মঙ্গলবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিশ্বকাপের কোচ: গ্রুপ ‘বি’: স্পেন ‘ফেবারিট শব্দটা পছন্দ নয়’

বিশ্বকাপ, ইউরো, চ্যাম্পিয়নস লিগ বিজয়ী একমাত্র কোচ তিনি। রিয়াল মাদ্রিদকে সম্ভাব্য প্রায় সবকিছুই জেতানোর পর স্পেনের হয়েও দারুণ সফল। ওয়ার্ল্ড সকারকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ভিসেন্তে দেল বস্ক কথা বলেছেন লা রোজাদের বিশ্বকাপ সম্ভাবনাসহ অনেক কিছু নিয়েই



ভিসেন্তে দেল বস্ককিছুদিন আগে লুইস ফেলিপে স্কলারি বলেছেন ব্রাজিলই সেরা। কারণ ব্রাজিলই সবচেয়ে বেশি বিশ্বকাপ জিতেছে। আপনিও কি তা-ই মনে করেন?

ভিসেন্তে দেল বস্ক: আমার ধারণা ভিন্ন। আমরা কোনো কিছু নিয়ে গর্ব করি না। তিনি এটা বলায় ভালোই হয়েছে, আমরা সতর্ক হচ্ছি। প্রশংসা সব সময়ই বিপজ্জনক। ‘ফেবারিট’ শব্দটা আমাদের পছন্দ নয়।



চ্যাম্পিয়নস লিগের কোয়ার্টার ফাইনালের তিনটি দল ছিল স্প্যানিশ। এ নিয়ে কি চিন্তিত ছিলেন?

দেল বস্ক: আমি সত্যি সত্যিই আশা করি ফাইনালে স্পেনের দুটি দলই খেলবে। এটা হবে দারুণ এক ব্যাপার। আপনি দেখবেন, আমাদের সব খেলোয়াড়ই খেলার প্রচুর সুযোগ পাচ্ছে। কিন্তু কেউই সারাক্ষণ খেলছে না। সবচেয়ে বড় কথা, আমাদের হাতে অনেক বিকল্প আছে। খেলোয়াড়েরাও রোমাঞ্চিত, বিশ্বকাপে যা দলকে উজ্জ্বীবিত করবে।



২০১২ সালে বড় একটা দলের তালিকা করে সেটি থেকে পরে অনেককে বাদ দিয়েছিলেন। এবারও কি সে রকম কিছু ভাবছেন?

দেল বস্ক: না। আমরা ২৪ মে চ্যাম্পিয়নস লিগ ফাইনালের দিকে তাকিয়ে আছি। সেমিফাইনালের পরেই আমরা অনেক কিছু জানতে পারব। বুঝতে পারব আমাদের কী করতে হবে। ২৩ জনের দলে জায়গা পেতে আরও কিছু সময় পাবে খেলোয়াড়েরা।



তার মানে, ২০১০ সালে পেদ্রো যেমন ঢুকে পড়েছিল, এবারও তেমন কিছু হতে পারে?

দেল বস্ক: আমার মনে হয় না। দুই পরিস্থিতি এবং খেলোয়াড়দের ধরন ভিন্ন। হেসের (যিনি এখন চোটে) মতো তরুণদের ব্যাপারটা অবশ্য একটু আলাদা। ১৬ বা ১৭ জন খেলোয়াড় আছে, যাদের জন্য পরিস্থিতিটা একই রকম। তবে আমরা নজর রাখছি।



বিশ্বকাপ দলে জায়গা পেতে পারেন এমন সম্ভাব্যদের মধ্যে থিয়াগো আলকানতারা একজন। যথেষ্ট পরিপক্বতা থিয়াগো অর্জন করতে পেরেছেন?

দেল বস্ক: হ্যাঁ, বায়ার্নের মতো বড় ক্লাবে সে অনেকটা সময়েই খেলতে পেরেছে। এটা পরিষ্কার, ভবিষ্যতে ওর মতো অনেক খেলোয়াড় আমরা পাব।



রাউল গার্সিয়ার ব্যাপারটা…

দেল বস্ক: সে-ও আরেকজন। প্রতি সোমবার আমরা খেলোয়াড় তালিকাটা নেড়েচেড়ে দেখি। এটা আসলে ও রকম নির্দিষ্ট কিছু নয়। কেউ ঢোকে, কেউ বাদ পড়ে। তবে রাউল সেখানে আছেই।



২০১০ সালে আপনাকে বেশ কিছু অপ্রিয় সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছিল। এবারও কি সে রকম কিছু হবে?

দেল বস্ক: আমরা যে সিদ্ধান্তই নিই না কেন, তা কাউকে না কাউকে আক্রান্ত করবেই। বিবেচনা করার মতো আমাদের ৪৩ বা ৪৪ জন খেলোয়াড় আছে। কেউ তো বাদ যাবেই। কারও কারও জায়গা হয়তো নিশ্চিত, আবার অনেকেই বিশ্বাস করে যে তারা দলে জায়গা পাবে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ২৩ জনই যাবে।



স্পেন দলে ডিয়েগো কস্তার প্রভাব আসলে কতটা থাকবে?

দেল বস্ক: ওর দৃঢ় মনোবলের কথাই প্রথমে বলব। প্রতিপক্ষের জন্য অস্বস্তিকর হয়ে দাঁড়াতে পারে ডিয়েগো। ও বলের দখল ছেড়ে দেয় না, বাতাসে দারুণ, গতিও আছে। অনেক গুণই আছে ওর। কিন্তু আমি এখনো চূড়ান্ত দল ঘোষণা করিনি।



এ মৌসুমে জাভির শারীরিক অবস্থা নিয়ে অনেক কথা হচ্ছে। আপনি এ নিয়ে চিন্তিত?

দেল বস্ক: মাঠে যা দেখেছি, সেটির ওপরই আমাকে ভরসা করতে হবে। সামনে কী হবে, তা নিয়ে ভেবে লাভ নাই। এই মুহূর্তে ফিটনেসের জন্য দলে জায়গা পাবে না এমন কাউকে তো দেখছি না। জাবি আলোনসো, জাভি, ডেভিড ভিয়া—সবাই খেলছে। ফার্নান্দো তোরেস ও ভিয়া চোটের জন্য কিছু ম্যাচ মিস করেছে, কিন্তু বাকিরা তো বড় দলের হয়েই খেলছে। এই মুহূর্তে কাউকে দলে না ডাকার মতো কিছু ঘটার সম্ভাবনা দেখছি না।



ব্রাজিলে আপনারা যেখানে ক্যাম্প করছেন, সেই কুরিতিবায় সুযোগ-সুবিধা নিয়ে কী ভাবছেন?

দেল বস্ক: যা দেখেছি, তাতে আমরা বেশ খুশি। মিগুয়েল আনহেল পর্তুগাল (দেল বস্কের সাবেক রিয়াল মাদ্রিদ সতীর্থ) এই মুহূর্তে অ্যাটলেটিকো প্যারানেনসের কোচ। ব্রাজিলে ক্যাম্প-সংক্রান্ত ব্যাপারগুলো সে সামলাবে এবং আশা করি সবকিছু আমাদের জন্য সহজ করে দেবে। অনুশীলনের মাঠ নিখুঁত অবস্থায় আছে। সবকিছু ভালোই মনে হচ্ছে।



এই মৌসুমে লা লিগার শিরোপা লড়াই নিয়ে কী মনে হয়?

দেল বস্ক: আমরা সবাই এ রকম হাড্ডাহাড্ডি লড়াই-ই চেয়েছিলাম। কিন্তু এটাও সত্যি যে শীর্ষ তিনের সঙ্গে বাকিদের ব্যবধানটা অনেক বেশি। এটা অবশ্য সব লিগেরই চিত্র। বর্তমান অবস্থায় যা এড়ানো অসম্ভবই।