বুধবার, ৫ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২০শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

‘কাতানেচ্চিও’র দ্বারস্থ রিয়াল?

‘কাতানেচ্চিও’ নামের একটা কৌশল ইতালিয়ান ফুটবলে বেশ ভালোই পরিচিত। ষাটের দশকে এ কৌশল অবলম্বন করেই অনেক সাফল্য পেয়েছিলেন ইন্টার মিলানের কোচ হেলেনিও হেরেরা। ইতালির জাতীয় দলের অনেক কোচকেও দেখা গেছে এই রক্ষণাত্মক কৌশল দিয়ে প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করতে। চ্যাম্পিয়নস লিগ সেমিফাইনালের দ্বিতীয় লেগে বায়ার্ন-বধের টোটকা হিসেবে এই ‘কাতানেচ্চিও’র শরণই নিতে পারেন রিয়াল মাদ্রিদের ইতালিয়ান কোচ কার্লো আনচেলত্তি।

নিজেদের মাঠে প্রথম লেগে ১-০ গোলের জয় দিয়ে ফাইনালে যাওয়ার কাজটা অনেকখানিই এগিয়ে রেখেছে রিয়াল। এখন দ্বিতীয় লেগে কোনো গোল হজম না করলেই ‘লা ডেসিমা’ জয়ের চূড়ান্ত ধাপে পৌঁছে যাবে লস ব্লাঙ্কোসরা। এমন পরিস্থিতিতে রিয়াল তো ‘গোল ঠেকাও’ কৌশল অবলম্বন করতেই পারে। কোচ আনচেলত্তিও উড়িয়ে দেননি সেই সম্ভাবনা। বলেছেন, ‘কখনো কখনো ‘কাতানেচ্চিও’ জিনিসটা খুব একটা খারাপ না। আমি ইতালিয়ান আর এই কৌশল দিয়ে আমরা অনেক ম্যাচ জিতেছি।’

চ্যাম্পিয়নস লিগের আরেক সেমিফাইনালে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের বিপক্ষে চেলসিও খেলেছিল চরম রক্ষণাত্মক ফুটবল। গোলশূন্যভাবে ড্র হয়েছে ম্যাচটি। চেলসি কোচ হোসে মরিনহো শিষ্যদের নিয়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করলেও ম্যাচটা চরম বিরক্তির উদ্রেক ঘটিয়েছিল ফুটবলপ্রেমীদের মধ্যে। শুধুই সাফল্যের পেছনে ছুটে মরিনহো ফুটবলের সৌন্দর্যটাই নষ্ট করে ফেলছেন, এমন কথাও বলেছেন অনেক ফুটবল বিশ্লেষক। এখন তাহলে বায়ার্নের বিপক্ষে রিয়াল মাদ্রিদকেও কী দেখা যাবে সেই একই ভূমিকায়? অতি রক্ষণাত্মক খেলতে গিয়ে ফুটবলের স্বাভাবিকতাই কী হারিয়ে যাবে? বায়ার্নের কোচ পেপ গার্দিওলা অবশ্য মানতেই পারছেন না যে রিয়াল এমন কিছু করতে পারে। পুরো ৯০ মিনিট রিয়াল শুধু গোলই ঠেকিয়ে যাবে এটা গার্দিওলা কোনোভাবেই বিশ্বাস করতে রাজি নন। তিনি বলেছেন, ‘আমি আনচেলত্তির মানসিকতা সম্পর্কে জানি। আমি কল্পনাও করতে পারি না যে পুরো ৯০ মিনিট তিনি দলকে রক্ষণাত্মক ঢঙে খেলাবেন।’

তবে চ্যাম্পিয়নস লিগের শিরোপা জয়ের জন্য রিয়াল মাদ্রিদের সমর্থকেরা যে রকম উদগ্রীব হয়ে আছেন, তাতে ফুটবলীয় সৌন্দর্যের কথা ভুলে আনচেলত্তি দলকে রক্ষণাত্মক খেলালেও খেলাতে পারেন। তাহলে অবশ্য গার্দিওলাকে ভাঙতে হবে নিজের কৌশলও। প্রথম লেগের ম্যাচে বেশির ভাগ সময় বলের দখল ধরে রেখেও একটি গোল হজম করতে হয়েছে তাদের। বুন্দেসলিগার শেষ তিনটি ম্যাচেও এই বল ধরে রেখে খেলার কৌশল খুব একটা কাজে দেয়নি। গার্দিওলার পজেশন-তত্ত্ব পড়েছে কড়া সমালোচনার মুখে। বুন্দেসলিগার শেষ তিনটি ম্যাচে তাদের হজম করতে হয়েছে পাঁচটি গোল। প্রতিটি ম্যাচেই বায়ার্নের প্রতিপক্ষকে দেখা গেছে গোল ঠেকিয়ে পাল্টা আক্রমণে গিয়ে গোল করতে। আজ রিয়াল মাদ্রিদও যদি এ রকম রক্ষণাত্মক পদ্ধতিই অবলম্বন করে, তাহলে নিশ্চিতভাবেই শিরোপা ধরে রাখার কাজটা কঠিন হয়ে যাবে বায়ার্নের জন্য। ওয়েবসাইট।