বুধবার, ৫ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২০শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া ডিবি’র ওসি-এসআই’র আবদারে প্রাইভেট কার আর ফ্রিজ

B.Baria Gari Picআমিরজাদা চৌধুরী :ওসি’র নজর প্রাইভেট কারের  দিকে। আর দারোগা চান ফ্রিজ। তাদের আবদার অপূর্ণ রাখাতেই বিপদ পিছু ছাড়ছেনা ইকবালের।  এক গাড়ি আর ফ্রিজের জন্যে তার সব ব্যবসা-বানিজ্য এখন লাটে । বার বার মোটা অংকের টাকা দিয়েও নিস্কৃতি মিলেনি। চেষ্টা চলছে একটির বদলে আরো ৪ গাড়ি কেড়ে নেয়ার। মামলা-মোকদ্দমায় জড়িয়ে চরম সর্বনাশ করার হুমকীতো আছেই। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপজেলার সিংগারবিল বাজারের প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী মো: ইকবাল হোসেন।৯ বছর সৌদি প্রবাসে কাটিয়ে দেশে ফিরে শুরু করেন বিভিন্ন ব্যবসা বানিজ্য।   সেখানকার ইভা রেন্টে কার, ইভা ইলেকট্রনিক্স,ইভা ফ্যাশন গ্যালারীর মালিক তিনি। এসব ব্যবসা বানিজ্যই এখন কাল হয়েছে তার। সন্দেহ আড়ালে মাদক পরিবহনে জড়িত তিনি। প্রাইভেট কার, নোহা ও হায়াস মডেলের মাইক্রো মিলিয়ে ৫ টি গাড়ি নিয়ে তার রেন্টে কারের ব্যবসা। এসব গাড়ি সীমান্ত এলাকা থেকে মাদক পরিবহনের কাজে ব্যবহার হয় এই অভিযোগে তার পিছে পড়ে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ। ইকবাল হোসেন জানান, সুমন নামে তার একজন ড্রাইভার ছিলো। সে চোরাচালানী পন্য পরিবহন করতো। এটি জানার পরই তিনি তাকে বের করে দেন। কিন্তু এরপরও তার রক্ষে নেই। ইকবাল বলেন, আমি মাদক ব্যবসা করি, আমাকে মামলা দিয়ে জেলে পাঠানো হবে বলে ১০ লাখ টাকা দাবী করে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ। এরপর আমি ৫০ হাজার টাকা দিয়ে নিস্কৃতি পাই। গত ২০ শে জানুয়ারী ডিবি অফিসে গিয়ে ওসি’র হাতেই এই টাকা দেই। এর কিছুদিন পর জেলা গোয়েন্দা পুলিশের এস আই নূরুল আমিন আমার ওয়ালটনের শো রুমে এসে একটি ফ্রিজ দাবী করে।আমি তখন তাকে বলি এখন দোকানে মাল নেই, মাল এলে নিয়েন। মাল আসার পর নূরুল আমিন আরেকদিন দোকানে এসে ১৩ সিএফটি’র একটি  ফ্রিজ পছন্দ করেন। যার দাম ৩৫ হাজার টাকা। তখন আমি তাকে বলি আমি ৮ শতাংশ কমিশন পাই। সেটি বাদ দিয়ে যা মুল্য হয় আপনি তা দিয়ে দেবেন। নূরুল আমিন তখন আমাকে বলে পুরোটাই আমাকে গিফট করতে হবে। পরে আমি আর তাকে ফ্রিজটি দেইনি। এরপর গত ১ লা মে এসআই নূরুল আমিন আমাকে ফোন করে জানায়, আমার একটি গাড়ি এক্সিডেন্ট করেছে। আমি যেন ৫ হাজার টাকা নিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের পৈরতলা যাই। এর কয়েক মিনিট পরই ফোন করে আমার কাছে ১০ লাখ টাকা দাবী করে। তখন আমাকে বলা হয়  আমার গাড়িতে গাজা পাওয়া গেছে। টাকা না দিলে আমার বিরুদ্ধে মামলা হবে। তখন আমি বিষয়টি আমার এলাকার বাসিন্দা যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী আওয়ামীলীগের সভাপতি জসিম উদ্দিন ভাইকে জানাই। তিনি তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে ১ লাখ টাকায় রফাদফা করেন। এই টাকা জসিম ভাইয়ের ভাগিনা আল আমিনের মাধ্যমে পাঠানো হয়। আল আমিন টাকা নিয়ে ডিবি’র বলে দেয়া স্থানে শহরের দাতিয়ারায় টিভি রিলে কেন্দ্রের কাছে যাওয়ার পর এসআই নূরুল আমিন ওসিকে সঙ্গে নিয়ে এসে টাকা নিয়ে যান । আর আল আমিনকে আধঘন্টার মধ্যে গাড়ি খালি করে দিয়ে দেবেন বলে সেখানে অপেক্ষা করতে বলেন। কিন্তু এরমধ্যে এক ঘন্টা পেড়িয়ে যাওয়ার পর আল আমিন তার মামাকে ফোনে আবার বিষয়টি জানান। জসিম খোজ নেয়ার জন্যে ফোন করলে জানতে পারেন ডিবি’র ওসি আকুল চন্দ্র বিশ্বাস এসআই নূরুল আমিন ইকবালের বাড়িতে অবস্থান করছেন। ইকবাল জানান,ওসি আকুল চন্দ্র বিশ্বাস তার বাড়ির ভেতর গ্যারেজে ডুকেই টয়েটা প্রিমিও নতুন প্রাইভেট কারটি’র দিকে চোখ ফেলেন।গাড়িটিতে উঠে বসেন। বলেন এই প্রাইভেটকারটিই আমার চাই। তখন আমি তাকে বলি কি কারনে আপনি গাড়ি নিয়ে যাবেন। নিয়ে যাবো,কারো শক্তি থাকলে যেন আটকায়। এরপর সে সবগুলো গাড়ির চাবি আমার কাছে চায়। বলে গাড়িগুলো তল্লাশী করতে হবে। এরপর আমি ইউপি চেয়ারম্যানকে ফোন করে সেখানে আনাই এবং তার সামনে গাড়ির চাবি ওসি’র কাছে দেই। চাবি দিয়ে গাড়ি গুলো খুলে তল্লাশী করে কোন কিছুই পাননি। এরপর গাড়িগুলো তালা দিয়ে চাবি চেয়ারম্যানের জিম্মায় রাখেন। এ বিষয়ে সিংগারবিল ইউপি চেয়ারম্যান মনিরুল ইসলাম ভূইয়া বলেন, আমার সামনে সবকয়টি গাড়ি তল্লাশী করা হয়। কোন গাড়িতে কোন কিছু পাওয়া যায়নি। এরপর ওসি আমাকে বলেন তিনি সবগুলো গাড়ি নিয়ে যাবেন। তখন আমি তাকে প্রোটেষ্ট করি। বলি আপনি এসব গাড়ি কোন কারনে নেবেন। তখন তিনি আমাকে বলেন এসপি’র নির্দেশ আছে। এখন আমি বিপদে পড়েছি। আমাকে ওসি-দারোগা ফোন করে বলে গাড়িগুলো পৌছে দিতে। আবার বলে তারা এসে নিয়ে যাবে। তিনি বলেন সবগুলি গাড়ি নিতে আপত্তি করার পর ওসি প্রাইভেটকারটি নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা চালায়। এরদিকেই তার নজর ছিলো বেশী। ইকবালের মালিকানাধীন ঢাকামেট্রো গ-২৩-৯২১৯ নম্বর প্রোভক্স প্রাইভেটকারটি ১ লা মে বিশ্বরোডে আটক করে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ। তাদের দাবী এতে ২০ কেজি গাজা পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় গাড়ির চালক জাকির হোসেনকে আটক করা হয়। পরে ১ লাখ টাকায় আটক গাড়ি ও চালককে ছেড়ে দেয়ার রফাদফা হয়। এই টাকা হাতে নিয়ে মাদক সহ ড্রাইভারকে চালান দেয়া হয়। গাড়িটি আটক করা হয়। এরপর ইকবালের বাড়িতে গিয়ে অন্যান্য গাড়িতে তল্লাশী এবং এগুলো ডিবি অফিসে নিয়ে আসার চেষ্টা নিয়ে কথা উঠেছে। ইকবাল জানিয়েছেন তাকে হুমকী দেয়া হচ্ছে প্রাইভেট কার না দিলে অন্যান্য গাড়ি চলতে দেয়া হবেনা । তার বিরুদ্ধে মামলা মোকদ্দমা দেয়া হবে। ইকবাল জানান, ঘটনার পর থেকেই আতঙ্কে রয়েছেন তিনি ও তার পরিবার। তার ব্যবসা বানিজ্য বন্ধ। ৭ টি গাড়ির চাবি নিয়ে যাওয়ায় এসব গাড়ি চলতে পারছেনা। বিয়ে অনুষ্ঠানের জন্যে গাড়ি আগাম ভাড়া দেয়া ছিলো। সেখানেও যেতে পারেনি। চালক-হেলপারসহ গাড়ির ১৫/২০ জন ষ্টাফ বেকার। তাছাড়া সবকয়টি গাড়ি কেনা হয়েছে ব্যাংক ঋনে। গাড়ি না চলায় তার আমদানী বন্ধ। ইকবাল বলেন গাড়ির আমদানীর টাকায় আমি ব্যাংকের কিস্তিÍ দেই। এখন তাও দিতে পারছিনা। আমার ওয়ালটন ফ্রিজের  শোরুমেও মাল উঠায়না ভয়ে। যদি আবার ফ্রিজগুলো নিয়ে যায়। ইকবালের মোট ১৮ টি সিএনজি ছিল। এগুলোর মধ্যে ৩ টি রেখে ১৫ টি বিক্রি করে দেই। সিএনজি  বিক্রির টাকা এবং ব্যাংক ঋনে ৫ টি প্রাইভেটকার-মাইক্রো,একটি ট্রাক ও ট্রাকটর কেনেন। এসব গাড়ির মধ্যে হায়াস মাইক্রো চট্টমেট্রো-চ-১১-৪৯৯১ ও  ঢাকামেট্রো-চ-১৩-৫৯০৪, নোয়া মাইক্রো ঢাকামেট্রো-চ-৫৪-১১৯৫,অনটেষ্টে থাকা প্রিমিও প্রাইভেট কার,৩ টি সিএনজি’র চাবি চেয়ারম্যানের হাতে রাখা আছে ডিবি’র। ইকবালের পিতার নাম  কাহহার মিয়া। সিংগারবিল মধ্যপাড়ায় তার বাড়ি। ১৯৯৮ সাল থেকে ২০০৭ সাল পর্যন্ত সৌদি প্রবাসে ছিলেন ইকবাল। এবিষয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা গোয়েন্দা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ(ওসি)আকুল চন্দ্র বিশ্বাস বলেন ক্রাইমে জড়িয়ে পড়লে বাচার জন্যে কতো কথাই বলে। এসব ঠিকনা। আমরা অভিযান চালিয়ে গাড়ির সিলিন্ডারে গাজা ফিটিং অবস্থায় পাই। এসময় ১ জনকে আটক করি। আরেকজন পালিয়ে যায়। আটককৃত ব্যাক্তি আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়ে এর মালিক ইকবাল বলে জানিয়েছে। আমরা তার বাড়িতে অভিযান চালিয়েছিলাম বাড়িতে আর কোন মাল রিজার্ভ আছে কিনা দেখার জন্যে। কিন্তু কোন কিছু পাইনি।