বুধবার, ৫ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২০শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আমার লেখা অনেক কবিতা আছে: মিথিলা

মিথিলা জনপ্রিয় মডেল ও অভিনেত্রী। ২০০৪ সালে ক্লোজ-আপের বিজ্ঞাপনচিত্রে কাজ করে ব্যাপক পরিচিতি পান তিনি। দুই বছর পর রেদওয়ান রনি পরিচালিত ‘শুনছেন একজন রেডিও জকির গল্প’ নাটকে অভিনয়ের মাধ্যমে অভিনেত্রী হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন মিথিলা। সংগীতশিল্পী হিসেবেও তাঁর পরিচিতি আছে। তিনি অনেক ছড়া-কবিতাও লিখেছেন। ছোটবেলা থেকেই তিনি গান লিখছেন। শৈশবে মঞ্চনাটকেও কাজ করেছেন। বর্তমানে তাঁর ব্যস্ত সময় কাটছে একমাত্র মেয়ে আইরা এবং চাকরি নিয়ে। অনেক ব্যস্ত থাকার কারণে মিডিয়া থেকে অনেক দিন দূরে ছিলেন জনপ্রিয় এ অভিনেত্রী। সম্প্রতি রেদওয়ান রনি পরিচালিত ঈদের নাটক ‘আয়নামহলে আয়না’য় নাম ভূমিকায় অভিনয় করেছেন মিথিলা। নাটকে আবার ফেরা এবং ব্যক্তিগত কিছু বিষয় নিয়ে প্রথম আলোর সঙ্গে কথা বলেছেন তিনি।



আয়নামহলে আয়না…

অনেক দিন পর নাটকে কাজ করলাম। অনেক ভালো লেগেছে কাজটি করে। পার্থ দাদার সঙ্গে এটি আমার দ্বিতীয় কাজ। নাটকটির গল্পও খুব মজার। আয়না নামের একটি মেয়ে মানসিকভাবে অসুস্থ থাকে। মেয়েটি আয়নাতে নিজের দ্বৈত সত্তা দেখতে পায়। ‘আয়না’ চরিত্রটি ভালো লেগেছে বলেই কাজটি করতে আমি আগ্রহী হয়েছি।



অনেক দিন মিডিয়া থেকে দূরে থাকার কারণ…

মেরিল বেবি লোশনের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হিসেবে আমি দুই বছরের জন্য চুক্তিবদ্ধ হয়েছি। আরও এক বছর এই দায়িত্ব পালন করতে হবে। আর এর ফাঁকে আমি আমার চাকরি, পরিবার ও মেয়ে আইরাকে নিয়ে অনেক ব্যস্ত সময় পার করেছি। তাই মিডিয়ায় কাজ করা হয়নি।



কী ধরনের গল্প ও চরিত্রে কাজ করতে আপনি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন?

খুব সাধারণ এবং একটু চ্যালেঞ্জিং চরিত্র আমার ভালো লাগে। যে গল্প খুব সহজেই মানুষের হূদয় ছুঁয়ে যেতে পারে, সে ধরনের কাজ করতেই আমি স্বাচ্ছন্দ্য অনুভব করি। সেটা প্রেমের গল্প হতে পারে। আবার সমাজের শিক্ষণীয় দিকগুলো ফুটে উঠেছে এমন গল্পের নাটকও হতে পারে। আমি খুব ভালো পরিচালক ছাড়া কাজ করতে আগ্রহী নই।



অভিনয় ও গানের বাইরে মিথিলার অন্য কোনো গুণ?

একটা সময়ে আমি অনেক ছড়া-কবিতা লিখেছি। আমার লেখা অনেক কবিতা আছে। এখন ব্যস্ততার কারণে আর লিখতে পারি না। আর আমি অনেক দিন নাচ করেছি। বিয়ের পর নাচ ছেড়ে দিয়েছি। আরেকটা কথা, আমি কিন্তু অভিনয়ের সঙ্গে যুক্ত ছিলাম ছোটবেলা থেকেই। শৈশবে অনেক দিন মঞ্চনাটকে কাজ করেছি।



প্রিয় সহ-অভিনেতা…

আবুল হায়াত ও মোশাররফ করিম।



মিথিলার প্রথম প্রেম…

সুকুমার রায়। সুকুমার রায়ের ছড়া আর টোনাটুনির গান আমি খুব শুনেছি। এখন তা আমার মেয়েও শোনে। আর সব ধরনের বই পড়তে আমার ভালো লাগে। উপন্যাস পড়তে অনেক পছন্দ করি। বিখ্যাত অনেক ঔপন্যাসিকের লেখার প্রেমে আমি পড়েছি।



ছোটবেলায় মিথিলা…

আমি অনেক শান্ত স্বভাবের ছিলাম। ছোটবেলায় সাইকেল চালানোর অনেক ঝোঁক ছিল আমার।

আমার নিজের সাইকেল ছিল না। আমার কাজিনের পুরোনো একটি সাইকেল আমি ঠিক করে চালিয়েছি।

আমাদের পাড়ায় বিকেল হলেই আমি সাইকেল নিয়ে বের হয়ে পড়তাম। সাইকেল নিয়ে অনেক জায়গায় ঘুরতাম।



ভবিষ্যতে মিথিলা…

এখন কিছুই ভাবছি না। আমি এখন আমার মেয়েকে পুরো সময় দিতে চাই। আইরা তার নিজের দায়িত্ব নিতে শিখলে আমার একটু স্বস্তি হবে। মাঝেমধ্যে বেছে বেছে ভালো কিছু কাজ করতে চাই।