা দিন একটু একটু করে পাতলা পায়খানা অনেকবার করতে পারে। এটিও স্বাভাবিক। একে ডায়রিয়া মনে করা ভুল। দু-তিন সপ্তাহ পর এই মলত্যাগের হার কমে আসে। অন্যদিকে একই শিশু কোনো কোনো সময় এক থেকে দুই সপ্তাহ পর্যন্ত একদম মলত্যাগ নাও করতে পারে। এতেও বেশি আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই, যদি তার কোনো অসুবিধা না হয়। দেখা যায় যে কিছুদিন বন্ধ থাকার পর আবার স্বাভাবিকভাবেই শুরু হয়ে গেছে।

রং হতে পারে নানা রকম

শিশুর মলের রঙে অহরহ পরিবর্তন ঘটে। এ কারণে শিশুর মলের রং কেমন হলো তা খুব একটা গুরুত্বপূর্ণ নয়। তবে দুটি ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম:

প্রথমত যদি পায়খানার সঙ্গে রক্ত দেখা যায়, এবং দ্বিতীয়ত যদি শিশুর মলে বিলিরুবিন অনুপস্থিত থাকে ও অতিরিক্ত ফ্যাকাশে সাদা হয়। এ দুটিই অস্বাভাবিক এবং চিকিৎসকের পরামর্শ জরুরি।

আবার শিশুর মলে অনেক সময় আগে খাওয়া শাকসবজির অংশ, শস্যের দানা ইত্যাদি দেখা যায়। এটিও স্বাভাবিক ঘটনা। এটি ঘটে থাকে কম চিবিয়ে খাওয়ার কারণে, হজমের সমস্যার জন্য নয়।

শিশুর মলত্যাগ

শিশু দৈনিক শূন্যবার থেকে সাতবার পর্যন্ত মলত্যাগ করতে পারে। স্তন্যপানরত শিশু প্রথম দিকে সারা দিন একটু একটু করে অনেকবার পাতলা পায়খানা করতে পারে। এটি স্বাভাবিক। ডায়রিয়া মনে করা ভুল|