বুধবার, ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

হামলায় থেমে নেই আইএসের অগ্রযাত্রা

1411662834.ইরাক ও সিরিয়ার বিশাল এলাকা দখলে নেয়া জেহাদি দল ইসলামিক স্টেটে (আইএস) বিদেশি যোদ্ধাদের যোগদান নিষিদ্ধ করে শর্ত সাপেক্ষে একটি প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ। গত বুধবার জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের সদস্য দেশগুলোর সর্বসম্মতিতে শর্ত সাপেক্ষে এ প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আনা এ প্রস্তাবে জাতিসংঘের ১৯৩টি সদস্য দেশ সমর্থন দেয়। জাতিসংঘ সনদের ৭ অধ্যায় অনুযায়ী, এ অনুমোদনের মাধ্যমে আইনিভাবে সদস্য দেশগুলোকে এটা মানতে বাধ্য করার কর্তৃত্ব দেয়া হয়েছে জাতিসংঘকে। আইএসে যে বিপুল পরিমাণ বিদেশি যোদ্ধা জিহাদি হিসেবে যোগ দিচ্ছে তা ঠেকাতেই এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
এদিকে, সিরিয়ায় ইসলামিক স্টেটের (আইএস) জেহাদিদের অবস্থানে গত বুধবারও হামলা চালিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও সহযোগী মিত্ররা। তবে এতে একটি কুর্দি এলাকার দিকে ওই জেহাদি গোষ্ঠীর অগ্রযাত্রা থেমে নেই। ওই এলাকা থেকে পলায়নপর কুর্দিদের ভাষ্য, জেহাদিরা তাদের গ্রামের বাড়িঘর জ্বালিয়ে দিচ্ছে এবং বন্দিদের শিরñেদ করছে। স্থানীয় অধিবাসীদের দাবির বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবরে জানানো হয়, তুরস্কের সীমান্তবর্তী একটি কুর্দি এলাকায় নিজেদের অগ্রযাত্রা জোরদার করেছে আইএস। গত বুধবার মার্কিন নেতৃত্বাধীন বাহিনী সিরিয়ার পূর্বাঞ্চলে হামলা চালায়। তেলসমৃদ্ধ এলাকাটি আইএসের আয়ের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ উৎস হিসেবে বিবেচিত।
অন্যদিকে, সিরিয়ার কুর্দিদের ভাষ্য, দেশটির উত্তরাঞ্চলে তুরস্কের সীমান্তবর্তী কুর্দি-অধ্যুষিত এলাকায় আগ্রাসী তৎপরতা বাড়ানোর মধ্য দিয়ে মার্কিন জোটের হামলার জবাব দিয়েছে আইএস। সম্প্রতি আইএসের জিহাদি যোদ্ধা হিসেবে বিশ্বের প্রায় ৭০টি দেশ থেকে অন্তত ১২ হাজার যোদ্ধা যোগ দিয়েছে। এরা সিরিয়া ও ইরাকের বিশাল এলাকা দখল নেয়া আইএসের হয়ে লড়াই করছে। ইতোমধ্যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে অন্তত ৪০টিরও বেশি  দেশ আইএস দমনে জোটবন্ধ হয়েছে। সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে ইরাক ও সিরিয়ায় আইএসের ঘাঁটিতে বিমান হামলা শুরু করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। 
ওদিকে, আইএসের উত্থান রুখতে সারা বিশ্বকে একজোট হওয়ার ডাক দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। গত বুধবার জাতিসংঘের সাধারণ সভা মঞ্চে দাঁড়িয়ে এই আহ্বান জানান তিনি। ইরাক, সিরিয়ার বুকে জেহাদিদের উত্থান রুখতে সব দেশকে একজোট হয়ে লড়াই করতে হবে বলে জানান মার্কিন প্রেসিডেন্ট। তার মতে, এই জেহাদিরা শুধু বন্দুকের ভাষা বোঝে। সুতরাং তাদের এই ভাষাতেই জবাব দিতে হবে। 
অন্যদিকে, স্থানীয় কিছু অধিবাসীর ভাষ্য, জেহাদি গোষ্ঠীটি সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলের কোবানি শহরে হামলা জোরদার করেছে। মার্কিন জোটের দাবি, হামলায় ইতিমধ্যে আইএসের অনেক যোদ্ধা নিহত ও ঘাঁটি ধ্বংস হয়েছে। কিন্তু স্থানীয় অধিবাসীরা বলছেন ভিন্ন কথা। তাঁদের ভাষ্য, হামলা সত্ত্বেও আইএসের তৎপরতা থামেনি। জেহাদি গোষ্ঠীটি কুর্দিদের শহর কোবানির দিকে এগিয়ে গেছে। সেখানে তারা হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছে। কয়েকটি গ্রাম পুড়িয়ে দিয়েছে। অনেককে জিম্মি করেছে। 
অন্যদিকে, জেহাদি সংগঠনটির একটি সূত্র রয়টার্সের কাছে দাবি করেছে, তারা কোবানির পশ্চিমাঞ্চলের বেশ কয়েকটি গ্রামের নিয়ন্ত্রণ নিজেদের দখলে নিয়েছে। কোবানির কুর্দি বাহিনীর উপনেতা ওসালান ইসো স্বীকার করেছেন, সিরিয়ায় আইএসের ওপর হামলা শুরু হওয়ার পর তাঁদের এলাকায় জেহাদি গোষ্ঠীটির যোদ্ধা ও সামরিক উপস্থিতি আরও বেড়েছে। বিবিসি,রয়টার্স,এএফপি ও আল জাজিরা।