শনিবার, ২৫শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

স্ত্রীকে খুনের কথা স্বীকার করলেন ঘাতক স্বামী রফিক

Crimeব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আখাউড়ায় স্ত্রীকে খুনের কথা স্বীকার করলেন গ্রেফতারকৃত ঘাতক স্বামী রফিক। পারিবারিক কলহের জেরেই খুন হন গৃহবধূ রোজী আক্তার (২২)। মারধরের এক পর্যায়ে ঠা-া মাথায় স্বামী রফিকুল ইসলাম ওরফে রফিক গৃহবধূ রোজীকে হত্যা করে পালিয়ে যায়। শুক্রবার গভীররাতে গ্রেফতারের পর আখাউড়া থানা পুলিশের কাছে প্রদত্ত স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দীতে এসব জানান ঘাতক রফিক। সে রাজবাড়ি জেলার গোয়ালন্দ উপজেলার চর দৌলনদিয়া গ্রামের কাদির সর্দারের পুত্র।
গৃহবধূ রোজী হত্যা মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আখাউড়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. রাকিব জানান,রোজী হত্যার নেপথ্যে ছিলো পারিবারিক দ্বন্ধ-কলহ আর দীর্ঘদিনের মনোমালিন্য। তিন কন্যা ও এক পুত্র সন্তানের জনক রফিক মোবাইল ফোনের সূত্র ধরে আখাউড়া উপজেলার মনিয়ন্ধ ইউনিয়নের মাঝিগাছা গ্রামের জোহেরা খাতুনের বড় মেয়ে রোজীর সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তুলে। স্ত্রী-সন্তান থাকার বিষয়টি গোপন রাখে রফিক। এক পর্যায়ে রোজীকে নিয়ে পালিয়ে বিয়ে করেন রফিক। পরে রফিক শ্বশুরালয়ে এসে থাকতে থাকেন। কিছুদিন পর রফিকের স্ত্রী-সন্তান থাকার বিষয়টি জানাজানি হলে বিশ্বাস ভাঙতে থাকে রোজীর। এক পর্যায়ে রফিকের আসল রূপটি বেড়িয়ে আসতে থাকে। শুরু হয় স্ত্রী-শ্বশুরালয়ের লোকজনের সাথে দ্বন্ধ-কলহ। এরই এক পর্যায়ে গত ১২ এপ্রিল পারিবারিক কলহের এক পর্যায়ে রফিক সবার অজান্তে ঘরের দরজা বন্ধ করে স্ত্রী রোজীকে মারধর করে। এতে সে অজ্ঞান হয়ে পড়লে গলাটিপে মৃত্যু নিশ্চিত করে পালিয়ে যায়। এই ঘটনায় রোজীর মা জোহেরা খাতুন বাদী হয়ে আখাউড়া থানায় হত্যা মামলা দায়ের করে। এরই প্রেক্ষিতে গত শুক্রবার গভীররাতে রাজবাড়ি জেলার গোয়ালন্দ উপজেলার ইউনিয়নঘাট থেকে গ্রেফতার হয় রফিক। গ্রেফতারশেষে গতকাল শনিবার সকালে আখাউড়া থানা পুলিশের কাছে ১৬১ ধারায় প্রদত্ত স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দীতে রোজী হত্যা করার কথা স্বীকার কর ঘাতক রফিক। আখাউড়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি তদন্ত) মো. জাকির হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

 

 

এ জাতীয় আরও খবর