রবিবার, ২৭শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১২ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

তিন দিনেও উদ্ধার হয়নি ফরিদপুরের মেধাবী শিক্ষার্থী মিষ্টি

Faridpur_sm_848016937ডেস্ক রির্পোট : ফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলার কাজী সিরাজুল ইসলাম কলেজের এইচএসসি পরীক্ষার্থী সাবিহা রহমান মিষ্টিকে (১৭) অপহরণের তিন দিনেও উদ্ধার করতে পারেনি থানা পুলিশ।
পুলিশ উদ্ধারের আশ্বাস দিলেও অপহরণের তিন দিন পেরিয়ে যাওয়ায় মেয়ে উদ্ধার হবে কি না? আদৌ মিষ্টি বেঁচে আছেন কি না? এমন হাজারো প্রশ্ন মা-বাবার মনে বাসা বেধেঁছে। কোনো আশ্বাসই থামাতে পারছে না মিষ্টির মা শেফালী বেগমের কান্না।
সাবিহা আক্তার মিষ্টি বোয়ালমারী সরকারি কলেজের সামনে পরিবারের সঙ্গে বসবাস করতেন।
মিষ্টির বাবা বাংলানিউজকে জানান, মিষ্টি বরাবরই মেধাবী ছাত্রী ছিল। ৫ম ও ৮ম শ্রেণীতে বৃত্তি পেয়েছে, এসএসসি পরীক্ষায় গোল্ডেন জিপিএ ৫ পেয়েছে এবং এইচএসসির টেস্ট পরীক্ষায়ও জিপিএ ৫ পেয়েছে। এইচএসসি পরীক্ষাতেও জিপিএ ৫ পেতো মিষ্টি। তবে পরীক্ষার যাই হোক, প্রিয় সন্তানকে ফিরে পেতে পাগলপ্রায় মা-বাবার এখন আর কোনো কিছুই ঠিক নেই। ফরিদপুরে তেমন কোনো আত্মীয় স্বজন না থাকায় নিরাপত্তাহীনতায়ও ভুগছেন তারা।
ঘটনার দিন গত রোববার সকালে বোয়ালমারী কলেজে এইচএসসির কম্পিউটার বিষয়ে পরীক্ষা দিতে যাওয়ার পথে কলেজের সামনে থেকে স্থানীয় ছাত্রলীগ নেতা আশরাফুর রহমান লিখন তার ৪/৫ সহযোগীকে নিয়ে মিষ্টির মাকে আটকে রেখে তার সামনে একটি মাইক্রোবাসে মিষ্টিকে তুলে নিয়ে যান।
এ ঘটনায় মিষ্টির মা ৭ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করতে গেলেও পুলিশ প্রশাসন তাদের ইচ্ছামতো ছাত্রলীগ নেতা তমাল ও লিখনের বন্ধু মনিরের নাম বাদ দিয়ে নতুন করে এজাহার নিয়েছেন মিষ্টির পরিবারের কাছ থেকে।
সরেজমিনে লিখনের বিষয়ে বোয়ালমারীর অপহরণস্থল ও আশে-পাশের সাধারন মানুষের কাছে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, অপহরণের বিষয়টি প্রেম বলে ধামাচাপা দিয়ে ছাত্রলীগের নেতা বখাটে লিখনকে বাঁচাতে উঠে-পড়ে লেগেছেন বোয়ালমারী উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক মিলন মৃধাসহ ক্ষমতাসীন দলের কয়েকজন নেতা।
তবে এ অভিযোগ মিলন মৃধা অস্বীকার করে বলেছেন, অপহরণকারী লিখন আমার দলের কর্মী সমর্থক। যদি তারা প্রেম করে ঘটনা ঘটিয়ে থাকেন, তাহলে আদালতে আত্মসমর্পণ করার জন্য মোবাইলে বলেছি। তবে অন্যায়ভাবে তুলে নিয়ে গেলে তার শাস্তি হবে।
স্থানীয় মিনহাজুর রহমান বলেন, লিখন অত্যন্ত বখাটে। তার ভয়ে গ্রামের মেয়েরা সন্ধ্যার পরে ঘর থেকে বের হতে পারতো না। একটি মেধাবী শিক্ষার্থীর জীবন নষ্ট করে দেওয়ার জন্য ওই বখাটে এমন কাণ্ড ঘটিয়েছে। স্থানীয় ক্ষমতাসীন দলের মাতব্বররা বিষয়টিকে অর্থের বিনিময়ে প্রেমঘটিত বিষয় বলে চালিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছেন। পুলিশও ক্ষমতাসীন দলের নেতাদের সঙ্গে তাল দিয়ে বিষয়টিকে ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করছে।
তিনি বলেন, যদি মিষ্টি প্রেম করে লিখনের সঙ্গে যাবেন, তবে তো পালিয়ে যেতেন। জোর করে ধরে নিতে হবে কেন?
মিষ্টির বাবা বোয়ালমারী উপজেলা বিএডিসির প্রকৌশলী মো. হাবিবুর রহমান বলেন, তিনদিন পার হয়ে যায়। পুলিশ প্রশাসন ও স্থানীয় নেতারাতো শুধু আশ্বাসই দিচ্ছেন যে, আমার মেয়ে উদ্ধার হবে। কিন্তু তা তো হচ্ছে না। তবে আমার মেয়ের কি হল? এখনও আমি আমার মেয়ের কোনো খবর পাইনি।  
মিষ্টির মা শেফালী বেগম বলেন, আমরা অন্য জেলার মানুষ। তাই আমাদের পাশে কাউকে পাচ্ছি না। আজ তিন চলে যায়, মিষ্টি বেঁচে আছে না মেরে ফেলেছে তার কোনো খবর নেই- বলেই কাঁদতে শুরু করেন তিনি। কোনোভাবেই মিষ্টির মায়ের এ কান্না থামানো যাচ্ছে না।
তিনি বলেন, অপহরণকারী ছাত্রলীগের নেতা বলেই কি আমার মেয়েকে উদ্ধার করা যাচ্ছে না? লিখন জোর করে আমার হাতের মধ্যে থেকে আমার মেয়েকে তুলে নিয়ে গেছে। আমি আমার মেয়ে ফেরত চাই, লিখনেরও বিচার চাই।
এদিকে ঘটনার দিনই অপহরণের ঘটনায় মিষ্টির মা শেফালী বেগম বাদী হয়ে বোয়ালমারী থানায় লিখন ঠাকুর, বাবা তরুণ ঠাকুর, লিখনের মা, বড় ভাই ও এক বন্ধুর নামে থানায় মামালা করেছেন।
বোয়ালমারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রুহুল আমীন বলেন, কলেজছাত্রী মিষ্টি অপহরণ মামলায় অপহরণকারী বাবা তরুণ ঠাকুর, অপহরণে ব্যবহৃত গাড়ীর চালক আবু বক্কর ও মালিক আশরাফকে আটক করা হয়েছে। এর মধ্যে তরুন ঠাকুরকে সোমবার আদালতে পাঠানো হয়েছে। আশা করছি, দ্রুত মিষ্টিকে উদ্ধার করা সম্ভব হবে।

এ জাতীয় আরও খবর