সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দুই যুবক হত্যার বিচার দাবিতে নবীনগরে মানবন্ধন-সামাবেশ

nobinagor manobbandanপ্রতিনিধি: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে র‌্যাবের হাতে গ্রেপ্তার হওয়া শাহীনুর আলম-(৪৩) পুলিশী হেফাজতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যাওয়ার প্রতিবাদ ও সন্ত্রাসীদের গুলিতে সুমন মিয়া নামক এক যুবক নিহত হওয়ার প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে বিক্ষুব্ধ নাগরিক সমাজ।  বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার লঞ্চঘাটে এই মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। বিক্ষুব্দ নাগরিক সমাজের উদ্যোগে অনুষ্ঠিত ওই মানববন্ধনে বিভিন্ন পেশার শত শত লোক ফেস্টুন, ব্যানার নিয়ে অংশ নেন।
মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে উপজেলার পূর্ব ইউপি চেয়ারম্যান এম.এ. খায়ের বারীর সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন সরকার, জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সদস্য শুক্কুর খান, উপজেলা বিএনপির প্রচার সম্পাদক আবদুস সাত্তার, উপজেলা যুবদলের আহবায়ক মফিজুর রহমান, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আবদুল্লাহ আল রোমান প্রমুখ।
এলাকাবাসী জানান, নবীনগর উপজেলা সদরে চিরকুট পাঠিয়ে একাধিক বাড়িতে চাঁদা দাবি ও বিভিন্ন বাড়িতে আগুন দেওয়ার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে গত ২৯ মে র‌্যাব-১৪-এর ভৈরব ক্যাম্পের সদস্যদের হাতে  গ্রেপ্তার হন উপজেলার বগডহর গ্রামের শাহীনূর আলম (৪৩) এবং মহিউদ্দিন (৪১) ওরফে মদন। গত মঙ্গলবার রাতে পুলিশী হেফাজতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে  মারা যান শাহীনুর আলম। র‌্যাবের হাতে  গ্রেপ্তার হওয়ার পর র‌্যাবের নির্মম অত্যাচার ও নির্যাতনে শাহীনূরের মৃত্যু হয়েছে বলে দাবি করেছেন মৃতের পরিবারের লোকেরা। তবে র‌্যাব-১৪ এর অধিনায়ক মেজর সাকিব সিদ্দিক এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।
এ দিকে গত ৩ মে উপজেলার সদরের পশ্চিমপাড়ার জাকির হোসেন ও সুমন মিয়া নামে দুই যুবককে গুলি করে ও কুপিয়ে আহত করে সন্ত্রাসীরা। গুরুতর আহত অবস্থায় তাদেরকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। গত বুধবার চিকিৎসাধীন অবস্থায় সুমন মিয়া মরা যায়।
উল্লেখ্য নবীনগর উপজেলা সদরে চিরকুট পাঠিয়ে একাধিক বাড়িতে চাঁদা দাবি ও বিভিন্ন বাড়িতে আগুন দেওয়ার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে র‌্যাব-১৪-এর ভৈরব ক্যাম্পের একটি দল গত ২৯ এপ্রিল রাতে অভিযান চালিয়ে উপজেলার বগডহর গ্রামের মহিউদ্দিন ওরফে মদন (৪১) কে গ্রেপ্তার করে। পরে মদনের স্বীকারোক্তি অনুযায়ি এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে বগডহর গ্রামের রহিছ মেম্বারের ছেলে শাহীনুর আলম-(৪৩) কে গ্রেপ্তার করে। পরদিন বুধবার দুপুরে তাদেরকে নবীনগর থানায় হস্তান্তর করা হয়। বৃহস্পতিবার নবীনগর থানার পুলিশ গ্রেপ্তারকৃতদেরকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠায়।
জেল হাজতে শাহীনূর আলম অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে গত ৪ এপ্রিল ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে, ওইদিনই তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শাহীনূর মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে মারা যান।
এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা কারাগারের সুপার মোঃ গিয়াস উদ্দিন বলেন, শাহীনূরকে জেল হাজতে গ্রহন করার সময় তার শরীরে বেশ ‘আউট ইনজুরি’ ছিল। এক পর্যায়ে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে, তাকে ৪ এপ্রিল ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে পাঠাই। পরে সেখানে তার অবস্থার আরও খারাপ হলে, ওইদিনই কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তাকে  প্রেরণ করা হয়। সেখানেই মঙ্গলবার রাতে তিনি মারা যান।
এ ব্যাপারে র‌্যাব-১৪- এর ভৈরব ক্যাম্পের অধিনায়ক মেজর সাকিব সিদ্দিক বলেন, আটকের ৭দিন পর এ ধরণের অভিযোগ সম্পূর্ণ কাল্পনিক ও অসত্য। কারণ, আমরা দু’জনকে ওইরাতে ধরে কেবল জিজ্ঞাসাবাদ শেষে পরদিনই নবীনগর থানায় হস্তান্তর করি। এছাড়া মারধরই যদি করতাম, তাহলেতো দু’জনেই অসুস্থ  হয়ে পড়তেন। শুধু একজন কেন অসুস্থ হয়ে মারা যাবেন। আসলে র‌্যাবের ‘ভাবমূর্তি’ ক্ষুন্ন করতেই আমাদের বিরুদ্ধে এই অসত্য অভিযোগ তোলা হয়েছে।
এ ব্যাপারে নবীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রূপক কুমার সাহার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, শাহীনূরের লাশের ‘পোস্ট মর্টেম’ রিপোর্ট পাওয়ার পরই সব পরিষ্কার হয়ে যাবে।