বুধবার, ২৯শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ফুটবলের সবচেয়ে মর্মান্তিক ট্র্যাজেডির গল্প শুনুন

অঘটন, বিপর্যয়, ট্র্যাজেডি—ফুটবলে এ শব্দগুলো কিন্তু অচেনা নয়। ফুটবল অঙ্গনের বিভিন্ন ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে এ শব্দগুলো সবগুলো প্রায়ই ব্যবহূত হয়। কিন্তু শব্দগুলোর সত্যিকারের ভয়াবহতা টের পাওয়া যায় না অনেক সময়ই। এ শব্দগুলোর সত্যিকারের মানে বুঝেছিল জাম্বিয়া, আজ থেকে ঠিক ২১ বছর আগে! মর্মান্তিক এক বিমান দুর্ঘটনায় হারিয়ে গিয়েছিল দেশটির পুরো একটি ফুটবল প্রজন্ম।

নব্বইয়ের দশকের শুরুতে জাম্বিয়া পেয়েছিল একঝাঁক প্রতিভাবান ফুটবলার। ১৯৮৮ সালের অলিম্পিকে জাম্বিয়া ইতালিকে হারিয়েছিল ৪-০ গোলে। ১৯৯৪ সালের বিশ্বকাপ বাছাইপর্বেও দেখিয়েছিল দারুণ পারফরম্যান্স। সেবারই প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ খেলার স্বপ্ন দেখছিল আফ্রিকার এ দেশটি। কিন্তু ১৯৯৩ সালের ২৭ এপ্রিল এক বিমান দুর্ঘটনা ধ্বংস করে দেয় জাম্বিয়ার সব স্বপ্ন।

বাছাইপর্বের ম্যাচ খেলার জন্য বিশেষ এক বিমানে করে সেনেগালের উদ্দেশে রওনা দিয়েছিলেন জাম্বিয়ার ফুটবলাররা। ২৭ এপ্রিল সেই বিমানটিই পড়ে দুর্ঘটনার মুখে। বিমানের ৩০ জন যাত্রীই মারা গিয়েছিলেন সেই ভয়াবহ দুর্ঘটনায়। এর মধ্যে ছিলেন ১৮ জন জাম্বিয়ান ফুটবলার ও জাতীয় দলের কোচ গডফ্রে চিতালু।

২০১২ সালে আফ্রিকান নেশনস কাপ জিতে সেই শোকে প্রলেপ দিয়েছিল জাম্বিয়াসৌভাগ্যের কারণে সেই বিমানে ছিলেন না জাম্বিয়ার অন্যতম সেরা খেলোয়াড় কালুসা বাওয়ালা। তাঁর নেতৃত্বেই পরে বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের বাকি ম্যাচগুলো খেলেছিল জাম্বিয়া। স্বপ্ন পূরণের খুব কাছাকাছিও চলে গিয়েছিল ভয়াবহ ট্র্যাজেডির শিকার হওয়া জাম্বিয়ান ফুটবল দল। তড়িঘড়ি করে সাজানো দলটা মাত্র এক পয়েন্টের জন্য যেতে পারেনি বিশ্বকাপের চূড়ান্তপর্বে। পরের বছর আফ্রিকান কাপ অব নেশনসেও সবাইকে চমকে দিয়ে ফাইনালে চলে গিয়েছিল জাম্বিয়া। নাইজেরিয়ার কাছে ২-১ গোলে হেরে শিরোপা জয়ের স্বাদ না পেলেও দেশে ফিরে বীরের সংবর্ধনাই পেয়েছিলেন জাম্বিয়ার ফুটবলাররা।

কিন্তু ১৮ জন খেলোয়াড় ও কোচের মৃত্যু গভীর সংকটেই ফেলে দেয় দেশটির ফুটবলকে। আফ্রিকার সেরা দল হওয়ার জন্য জাম্বিয়াকে অপেক্ষা করতে হয়েছে ২০১২ সাল পর্যন্ত। কাকতালীয় ব্যাপার হলো ২০১২ সালের ফাইনালটি হয়েছিল গ্যাবনের রাজধানী লিব্রেভেলিতে। এখানেই বিধ্বস্ত হয়েছিল ১৯৯৩ সালের সেই বিমানটি। ফাইনালের আগেই সেই দুর্ঘটনাকবলিত জায়গায় গিয়ে নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছিলেন জাম্বিয়ার নতুন প্রজন্মের ফুটবলাররা। ১৯৯৩ সালের সেই দলের সদস্য বাওয়ালা সে সময় বলেছিলেন, ‘আমি নিশ্চিত তাঁরা আমাদের সঙ্গে থাকবে।’

সত্যিই হয়তো সঙ্গে ছিলেন জাম্বিয়ার সেই নিহত ফুটবলাররা। সেবারই উত্তেজনাপূর্ণ ফাইনালে আইভরি কোস্টকে টাইব্রেকারে হারিয়ে শিরোপা জিতেছিল জাম্বিয়া। এই জয় যেন ছিল সেই ১৯৯৩ সালের হতভাগ্যদেরই পর জনমের স্বপ্ন পূরণ!

এ জাতীয় আরও খবর

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কোরবানীর হাটে জন্য প্রস্তুত খামারিরা,শেষ সময়ে পরিচর্যায় ব্যস্ত

নতুন নোট বাজারে আসছে বুধবার

শিগগিরই ৫-১২ বছরের শিশুদের করোনার টিকা দেওয়া হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

এক দিনে রেকর্ড ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত

বিষাক্ত হলুদ ধোঁয়ায় ঢেকে গেল জাহাজ! মুহূর্তে ১২ জনের মৃত্যু

বিয়ের আসরে কনের পা ছুয়ে প্রণাম বরের!

বিশ্বের সব স্বৈরাচারকে টেক্কা দিয়েছে আওয়ামী সরকার : ফখরুল

আসছে ‘ডিজিজ এক্স’! অজানা রোগের মহামারীর শঙ্কা বিজ্ঞানীদের

রেসলিংয়ের মঞ্চে আরব নারী!

শ্রীলঙ্কায় এবার পেট্রল বিক্রি বন্ধ

পদ্মা সেতুর টোল প্লাজার বেরিয়ারে বাসের ধাক্কা

গাড়ি আমদানিতে চট্টগ্রাম বন্দরকে পেছনে ফেলল মোংলা‍