বুধবার, ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রেমের টানে পালিয়ে বিয়ে অবশেষে গ্রেফতার

love lifeআরাফাত আহমেদ : প্রেমিকের হাত ধরে ঘর ছেড়ে পালিয়ে যাওয়া নাসিরনগর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এ টি এম মনিরুজ্জামান সরকারের ভাগিনী নাসিরনগর সদরের শীল পাড়া মোঃ শফিকুল ইসলামের মেয়ে নাসিরনগর ডিগ্রী মহাবিদ্যালয়ের ১ম বর্ষের ছাত্রী ফারজানা আক্তার তুন্নীকে উদ্ধার করেছে পুলিশ । ২৩ সেপ্টেম্বর বেলা আড়াই ঘটিকার সময় কলেজ থেকে প্রেমিক খান্দুরা গ্রামের লাফুজ মিয়ার ছেলে ইসলামপুর শফিকুল ইসলাম ডিগ্রী মহাবিদ্যালয়ের ২য় বর্ষের ছাত্র মোঃ শাকিলের হাত ধরে পালিয়ে যায় সে। পালিয়ে যাওয়ার সাতদিন পর পুলিশ তন্নীকে উদ্ধার করে। প্রেমের টানে ঘর ছেড়ে পালিয়ে গেলে তুন্নীর পিতা শফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে শাকিল সহ আটজনকে আসামী করে নাসিরনগর থানায় অপহরণ মামলা রুজু করে।

মামলার পর থানা পুলিশ শাকিলের মা জাহেদা ও শাকিলের চাচী ছাতিয়াইন উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষিকাকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরণ করে। চাচীকে আদালত থেকে জামিনে মুক্ত করতে মঙ্গলবার তুন্নী ব্রাহ্মণবাড়িয়া আসেন। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে নাসিরনগর থানা পুলিশ তুন্নীকে সেখান থেকে আটক করে আদালতে ২২ ধারা জবানবন্দী রেকর্ড করে। নাসিরনগর থানা পুলিশের এস আই ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মোঃ ফজলুল হক জানান ২২ ধারায় জবানবন্দীতে তুন্নী জানায় কেউ অপরহরণ করেনি, তন্নী নিজেই প্রেম করে প্রেমিক শাকিলকে ভালবেসে ইসলামী শরীয়তের বিধান মতে বিয়ে করে স্বামী স্ত্রী হিসেবে ঘর সংসার করছে। পরে বিচারক তন্নীকে সেইভ কাস্টডীতে পাঠিয়ে দেন।