মঙ্গলবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সরাইলে অবৈধ দখলে বিদ্যালয়ের মাঠ, ফুঁসছে এলাকাবাসী

dewraডেস্ক রিপোর্ট : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলের শাহবাজপুর বহুমূখী উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠ অবৈধভাবে  দখল করে রেখেছে প্রভাবশালীরা।


ওই প্রভাবশালীদের এক সপ্তাহের মধ্যে মাঠ ছেড়ে দিতে নোটিশ দেন ইউএনও। কিন্তু তার আদেশ উপক্ষো করে উল্টো এলাকাবাসীকেই হুমকি দেয়া হচ্ছে।  এতে ফুঁসে উঠেছে এলাকাবাসী। বিষয়টি প্রশাসনকে লিখিত ভাবে জানিয়েছেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও ব্যবস্থাপনা পরিষদ।


বিদ্যালয় ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, সরাইল উপজেলার শাহবাজপুর মৌজার ৫২৫৪ দাগে রয়েছে বিদ্যালয়ের ৩শ ৩৪ শতাংশ একটি খেলার মাঠ। ঐতিহাসিক এ মাঠে বড় বড় ফুটবল লীগ অনুষ্ঠিত হতো। জাতীয় পর্যায়েরও ছাড়া অনেক বিদেশি খেলোয়ার এ মাঠে খেলে গেছেন।


মাঠের দুইদিকে রয়েছে বাড়ি। পাশে দুইদিকে নালা। দীর্ঘদিন ধরে ধান, বন, গরু-ছাগল দিয়ে ট্রাক্টর চালিয়ে মাঠটির ক্ষতি করে চলেছে এলাকার প্রভাবশালীরা।মাঠের উত্তর দিকের ময়দর আলী, শাহ আলম ও কালন মিয়া গংরা অবৈধভাবে দখল করে রেখেছে। কারো বাধা মানছে না তারা।এ বিষয়ে প্রধান শিক্ষক ইউএনওর কাছে লিখিত অভিযোগ করেন। ইউএনও দখলদারদের এক সপ্তাহের মধ্যে দখল ছেড়ে দিতে নোটিশ দেন। ওই নোটিশ পাত্তা দেননি তারা। উল্টো একটি দেওয়ানি মামলা করেন। তিন বছর ধরে চলছে মামলাটি।


সম্প্রতি বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ জেলা জজ বরাবরে তদন্ত কমিশন চেয়ে আবেদন করেন। গত শুক্রবার কমিশনের সামনে উপস্থিত হন গ্রামের ফুঁসে উঠা সহস্রাধিক মানুষ। কিন্তু ওইদিন দখলদারদের কাউকে খুঁজে পাওয়া যায়নি।


সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় মাঠের জায়গায় টিনের ঘর, দেয়াল ও টয়লেটের ট্যাঙ্কি তৈরি করা হয়েছে। রহস্যজনক কারণে সরিয়ে ফেলা হয়েছে গোল পোষ্ট।


ময়দর আলীর প্রতিবেশি মো. সিরাজ মিয়া (৬৫), মজিদ মিয়া (৫২) ও শাহিন আলম বলেন, ‘তারা অসৎ উদ্যেশে রাতের অন্ধকারে গোল পোষ্টটি ১৫ ফুট দক্ষিণ দিকে সরিয়ে নিয়েছেন। বাধা দিয়েছি শোনেননি।’


বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ আলী বলেন, ‘ময়দর কালন গংরা কৌশলে মাঠের ৭/৮ শতাংশ জায়গা দখল করে নিয়েছে। তারা নিয়মিত মাঠের ক্ষতি করে যাচ্ছে।’


ময়দর আলী ও শাহ আলমের চাচাত ভাই মো. নূরুল ইসলাম কালন বলেন, ‘গোল পোষ্ট সরানোর বিষয়টি মিথ্যা। মাঠের ৩শ শতাংশ জায়গার সিএস আমার দাদা জোয়াদ আলীর নামে। ৭৫ শতাংশ জায়গার ওপর ইনজাংশন জারি করা আছে। বিদ্যালয়ের নামে একশ শতাংশ ও বাকি জায়গা ফ্রেন্ডস ক্লাবের নামে কে কিভাবে তৈরি করেছে জানি না। তবে মামলা চলছে।’