শনিবার, ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৫ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দাঙ্গা দমনে পুলিশী অভিযান।

Arest_585037960-150x150নিজস্ব প্রতিবেদক : ব্রাহ্মণবাড়িয়া মডেল থানার সহকারী পুলিশ সুপার জনাব তাপস রঞ্জন ঘোষ ও অফিসার ইনচার্জ আকুল চন্দ্র বিশ্বাস এর নেতৃত্বে ব্রাহ্মণবাড়িয়া মডেল থানার এসআই/ইশতিয়াক আহমেদ, এসআই/সামছুজ্জামান, এটিএসআই/রাশেদ সঙ্গীয় ফোর্সসহ অভিযান পরিচালনা করিয়া ব্রাহ্মণবাড়িয়া মডেল থানার মামলা নং-২৪(১০)১৪, ধারা-৩৬৫/৩০২/৩৪ পেনাল কোড এর সহিত জড়িত আসামী ১। মোঃ হোসেন মিয়া (২২), পিতা-মৃত মলাই মিয়া, সাং-মধ্যপাড়া বর্ডার বাজার, ২। মোঃ আল আমিন (২০), পিতা-আব্দুল হাই, সাং-নবীনগর, থানা-নবীনগর, বর্তমানে মধ্যপাড়া ধোপাবাড়ি, থানা ও জেলা-ব্রাহ্মণবাড়িয়াকে অত্র থানাধীন মধ্যপাড়া এলাকা হইতে গ্রেফতার করিয়া বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করা হইয়াছে। উল্লেখ্য যে, ঈদের দিন রাতে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করিয়া কতিপয় কয়েকজন যুবক একত্রিত হয়ে জালাল নামে এক যুবককে নৃশংস ভাবে খুন করে। এই ঘটনার প্রেক্ষিতে মডেল থানা পুলিশ ২৪ ঘন্টা বিশেষ অভিযান পরিচালনা করিয়া ঘটনার মূল পরিকল্পনাকারী হোসেন ও আল আমিনকে গ্রেফতার করে। ঘটনায় জড়িত অন্যান্য আসামীদেরকে গ্রেফতার অভিযান পরিচালনাসহ মামলার তদন্ত অব্যাহত আছে।

এছাড়াও ব্রাহ্মণবাড়িয়া মডেল থানার এসআই/মোঃ দেলোয়ার হোসেন সঙ্গীয় ফোর্স অভিযান পরিচালনা করিয়া দু®কৃতিকারী ১। জাহিদুল ইসলাম (২৩), পিতা-আকরাম আলী, সাং-জারিয়া নাটের কোনা, থানা-পূর্বধলা, জেলা-নেত্রকোনা, ২। ইব্রাহিম (৩২), পিতা-আঃ ছালাম, সাং-বেশনাল, থানা-টুঙ্গীবাড়ি, জেলা-মুন্সিগঞ্জদ্বয়কে গ্রেফতার করিয়া তাহাদের দেখানো ও কথামতে অত্র থানাধীন আমিনপুর গ্রামে হুমায়ুন কবিরাজ পিতা সিরাজুল ইসলাম এর দক্ষিণ ভিটির ঘরের পশ্চিম পার্শ্বের কক্ষে হইতে ০১টি চাইনিজ কুড়াল, ০১টি স্টীলের চাপাতি, ০১টি লোহার তৈরী ছুরি, ০১টি লোহার পাইপ উদ্ধার করা হইয়াছে। উক্ত বিষয় সংক্রান্তে ব্রাহ্মণবাড়িয়া মডেল থানায় অস্ত্র আইনের ০১টি মামলা রুজু করা হইয়াছে। উল্লেখ্য যে, বর্ণিত দু®কৃতিকারীরা গরু কেনার নাম করিয়া জনৈক শাহিন মিয়া ও রবিউল নামে ব্যক্তিদ্বয়কে বাড়িতে নিয়া ঠান্ডা পানীয় এর সহিত অজ্ঞান নাশক ঔষধ সুকৌশলে সেবন করিয়া তাহাদের হাত পা বাধিয়া তাহাদেরকে আটক রাখিয়া সর্বমোট ৩,৬৫,০০০/- টাকা নিয়ে যায়। পরবর্তীতে মডেল থানা পুলিশ সংবাদ পাইয়া ঘটনাস্থল আমিনপুর উপস্থিত হইয়া বর্ণিত আসামীদ্বয়কে ধৃত করে এবং আটক থাকা ব্যক্তিদের উদ্ধার করে। ঘটনায় সহিত জড়িত অন্যান্য দৃ®কৃতিকারীদের গ্রেফতার অভিযান অব্যাহত আছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া মডেল থানায় থানাধীন শিলাউর-হাবলাউচ্চ-বিরামপুর গ্রামে গোষ্ঠিগত দাঙ্গা লিপ্ত হইয়া দেশীয় মারাত্মক অস্ত্রাদিতে সজ্জিত হয়ে দুই পক্ষ পরস্পরের সহিত মারামারি করাকালীন সময়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া মডেল থানার সহকারী পুলিশ সুপার জনাব তাপস রঞ্জন ঘোষ ও অফিসার ইনচার্জ আকুল চন্দ্র বিশ্বাস এর নেতৃত্বে ব্রাহ্মণবাড়িয়া মডেল থানা এসআই/ইশতিয়াক আহমেদ, এসআই/মোঃ সফিকুল আলম, এসআই/মোঃ রফিকুল ইসলাম, এসআই/মোঃ আবুল খায়ের, এসআই/আবু বকর সিদ্দিক, এএসআই/বশির আহাম্মদ সঙ্গীয় ফোর্সসহ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে অভিযান পরিচালনা করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। ঐ সময় ঘটনাস্থলে দাঙ্গাবাজ ১। মাকসুদুল হক (২০), পিতা-নুরুল হক, ২। ফরিদ মিয়া (৩৫), পিতা-আঃ ছালাম, ৩। আবজাল মিয়া (২৫), পিতা-মোঃ মোতালিব, সর্বসাং-হাবলাউচ্চ, ৪। মোঃ কালাম (২০), পিতা-মৃত খুরশেদ চৌধুরী, ৫। মোঃ কাউছার (১৯), পিতা-হারুন মিয়া, ৬। মোঃ মোবারক (২৩), পিতা-আবু তাহের, ৭। মোঃ ইলিয়াছ মিয়া (২৪), পিতা-মোঃ আঃ রাজ্জাক, ৮। মোঃ আনিছ মিয়া (২০), পিতা-সিরাজ মিয়া, ৯। রুবেল চৌধুরী (২৩), পিতা-জারু মিয়া, ১০। জামাল মিয়া (৩৫), পিতা-আঃ মান্নান, ১১। মোঃ সুমন মিয়া (২৩), পিতা-ইসহাক মিয়া, ১২। মোঃ সিরাজ মিয়া (২২), পিতা-মোঃ সাত্তার মিয়া, সর্বসাং-বিরামপুর, সর্ব থানা ও জেলা-ব্রাহ্মণবাড়িয়াদেরকে দেশীয় অস্ত্র চল, কুচ, টেডা, বল্লমসহ ধৃত করিয়া তাহাদেরকে বিজ্ঞ ভ্রাম্যমান আদালতে সোপর্দ করিলে বিজ্ঞ ভ্রাম্যমান আদালত তাহাদের প্রত্যেককে ০১ (এক) মাস করে সাজা প্রদান করেন। তদুপরী অত্র থানা এলাকার আইন শৃঙ্খলা এবং দাঙ্গা প্রতিরোধকল্পে মডেল থানা  পুলিশের অভিযান অব্যাহত থাকবে।