বুধবার, ৫ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২০শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিজয়নগরে অবাধে বিক্রি হচ্ছে ফরমালিন মেশানো মৌসুমী ফল

anarosডেস্ক রির্পোট : বিজয়নগরে বিষাক্ত রাসায়নিক দ্রব্য মেশানো রকমারি মৌসুমী ফল বিক্রি হচ্ছে যত্রতত্র। বিষ মেশানো কাঁঠাল, আম, আনারস সহ নানা ধরনের ফল প্রকাশ্যে স্থানীয় হাট-বাজার ও রাস্তাঘাটে পসরা সাজিয়ে এক শ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ীরা বিক্রি করছে অবাধে।
আর বিষাক্ত রাসায়নিক দ্রব্যে দ্রুত পাকানো এসব ফল খেয়ে প্রতিনিয়ত মানুষ নানা রোগ বালাইয়ে আক্রান্ত হচ্ছে। অথচ মুনাফাখোর এসব ব্যবসায়ীরা নির্বিচারে ফরমালিন সহ বিষাক্ত রাসায়নিক দ্রব্য মিশিয়ে এসব মৌসুমী ফল প্রকাশ্যে বাজারে বিক্রি করলেও এসব প্রতিরোধে কোনো অভিযান নেই।
জানা গেছে, জাতীয় ফল কাঁঠাল পাকাতে এখন আর কেউ প্রকৃতির উপর নির্ভর করছে না। অন্যদিকে মৌসুম শুরু হওয়ার আগেই এক শ্রেণীর অসাধু ফল ব্যবসায়ীরা আনারসে রাসায়নিক দ্রব্য মিশিয়ে দ্রুত পাকিয়ে বাজারে বিক্রি করছে।
বিজয়নগর উপজেলা শহর, স্থানীয় বাসষ্ট্যান্ডে গিয়ে দেখা যায়, এ উপজেলার উৎপাদিত এবং আমদানী করা প্রচুর মৌসুমী ফলের পসরা সাজিয়ে বসেছেন ফল বিক্রেতারা। সেই সঙ্গে বেচা কিনাও চলছে পুরোদমে।
ফল বিক্রেতা কামাল মিয়া ও দীপক সরকার সহ একাধিক ব্যবসায়ীরা দাবি করে বলেন, এসব ফল মূলে স্থানীয়ভাবে কোনো রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহার করা হয় না। আমরা স্থানীয় আড়ৎদার থেকে ফল ক্রয় করে থাকি। তবে যেখান থেকে ফল আনা হয় ওই এলাকার ফল ব্যবসায়ীরা ফলে রাসায়নিক দ্রব্য মিশিয়ে থাকে।
তারা বলেন, এসব ফল বিক্রি করতে প্রায়ই তারা ক্রেতাদের নানা প্রশ্নের সম্মুখিন হতে হয়। তবে সাধারণ ক্রেতারা ফল বিষাক্ত কি না এ ধরনের কোনো প্রশ্ন করেন না। স্থানীয় আড়ৎদাররা বলেন, মৌসুমী ফলগুলো যে এলাকায় বেশি ফলন হয় তারা মূলত সেসব অঞ্চল থেকে পাইকারী হারে ফল ক্রয় করে থাকেন।
মধুপুরও টাঙ্গাইল এলাকার বেপারিদের কাছ থেকে আনারস এবং রাজশাহী ও চাপাইনবাবগঞ্জ সহ আশপাশ এলাকা থেকে আম কিনে থাকেন। এসব আড়ৎদারদের দাবি তারা স্থানীয় আড়তে কোনো ফলে রাসায়নিক দ্রব্য মেশায় না।
অনেক সময় বাগান মালিকও বেপারিরা যাতে ফল পচে না যায় সেজন্য তারাই ফলের মধ্যে বিভিন্ন রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহার করে থাকেন।
বাজারে ফল কিনতে আসা মিশুক মিয়া, রাসেল মিয়া, ও আরমান নামে কয়েকজন ফল ক্রেতা বলেন, সব সময় শুনে আসছি ফলে বিষাক্ত দ্রব্য মিশিয়ে ফল বিক্রি করা হয়। এরপরও অনেকসময় বাধ্য হয়ে কিছু ফল কিনতে হয়। তাই এসব ফল খেলে নানা জটিল রোগ ব্যাধি হতে পারে। এমনকি ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকিও রয়েছে। তাই বিষ মেশানো এসব ফলমূল বাজারজাত এখনই বন্ধ করা উচিত।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বশিরুল হক ভূঁইয়া বলেন, বিষাক্ত ফল বিক্রি একটা জগন্য অপরাধ। আসলে এক্ষেত্রে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তেমন একটা করণীয় নেই। কেননা এসব ফলে যে ধরনের বিষাক্ত রাসায়নিক দ্রব্যাদি ব্যবহার করা হয় তা পরীক্ষা করার করার মতো কোনো প্রযুক্তি আমাদের হাতে নেই। তবে বিষয়টি নিয়ে আমি সংশ্লিষ্ট দফতরের বিভাগীয় কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে যথা সম্ভব দ্রুত ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান।

 


সরেজমিন বার্তা