সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দেশজুড়ে খুন-গুম-অপহরণের ঘটনায় বিব্রত সরকার।

disappearance_2759-300x198ডেস্ক রিপোর্ট : সাম্প্রতিক সময়ে অপহরণ ও গুমের ঘটনা অত্যধিক বেড়ে যাওয়ায় জনমনে সীমাহীন উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা ছড়িয়ে পড়েছে। মাত্র দুই দিন আগে বিএনপির পক্ষ থেকে গত এক বছরে ৩১০ জন নেতা-কর্মী গুম-খুনের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ করা হয়েছে। কিন্তু রাজনৈতিক নেতা-কর্মী ছাড়াও সাধারণ পেশাজীবী, শিক্ষার্থী এমনকি খেটেখাওয়া শ্রমজীবী মানুষজন অপহরণ ও গুমেরও এন্তার নজির রয়েছে। গত রবিবার মাত্র দুই দিনের ব্যবধানে দেশে আরও ১২ জন অপহরণ ও গুমের শিকার হয়েছেন।

নারায়ণগঞ্জের জনাকীর্ণ এলাকা থেকে বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতির প্রধান নির্বাহী সৈয়দা রিজওয়ানা হাসানের স্বামী এ বি সিদ্দিকের নাটকীয় অপহরণ ও ৩৫ ঘণ্টা নিরুদ্দেশ থাকা নিয়ে দেশজুড়ে চরম উৎকণ্ঠা ছড়িয়ে পড়ে। এর রেশ কাটতে না কাটতে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ থেকেই সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়রসহ পাঁচজনকে প্রকাশ্য রাস্তা থেকে অপহরণ করে নেওয়ার ঘটনা ঘটেছে। একই সময় নারায়ণগঞ্জ থেকে অপহৃত হয়েছেন অ্যাডভোকেট চন্দন এবং তার ড্রাইভার। তাদের কোনো হদিস গতকাল এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত পাওয়া যায়নি। রবিবার গভীর রাতে ময়মনসিংহ থেকে এবং সোমবার গাজীপুরের কালিয়াকৈর থেকে ৫ জন অপহরণের শিকার হন। তাদের মধ্যে কালিয়াকৈর থেকে অপহৃত স্বর্ণ ব্যবসায়ী দীন মোহন মণ্ডল (৫০) ও তার ভাই কেদানী মোহন মণ্ডল (৪৫) জীবিত ফিরে এলেও বাকি কারও কোনো খোঁজ পাচ্ছেন না স্বজনরা। ভালুকায় ঘরের দরজা ভেঙে অস্ত্রের মুখে অপহরণ করা হয়েছে কামাল হোসেন সবুজ (৩৫) ও আবু বকর সিদ্দিক স্বপন (২৮) নামে দুই শিক্ষককে। অস্ত্রধারীরা নিজেদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য বলে পরিচয় দেয়। তারা সবুজ ও স্বপনের হাতে হাতকড়া পরিয়ে নিয়ে যায়।

অপহরণের প্রতিটি ক্ষেত্রেই অপহরণকারীরা নিজেদের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য পরিচয় দিয়ে তাদের টার্গেটকৃত ব্যক্তিদের তুলে নিয়ে যাচ্ছে। তাদের সঙ্গে থাকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর মতো যানবাহন, অস্ত্র, হ্যান্ডকাফ এবং পোশাক। এক্ষেত্রে সরকারের নীতিনির্ধারক মহল মনে করে, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বাইরে পেশাদার অপরাধী ও প্রতারক চক্র গজিয়ে উঠেছে। এদেরই একটি চক্র বেপরোয়া খুন, গুম, অপহরণ ঘটিয়ে সরকারকে বেকায়দায় ফেলার ষড়যন্ত্র চালিয়ে থাকতে পারে। সরকারের দায়িত্বশীলরা গত মার্চের শেষ দিক থেকে চলতি এপ্রিল মাসজুড়ে হঠাৎ করেই খুন-গুম-অপহরণের মাত্রা অত্যধিক বেড়ে যাওয়াকে ‘সন্দেহজনক’ ও ‘অস্বাভাবিক’ হিসেবে দেখছেন। সরকারের নীতিনির্ধারক পর্যায়ের দায়িত্বশীলরা জানিয়েছেন, পেশাদার অপরাধীদের দমনের ক্ষেত্রে কঠোর ভূমিকা পালনের জন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বিভিন্ন ইউনিটকে এরই মধ্যে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম এ ব্যাপারে বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, একটি সন্ত্রাসী ও প্রতিক্রিয়াশীল গোষ্ঠী দেশে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির জন্য উঠেপড়ে লেগেছে। সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করতেই এ ধরনের কাজ তারা করে থাকতে পারে। তিনি বলেন, ‘দেশের বাইরের বিদেশি কোনো শক্তিও এ ধরনের কাজে ইন্ধন দিতে পারে বলে আমরা আশঙ্কা করছি।’ সরকার এসব কর্মকাণ্ড বন্ধ করতে কঠোর পদক্ষেপ নিচ্ছে জানিয়ে এইচ টি ইমাম বলেন, অপহরণকারীদের খুঁজে বের করতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় নিয়োজিত দায়িত্বশীল শীর্ষ কর্মকর্তাদের প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। সরকার নিয়ন্ত্রিত সব গোয়েন্দা সংস্থা এ ব্যাপারে তৎপরতা বাড়িয়েছে। তিনি বলেন, সম্প্রতি গুম ও অপহরণ বেড়ে যাওয়ার ঘটনায় সরকার অত্যন্ত সচেতন। এ অবস্থা কোনোভাবেই চলতে দেওয়া যায় না। গুম ও অপহরণ কারা করছে তা খুঁজে বের করতেই হবে। এ ব্যাপারে সরকার কঠোর হতে বাধ্য। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে সরকার সবসময় আন্তরিক।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফরউল্লাহ বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, নির্বাচন শেষ হয়েছে। এখন সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে সন্ত্রাসীরা সুযোগ নেওয়ার চেষ্টা করছে। তবে সরকার এ ব্যাপারে যথেষ্ট সচেতন। গুম, অপহরণ, চাঁদাবাজির ঘটনা সরকার কঠোর হস্তে দমন করবে। হঠাৎ গুম, অপহরণ বেড়ে যাওয়ায় সরকার বিব্রত কিনা জানতে চাইলে প্রসঙ্গ এড়িয়ে তিনি বলেন, এসব ঘটনা বন্ধে সরকার যথেষ্ট আন্তরিক। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ড. আকবর আলি খান বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, গুম-অপহরণ হঠাৎ করেই বাড়েনি, দীর্ঘদিন ধরেই চলে আসছে। তবে এখন এগুলো ফলাও করে প্রকাশ হচ্ছে। এটা দুই কারণে হতে পারে, একটি হলো- প্রশাসনের অবক্ষয়ের কারণে। অন্যটি রাজনৈতিক কারণে। তাই অপহরণ শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনতে প্রশাসনকে আরও বেশি তৎপর হতে হবে। একইভাবে রাজনৈতিকভাবেও সব দলকে সচেতন হতে হবে।

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক আরেক উপদেষ্টা এম হাফিজ উদ্দিন খান বলেন, গুম, খুন বা অপহরণে আগের সরকারগুলো তৎপর থাকলেও বর্তমান ক্ষমতাসীনদের কোনো তৎপরতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে না। তারা মনে হয় নাকে তেল দিয়ে ঘুমাচ্ছে। তাদের উদ্বিগ্ন কিংবা চিন্তিত হতে দেখা যাচ্ছে না। ফলে গুম-খুনের মাত্রা আরও বেড়ে যাচ্ছে। সন্ত্রাসী কিংবা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পরিচয়ে মানুষকে তুলে দেওয়া হচ্ছে। এভাবে দেশ চলতে পারে না। খুবই খারাপ লক্ষণ। এ জন্য সব শ্রেণি-পেশার মানুষকে জোরালো প্রতিবাদ করতে হবে। বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, এসব গুম-খুন, মামলা-হামলা কোনো ব্যক্তির বিরুদ্ধে নয়। এটি একটি রাজনীতির বিরুদ্ধে। বাংলাদেশি জাতীয়তাবাদ ও ধর্মীয় রাজনীতির বিরুদ্ধে এসব করা হচ্ছে। কারণ, বর্তমান সরকার গণতন্ত্র বিশ্বাস করে না। তারা একনায়কতন্ত্র বিশ্বাস করে। হত্যা-গুমকে ‘মানবতাবিরোধী অপরাধ’ বলে উল্লেখ করে বিএনপির মুখপাত্র বলেন, বাংলাদেশে এখন স্বৈরশাসন চলছে। এই স্বৈরশাসন থেকে দেশকে রক্ষা করতে হলে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। এদিকে আওয়ামী লীগের আরেক প্রেসিডিয়াম সদস্য ও যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, দেশকে স্থিতিহীন করতে বিএনপি চোরাগোপ্তা হামলার হুমকি দিচ্ছে। অস্ত্রের ভাষায় কথা বলছে। দেশে যেভাবে গুম-খুন হচ্ছে এর সঙ্গে বিএনপির হুমকির যোগসূত্রতা আছে, এটাকে বিচ্ছিন্নভাবে দেখার কোনো সুযোগ নেই। গতকাল দুপুরে সাভারে বিআরটিএর কার্যালয়ে ঝটিকা অভিযান পরিচালনা শেষে সাংবাদিকদের তিনি আরও বলেন, জনবিচ্ছিন্ন হয়ে বিএনপি এখন চোরাগোপ্তা হামলা চালানোর কথা বলছে। তারা রাজনীতি পরিহার করে কথা বলছে অস্ত্রের ভাষায়। তবে তাদের অস্ত্রের ভাষার হুমকি অস্ত্রে নয় আইনগতভাবেই মোকাবিলা করা হবে। সরকার ঠাণ্ডা মাথায় কঠোর হাতে এসব দমন করবে।বা প্র

এ জাতীয় আরও খবর

৫-১২ বছর বয়সীরা পাবে ফাইজারের টিকা

রাশিয়ার বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ লড়াইয়ের ঘোষণা জি-সেভেন নেতাদের

পিকআপে পদ্মা সেতু পার হচ্ছে মোটরসাইকেল

অবসর নিয়ে ভাবছেন ইংল্যান্ডের অধিনায়ক মরগান

হাতিয়ায় শ্বশুরবাড়ি থেকে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার, পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

‘পদ্মা সেতু আমাদের অহংকার’

টাঙ্গাইলে হত্যা মামলায় ৪ জনের যাবজ্জীবন

শারীরিক সম্পর্কে স্বামীর অনীহা, অভিযোগ নিয়ে থানায় গেলেন নারী

নাট-বল্টু খোলার মামলা তদন্ত করবে সিআইডি

মোবাইলে এক মেয়ের সঙ্গে কথা বলতেন ইমরান, ঝগড়াও হতো!

ছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ, বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবেশ নিষেধ শিক্ষকের

ঢাবির ‘খ’ ইউনিটে ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ