শনিবার, ৮ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৩শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

লোডশেডিং ও বিদ্যুৎবিভ্রাট বেড়েছে

ঢাকাসহ সারা দেশে আবার লোডশেডিং ও বিদ্যুৎবিভ্রাট বেড়েছে। লোডশেডিং বাড়ার কারণ আবারও টানা বৃষ্টিহীনতায় গরম বেড়ে বিদ্যুতের চাহিদা বৃদ্ধি। সে তুলনায় উৎপাদন কম। আর বিদ্যুৎবিভ্রাট বাড়ার কারণ, ওই বাড়তি চাহিদা অনুযায়ী বিদ্যুৎ সরবরাহে বিতরণব্যবস্থার অক্ষমতা।

গত কয়েক দিন ধরে দেশের সব এলাকা থেকে লোডশেডিং ও বিদ্যুৎবিভ্রাটের খবর পাওয়া যাচ্ছে। বিতরণ কোম্পানিগুলো এসব খবরের সত্যতা নিশ্চিত করেছে। তবে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি) বিদ্যুতের চাহিদা ও উৎপাদনের যে দৈনিক হিসাব প্রকাশ করে তার সঙ্গে এই খবরের অমিল প্রকট।

আজ মঙ্গলবার পিডিবির তৈরি চাহিদা ও সম্ভাব্য উৎপাদনের হিসাবে বলা হয়, সর্বোচ্চ চাহিদা সাত হাজার মেগাওয়াট। আর সম্ভাব্য সর্বোচ্চ উৎপাদন ছয় হাজার ৬৯৯ মেগাওয়াট। এই হিসাবে চাহিদা ও সরবরাহের মধ্যে ঘাটতি হয় ৩০০ মেগাওয়াটেরও কম।

কিন্তু আজ দুপুরে, দিনের সর্বোচ্চ চাহিদার সময় ঢাকার দুটি বিতরণ কোম্পানি বিদ্যুৎ পেয়েছে চাহিদার তুলনায় প্রায় ৪৫০ মেগাওয়াট কম। এর মধ্যে ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি (ডিপিডিসি) ওই সময় প্রায় এক হাজার ১০০ মেগাওয়াট চাহিদার বিপরীতে কম পেয়েছে ২১০ মেগাওয়াট। আর ঢাকা বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানি (ডেসকো) প্রায় ৭৫০ মেগাওয়াট চাহিদার বিপরীতে কম পেয়েছে ২৩৬ মেগাওয়াট।

এ ছাড়া পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড (আরইবি), পশ্চিমাঞ্চল বিদ্যুৎ বিতরণ সংস্থা (ওজোপাডিকো) ও পিডিবির নিজস্ব বিতরণ অঞ্চলে চাহিদার তুলনায় মোট সরবরাহ ঘাটতি ছিল প্রায় ৭০০ মেগাওয়াট। অর্থাৎ চাহিদার তুলনায় আজ দিনের সর্বোচ্চ চাহিদার সময় বিদ্যুৎ ঘাটতি ছিল প্রায় এক হাজার ১৫০ মেগাওয়াট। ফলে সর্বত্র দফায় দফায় লোডশেডিং হয়েছে।

পিডিবি আজ সর্বোচ্চ চাহিদার যে প্রাক্কলন করেছিল, তা এই সময়ের প্রকৃত চাহিদার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়। বিদ্যুৎ খাতের মহাপরিকল্পনা অনুযায়ী এ বছর এই সময়ে সর্বোচ্চ চাহিদা কোনোভাবেই সাড়ে সাত হাজার মেগাওয়াটের কম নয়।

অপর দিকে পিডিবির হিসাব পর্যালোচনা করে দেখা যায়, বিদ্যুতের উৎপাদন কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। বর্তমানে সাড়ে সাত হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের ক্ষমতা এবং এ জন্য প্রয়োজনীয় জ্বালানির সরবরাহ প্রতিদিনই নিশ্চিত করা সম্ভব। কিন্তু আজ সর্বোচ্চ উৎপাদনের লক্ষ্য ধরা হয় ছয় হাজার ৬৯৯ মেগাওয়াট। এটা এই সময়ের প্রকৃত চাহিদার তুলনায় প্রায় ৮০০ মেগাওয়াট কম।

চাহিদা ও সরবরাহের মধ্যে ঘাটতির কারণে যেমন লোডশেডিং হচ্ছে, তেমনি বিতরণব্যবস্থায় ত্রুটির কারণে হচ্ছে বিদ্যুৎবিভ্রাট। ঢাকায় রামপুরার উলন থেকে ধানমন্ডি পর্যন্ত বিস্তৃত ভূতলের একটি কেবল ফ্লাইওভার নির্মাণকাজের জন্য ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় কারওয়ান বাজার, মগবাজার, পুরানা পল্টন, নয়াপল্টন, মতিঝিল প্রভৃতি এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বিঘ্নিত হচ্ছে।

ডেসকোর মিরপুর এলাকায় মাঝেমাধ্যে কেবল, বিতরণ লাইন ও ট্রান্সফরমারে ত্রুটি দেখা দেওয়ায় বিদ্যুৎ সরবরাহে বিঘ্ন ঘটছে। ঢাকার বাইরে বিশেষ করে আরইবির এলাকায় অনেক বিতরণ লাইন এবং ট্রান্সফরমার ওভারলোডেড হওয়ায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বিঘ্নিত হচ্ছে।

এসব কারণে বিদ্যুৎ ঘাটতি ও বিতরণব্যবস্থায় সমস্যা মিলে লোডশেডিং ও বিদ্যুৎবিভ্রাটের ঘটনা আসলে সর্বত্র একাধিকবারই ঘটছে। গত কয়েক দিনে এসব ঘটনা অনেকটাই বেড়েছে।