শুক্রবার, ৩০শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রাত পোহালেই গণনা, অপেক্ষায় দেশবাসী

India Parlamentনির্বাচন শেষ। এবার অপেক্ষার পালা। কারণ রাত পোহালেই এই ভোটের ফল বের হবে। কোন রাজনৈতিক দল দেশের ক্ষমতা লাভ করবে কিংবা কে হবেন দেশের প্রধানমন্ত্রী। বিজেপি না কংগ্রেস নাকি অন্য কোন জোট দেশের গদিতে বসবে শাসন করতে। এর হাজারো প্রশ্নের উত্তর মিলবে এদিন। তবে উত্তর যা দেওয়ার সাধারণ মানুষই ভোটের মাধ্যমে দিয়ে দিয়েছেন। কেবল ভোটের বাক্স খুললেই তা প্রকাশ্যে আসবে।

সকলকেই বলতে শোনা যাচ্ছে তারা জিতবে। বিজেপি বলছে এবার দিল্লিতে সরকার গড়বে তারাই। কংগ্রেস বলছে, হতেই পারে না, দেশের উন্নয়ন বলতে যা বোঝায় তা কংগ্রেস শাসনেই হয়েছে। তাই সাধারণ মানুষ কংগ্রেসকেই আবার দেশের ক্ষমতা দেবে। তবে এই মুহূর্তে দেশের যা পরিস্থিতি তাতে তারা ১০০ কিংবা তার কিছু বেশি আসন পেতে পারে। অন্তত বিভিন্ন বুথফেরত জরিপ তাই বলছে। সেক্ষেত্রে অন্য কোন রাজনৈতিক দলকে সঙ্গে নিতে হবে যাতে তারা সরকার গড়তে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়। আর এই অঙ্কই তারা কষছেন।

মমতা বন্দোপাধ্যায়, মায়াবতী, মুলায়মের মতো নেতা-নেত্রীদের সঙ্গে যোগাযোগ করছে বলে খবর। যদিও কেউই বিনা শর্তে কংগ্রেসকে সমর্থন করতে চাইবে না। তাছাড়া কংগ্রেসের নীতির সঙ্গে তৃণমূলের নীতির বেশ ফারাক হয়ে গিয়েছে। সেই নীতির পরিবর্তন না হওয়া পর্যন্ত তৃণমূল কখনওই কংগ্রেসকে সমর্থন করবে বলে মনে হয় না। কারণ ইউপিএ ছেড়ে বেরিয়ে আসার পর থেকেই কংগ্রেসের মধ্যে দুরত্ব বেড়েছে তৃণমূলের। তৃণমূলকে বাগে আনতে তাদের ওপর নানা ভাবে চাপ সৃষ্টির চেষ্টা করা হচ্ছে বলেও অভিযোগ উঠেছে। কংগ্রেস মনে করছে এই রাজ্যে তৃণমূল ২২টির বেশি আসন পাবে না অথচ তৃণমূল মনে করছে তারা ৪২টির মধ্যে কম করে ৩৮টি আসন পেয়ে কংগ্রেসকে একটা বেগ দিতে পারবে।

মায়বাতী কিংবা মুলায়ম সিং যাবদও প্রকাশ্যে কংগ্রেসের সঙ্গে জোট বাধার কথা বলেনি। তারাও অপেক্ষা করছেন ফলাফলের জন্য। এরই মাঝে রয়েছে বিজেপি। ভোট মিটতেই বিভিন্ন বুথ ফেরত জরিপে বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোটকেই এগিয়ে রাখা হয়েছে। জরিপ বলছে এনডিএ-এর বর্তমান জোটই সরকার গঠনের প্রয়োজনীয় সংখ্যা পেয়ে যাবে। নতুন করে কারও সমর্থন দরকার পড়বে না। তবু বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্ব নতুন শরিকের খোঁজ চালিয়ে যাচ্ছে। ইতোমধ্যেই কথা হয়েছে নবীন পট্টনায়েকের বিজু জনতা দল, জয়ললিতার এআইএডিএমকে’র সঙ্গে। এই দুই আঞ্চলিক দল এনডিএ জোটে প্রবেশের লক্ষ্যে একপা এগিয়েও আছে। যদিও তারাও বলছে ‘আগে ফল ঘোষণা হোক’।

কিন্তু আশ্চর্যজনকভাবে এই আলোচনার বাইরে রয়ে গেছেন বাম নেতারা। কারণ সাম্প্রদায়িকতার প্রশ্নে বামরা কখনও এনডিকে সমর্থন দেবে না। উল্টোদিকে, কংগ্রেসও সেরকম ভাবে বামেদের গুরুত্ব দিতে চাইছে না। কারণ মনমোহন সিংয়ের প্রধানমন্ত্রীত্বকালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে পরমাণু চুক্তি সম্পাদনে বাধা দেওয়া থেকে শুরু করে যেভাবে কংগ্রেসের ওপর থেকে সমর্থন প্রত্যাহার করেছিলেন তা এখনও ভুলতে পারেনি কংগ্রেস হাইকমান্ড। তাছাড়া একসময়ের বামদের শক্ত ঘাঁটি পশ্চিমবঙ্গ এখন তাদের থেকে মুখ ফিরিয়েছে। জরিপ মতে, সে রাজ্যে ১২-১৫ টির বেশি আসন পাবে না।

তবে এসবই ভাবনা। জরিপ সত্যি নাও হতে পারে। তাই রাজনৈতিক দলগুলি এভাবেই নিজেদের হিসেব নিয়ে আপাতত বসে পড়েছে অঙ্ক মেলাতে। যে অঙ্ক সঠিক কি না তা বুঝতে পারা যাবে আগামীকাল ১৬ মে। সকাল ৮ টা থেকে দেশের ৯৮৯ টি কেন্দ্রে শুরু হবে ভোট গণনা। যদিও প্রস্তুতি শুরু হয়ে যাবে ভোট পাঁচটা থেকে। সকাল এগারোটা নাগাদ ফলাফলের গতি প্রকৃতির আঁচ পাওয়া গেলেও ৫৪৩ লোকসভা আসনের চূড়ান্ত ফল জানতে সন্ধ্যে গড়াবে। প্রথমে পোস্টাল ব্যালট গোনা হবে। তা শেষ হলে খোলা হবে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম)। প্রতিটি ভোট গণনা কেন্দ্রেই থাকবে জোরদার করা হয়েছে নিরাপত্তা।