বুধবার, ৫ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২০শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নতুন উপজেলা বিজয়নগরে প্রথম নির্বাচনের হাল-হকিকত

Upzila-electionআমিরজাদা চৌধুরী : বিএনপি’র জেলা বনাম উপজেলা বিভাজন, প্লাস পয়েন্ট আওয়ামীলীগের লড়াইয়ের নানা হিসেব-নিকেশ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নতুন উপজেলা বিজয়নগরে। কেউ বলছেন উন্নয়ন চিন্তায় ভোট দেবেন আওয়ামীলীগ প্রার্থীকে,কেউ আবার  উপজেলা বাস্তবায়নের  ভূমিকা বিবেচনায় এনে ভোট দেয়ার কথা বলছেন। চেয়ারম্যান পদে মুল প্রতিদ্বন্ধি হিসেবে যারা বিবেচিত হচ্ছেন তারা কেউ এলাকায় অবস্থান করেননা। কেউ ঢাকায়,কেউ জেলা সদরে। সেকারনে কে বেশী এলাকায় আসেন,এলাকার মানুষের খোজখবর রাখেন তাও বিবেচনা করছেন ভোটাররা। এখানে বড় দু-দল আওয়ামীলীগ ও বিএনপি চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী   দিয়েছে। তবে চেয়ারম্যান পদে জেলা বিএনপি’র মনোনীত প্রার্থীকে প্রত্যাখান করে উপজেলা বিএনপি আলাদা প্রার্থী দিয়েছে। উপজেলা বিএনপি মনোনীত প্রার্থীর সঙ্গেই আওয়ামীলীগ প্রার্থীর প্রতিদ্বন্ধিতা হবে এমনটাই আলোচনা আছে ভোটারদের মধ্যে। শুধু তাই নয় ভোটে কারচুপি না হলে বিএনপি’র বিদ্রোহী প্রার্থীর জয় নিশ্চিত বলেও জানিয়েছেন ভোটাররা।ওদিকে বিএনপি’র এই বিভাজনে জয় নিশ্চিত বলে ধরে নিয়েছে আওয়ামীলীগ। আগামী ১৯ শে মে এই উপজেলায় নির্বাচন। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার পূর্বাঞ্চলের ১০ টি ইউনিয়ন নিয়ে নতুন এই উপজেলা হয় ২০১০ সালের ২৩ শে আগষ্ট। এরপর প্রায় ৪ বছর পেড়িয়ে গেলেও অবকাঠামোগত সুযোগ সুবিধের উন্নতি হয়নি বলতে  গেলে কোন কিছুই। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয় এবং থানার কার্যক্রম চলছে ভাড়া বাড়িতে। তবে প্রথম নির্বাচন বলে উৎসাহ-উদ্দীপনার কমতি নেই মানুষের। নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৬ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৮ জন এবং  মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগের প্রার্থী হচ্ছেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট তানভীর ভূইয়া,বিএনপি’র প্রার্থী উপজেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক মোঃ শরীফুল ইসলাম,বিএনপি’র বিদ্রোহী ইঞ্জিনিয়ার কাজী রফিকুল ইসলাম, জাতীয় পার্টির মোঃ ইমদাদুল হক, নির্দলীয় আব্দুল ছাত্তার ও সাহিদ সিরাজী। তাদের মধ্যে আলোচনার কেন্দ্র বিন্দুতে আছেন আওয়ামীলীগের এডভোকেট তানভীর ভূইয়া(দোয়াত-কলম) ,বিএনপি’র বিদ্রোহী ইঞ্জিনিয়ার কাজী রফিকুল ইসলাম(কাপ-পিরিচ) ও জাতীয় পার্টির প্রার্থী মো: ইমদাদুল হক(চিংড়ি)। যদিও আওয়ামীলীগ ও বিএনপি’র বিদ্রোহী প্রার্থীর মধ্যে দ্বিমুখী প্রতিদ্বন্ধিতার কথা জোর দিয়ে বলা হচ্ছে। তানভীর ভূইয়ার বাড়ি চর-ইসলামপুর ইউনিয়নে। এই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবদুল হাফেজ ভূইয়ার আপন ভাগ্নে জাতীয় পার্টির প্রার্থী ইমদাদ। ইমদাদ পত্তন ইউনিয়নের। এই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান তাজুল ইসলাম তার ভাই। এসব কারনে লড়াইয়ে তাকেও শক্ত প্রতিদ্বন্ধি হিসেবে গণ্য করছে কেউ কেউ। আওয়ামীলীগ প্রার্থী তানভীর ভূইয়া এর আগে ২০০৯ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছিলেন। তখন দলের এবং বিদ্রোহী মিলিয়ে ৩ জন ছিলেন আওয়ামীলীগের প্রার্থী। সেকারনে  সুবিধে করতে পারেননি তানভীর ভূইয়া। নতুন উপজেলা হওয়ার পর বিজয়নগরে সরে যান। সেখানে আওয়ামীলীগের নতুন কমিটি গঠিত হলে তিনি সাধারণ সম্পাদকের পদ পান। তবে জেলা সদরের বাসিন্দা তানভীরের ভোটের লড়াইয়ে আসার আগে এলাকার সঙ্গে সম্পৃক্ততা ছিলোনা বলেই জানিয়েছেন অনেক ভোটার। সদর ভেঙ্গে নতুন উপজেলা হোক তা তিনি চাননি বলে সমালোচনা আছে ভোটের মাঠে। তবে এলাকার উন্নয়ন প্রশ্নে তাকে ভোট দেয়ার কথা বলেছেন সিংগারবিল, শ্রীপুর ও ইছাপুরার আড়িয়লের ভোটাররা। আড়িয়ল গ্রামের শরীফা আর মোমরাজ বলেন আওয়ামীলীগ প্রার্থীকে ভোট দিলে এলাকার উন্নয়ন হবে। আমাদের ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সেকথাই বলে দিয়েছেন আমাদেরকে। জোর খাটিয়ে সরকার দলীয় এই প্রার্থীর পক্ষে জয় ছিনিয়ে নেয়া হতে পারে এমন আলোচনাও আছে ভোটারদের মুখে। তবে আওয়ামীলীগ নেতারা জয় নিশ্চিত বলে জানিয়েছেন। তারা বলছেন বিএনপি’র দুই প্রার্থী। এটাই জয়ের বড় প্লাস পয়েন্ট। ওদিকে মাঠে বিএনপি’র দু-প্রার্থী। একজন জেলার আরেকজন উপজেলার। ‘আমার লোক’-বিবেচনায় দলীয় প্রার্থী চূড়ান্ত করে জেলা বিএনপি। জেলার এই প্রার্থী গ্রহন না করে পাল্টা প্রার্থী দিয়েছে উপজেলা বিএনপি। ১ লা মে  উপজেলার চম্পকনগর ইউনিয়নের সাটিরপাড়ায় প্রায় দু-সহস্রাধিক বিএনপি নেতাকর্মী সমর্থক সমাবেশ করে ইঞ্জিনিয়ার কাজী রফিকুল ইসলামকে তাদের প্রার্থী হিসেবে ঘোষনা করে। এর আগে জেলা বিএনপি’র আহবায়ক কমিটি উপজেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম লিটনকে তাদের প্রার্থী হিসেবে মনোনীত করে। লিটন দু-ভাগে বিভক্ত জেলা বিএনপি’র হারুন আল রশিদ গ্র“পের। উপজেলা বিএনপি এবং চেয়ারম্যান মনোনয়ন প্রত্যাশীদের অভিযোগ সে কারনে মাঠের অবস্থা বিবেচনা না করে তাকে প্রার্থী মনোনীত করে জেলা বিএনপি। এলাকায় পরিচিত নন বলে লিটনকে প্রত্যাখান করে উপজেলা ও ইউনিয়ন বিএনপি। তাছাড়া শক্ত প্রতিদ্বন্ধি হিসেবে বিবেচিত তৃনমুলের ত্যাগী নেতাদের বাদ দেয়ার কারন হিসেবে জেলা বিএনপি টাকা পয়সা না থাকাকে অজুহাত হিসেবে দাড় করায়। জেলা বিএনপি’র এই সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ করে মনোনয়ন প্রত্যাশী  অপর ৫ প্রার্থী এবং  উপজেলা ও ইউনিয়ন বিএনপি’র নেতাকর্মীরা  ঐক্যবদ্ধ সমাবেশ করে ইঞ্জিনিয়ার কাজী রফিকুল ইসলামকে উপজেলার ১০ ইউনিয়নের বিএনপি’র প্রার্থী হিসেবে ঘোষনা করে। সরজমিনে খোজ নিয়ে জানা গেছে, লিটনকে নিয়ে জেলা বিএনপি’র নেতারাই মাঠে আছেন শুধু। আর স্থানীয় বিএনপি একাট্টা কাজী রফিকুল ইসলামকে জয়ী করাতে। অবস্থা সুবিধের নয় দেখে দু-দিন আগে রফিকুল ইসলামকে জেলা বিএনপি  বহিস্কার করে। স্থানীয় বিএনপি’র এক নেতা বলেন এটি আগুনে ঘি ঢালার মতো ব্যাপার হয়েছে। পাহাড়পুর ইউনিয়নের খাটিঙ্গায় বিএনপি প্রার্থী লিটনের বাড়ি।এ গ্রামের মলাই মিয়া ও হারুন মিয়া বলেন লিটন অল্প বয়স্ক।রাজনীতিতেও নতুন। এই গ্রামের অনেকে তাকে চেনেনা। কাজী রফিকুল ইসলামই আমাদের পাহাড়পুর ইউনিয়নে পাশ করবে। সাধারণ ভোটারদের অনেকেই  বলেছেন ভোটে কারচুপি না  হলে রফিকুল ইসলামের জয় ঠেকানো সম্ভব হবেনা। মির্জাপুর গ্রামের  মো: মরম আলী,মো: মামুন মিয়া,মো: অহিদ ভূইয়া ও সারোয়ার,পাহাড়পুর ইউনিয়নের গোয়ালনগর গ্রামের বাদল মিয়া,সিংগারবিল নলঘড়িয়ার জাফর আলী,কাশীনগরের নাসির মিয়া,চান্দুরার আলী আজম মোল্লা,জালালপুরের আবু তাহের সর্দার,বুধন্তি ইউনিয়নের আবু সালেক মোল্লা,বিষ্ণুপুর ইউনিয়নের ছতরপুর গ্রামের সাইফুল ইসলাম বলেন ইঞ্জিনিয়ার কাজী রফিকুল ইসলামের অবস্থাই ভালো । তার পরিচিত আছে সবার কাছে। তাছাড়া এলাকার কাজে সবসময় তাকে পাওয়া যায়। উপজেলা বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে তার বড় ভাই প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা কাজী  আমিনুল ইসলামের ভূমিকার বিষয়টি আলোচনা আছে ভোটারদের মধ্যে। 

Brahmanbaria Pic-01Brahmanbaria Pic-03Brahmanbaria Pic-04