রবিবার, ২৬শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১২ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আবারও বিশাল বাজেট আসছে

আবারও বিশাল আয়তনের বাজেট তৈরির পরিকল্পনা করছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন সরকারের দ্বিতীয় মেয়াদের প্রথম বাজেট উপস্থাপিত হবে আগামী ৫ জুন বৃহস্পতিবার।

অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, আগামী ২০১৪-১৫ অর্থবছরের জন্য প্রায় আড়াই লাখ কোটি টাকার বাজেট হতে পারে। রাজনৈতিক সহিংসতায় চলতি অর্থবছরে রাজস্ব আদায়ে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। এর রেশ থাকবে আগামী অর্থবছরেও। আবার আগামী ডিসেম্বরে ঘোষণা করা হবে চাকরি ও বেতন কমিশনের সুপারিশ। এমন বাস্তবতায় আগামী বাজেট সরকারের জন্য একটি বড় চ্যালেঞ্জ বলে মনে করছেন অর্থনীতিবিদেরা।

অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, চলতি ২০১৩-১৪ অর্থবছরের মূল বাজেট দুই লাখ ২২ হাজার ৪৯১ কোটি টাকা থেকে নতুনটির আকার ২৬ হাজার ৫২৯ কোটি টাকা বৃদ্ধি পেয়ে হতে পারে দুই লাখ ৪৯ হাজার ২০ কোটি টাকা। বৃদ্ধির হার ১১ দশমিক ৯২ শতাংশ। আর সংশোধিত বাজেটকে ভিত্তি ধরলে বাজেট বাড়বে ১৭ থেকে ১৮ শতাংশ পর্যন্ত।

নতুন বাজেটের মোট আকারের মধ্যে উন্নয়ন বাজেট বা বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) থাকছে ৭৯ হাজার ৩০ কোটি টাকা। চলতি অর্থবছরে তা ছিল ৬৫ হাজার ৮৭০ কোটি টাকা। সংশোধন করে অবশ্য এডিপি ৬০ হাজার কোটি টাকায় নামিয়ে আনা হয়েছে।

আবার চলতি অর্থবছরে ব্যাংকব্যবস্থা থেকে ২৫ হাজার ৯৯৩ কোটি টাকা ঋণ নেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা ছিল সরকারের। আগামীবার ব্যাংকব্যবস্থা থেকে ঋণ নেওয়ার চিন্তা আরও প্রায় পাঁচ হাজার কোটি টাকা বেশি, ৩০ হাজার ৫৫০ কোটি টাকা।

মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমাদের অর্থনীতি বেসরকারি খাতকেন্দ্রিক। অথচ বেসরকারি খাতে বিনিয়োগ নেই। বিনিয়োগ না থাকলে প্রবৃদ্ধি কোত্থেকে আসবে?’ তিনি বলেন, এই মুহূর্তে দেশে রাজনৈতিক অস্থিরতা নেই, তবে রাজনৈতিক অনিশ্চয়তা আছে। আগামী বাজেট প্রণয়নে জনপ্রশাসন ও প্রতিরক্ষার চেয়ে শিক্ষা খাতে বরাদ্দ বেশি রাখার পরামর্শ দেন মির্জ্জা আজিজ।

শিক্ষা খাতে সর্বোচ্চ বরাদ্দের পরামর্শ থাকলেও অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, আগামী বাজেটে সর্বোচ্চ বরাদ্দ থাকছে মানবসম্পদ খাতে। এমনকি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের এমপিওর জন্যও বাড়তি কোনো বরাদ্দ থাকছে না। তবে আগামী বাজেটে করমুক্ত আয়ের সীমা ৩০ হাজার টাকা বাড়িয়ে বর্তমানের দুই লাখ ২০ হাজার থেকে দুই লাখ ৫০ হাজার টাকা করার আলোচনা রয়েছে।

একই অগ্রাধিকার খাত: ২০০৯-১০ অর্থবছরে সরকার ৩০টি অগ্রাধিকার খাত চিহ্নিত করেছিল। পাঁচ বছর শেষ হওয়ার পরও বাস্তবায়িত না হওয়ায় সেগুলোকে আগামী অর্থবছরের জন্যও অগ্রাধিকার খাত হিসেবে রাখা হচ্ছে। এগুলো হচ্ছে: পদ্মা সেতু নির্মাণ, মেট্রোরেল প্রকল্প, কয়লানীতি ও জ্বালানিনীতি চূড়ান্ত, সরকারি-বেসরকারি অংশীদারি (পিপিপি) কাঠামো শক্তিশালী করা, বুড়িগঙ্গা নদী দূষণমুক্ত করা, গড়াই নদী পুনঃখনন, ভূমি জরিপ ও ব্যবস্থাপনাকে ডিজিটাল ব্যবস্থায় আনা, দেশের বিভিন্ন জায়গায় অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলা, মংলা বন্দরের উন্নয়ন, ভিক্ষাবৃত্তির অবসান, রেলপথের সংস্কার, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ককে চার লেনে উন্নীত করা ইত্যাদি।

প্রবৃদ্ধি ৭.৩ শতাংশ: নতুন অর্থবছরের জন্য মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধির হার ৭ দশমিক ৩ শতাংশ ও মূল্যস্ফীতির লক্ষ্যমাত্রা ৭ শতাংশ রাখার কথা জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী।

তবে এ বিষয়ে মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম বলেন, বাস্তবতা-বিবর্জিত জিডিপির প্রবৃদ্ধির উচ্চাকাঙ্ক্ষী লক্ষ্যমাত্রায় সরকারের প্রতি আস্থা নষ্ট হয়। অহেতুক আশা সঞ্চারের কোনো মানে নেই বলেও তিনি মনে করেন।

চলতি অর্থবছরের প্রবৃদ্ধির হারের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৭ দশমিক ২ শতাংশ। এ থেকে কমিয়ে ৬ দশমিক ৫ শতাংশ করা হয়েছে বলে এরই মধ্যে জানিয়ে দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী। যদিও এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি) বলেছে, এই হার হবে ৫ দশমিক ৬ শতাংশ। বিশ্বব্যাংকের প্রাক্কলন আরও কম অর্থাৎ ৫ দশমিক ৪ শতাংশ।

করের আওতা বাড়ছে না: অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, আগামী অর্থবছরে এক লাখ ৮২ হাজার ৫৩০ কোটি টাকা রাজস্ব সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা সরকারের।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান গোলাম হোসেন সম্প্রতি সংবাদ সম্মেলন করে জানান, আগামীবার এনবিআর নিয়ন্ত্রিত করের লক্ষ্যমাত্রা থাকবে এক লাখ ৪৯ হাজার কোটি টাকা। করের আওতা না বাড়ানোর ইঙ্গিতও দেন তিনি। চলতি অর্থবছরে এ খাতে লক্ষ্যমাত্রা ছিল এক লাখ ৩৬ হাজার ৯০ কোটি টাকা, যা পুরো আদায় করতে পারেনি এনবিআর।

করের হার না বাড়িয়েও আওতা বাড়ানো যায় বলে মনে করেন মির্জ্জা আজিজ। তিনি বলেন, কর শনাক্তকরণ নম্বরধারীদের (টিআইএন) বেশির ভাগই এখনো করের আওতার বাইরে। তাৎক্ষণিক ভিত্তিতে (অ্যাডহক বেসিস) কর আদায়ের পদ্ধতি বাতিলের পরামর্শ দেন তিনি।

ভর্তুকি কমছে: আগামী বাজেটে ভর্তুকি ২০ শতাংশ কমানো হতে পারে বলে অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে। চলতি অর্থবছরের ভর্তুকি ছিল ৩২ হাজার ৩৫৪ কোটি টাকা। এ থেকে কমানো হবে প্রায় সাত হাজার কোটি টাকা।

আইএমএফ থেকে সম্প্রসারিত ঋণ সহায়তা (ইসিএফ) বাবদ সাত কিস্তিতে ১০০ কোটি ডলার পাচ্ছে বাংলাদেশ। এই ঋণের অন্যতম শর্তই হলো ভর্তুকি কমানো। বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন (বিপিসি) ও বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডকে (পিডিবি) দেওয়া ভর্তুকি কমানো হবে। নতুন বাজেটে ভর্তুকি বাবদ বরাদ্দ রাখা হতে পারে ২৬ হাজার কোটি টাকার কাছাকাছি।

বৈদেশিক ঋণ বাড়ছে: আগামী ২০১৪-১৫ অর্থবছরের জন্য বৈদেশিক ঋণের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হচ্ছে ৩৬৬ কোটি ডলার (২৭ হাজার ৭০০ কোটি টাকা)। চলতি অর্থবছরের বাজেটে বৈদেশিক ঋণের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৩৩৭ কোটি ডলার। যদিও সংশোধিত বাজেটে তা ২৯৫ কোটি ডলার নির্ধারণ করা হয়। সূত্র জানায়, আগামী অর্থবছরের বৈদেশিক ঋণের লক্ষ্যমাত্রার মধ্যে ২৮৮ কোটি ডলারই থাকবে ঋণ। বাকি ৭৮ কোটি ডলার অনুদান হিসেবে পাওয়া যাবে বলে আশা করা হচ্ছে।

জেলা বাজেট সাতটি: চলতি অর্থবছরে পরীক্ষামূলক হিসেবে টাঙ্গাইলে জেলা বাজেট করা হলেও আগামী অর্থবছরে জেলা বাজেট করা হচ্ছে দেশের সাত বিভাগে সাতটি। এবারেরগুলোও পরীক্ষামূলকই হবে। কারণ, তবে সরকারের শীর্ষ পর্যায়ে জেলা বাজেটের ব্যাপারে দ্বিমত রয়েছে। তবে অর্থমন্ত্রী যদি আগামী অর্থবছরে জেলা বাজেটের সামান্যতম সাফল্যও দেখাতে পারেন, তাহলে তার পরের অর্থাৎ ২০১৫-১৬ অর্থবছর থেকে গুরুত্ব সহকারে জেলা বাজেটের সম্প্রসারণ হবে বলে অর্থ বিভাগের শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তারা মনে করছেন।