শনিবার, ২৫শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চলতি সপ্তাহে হতে পারে নিজামীর রায়

nizami=2একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত জামায়াতে ইসলামীর আমির ও সাবেক শিল্পমন্ত্রী মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীর মামলার রায় চলতি সপ্তাহে (রোববার-বৃহস্পতিবার) ঘোষণা হতে পারে।

রাষ্ট্রপক্ষের কৌসুলী মোহাম্মদ আলী শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় শীর্ষ নিউজকে বলেন, আমরা আশা করছি এ সপ্তাহে রায় ঘোষণা করা হতে পারে। তবে এটা নির্ভর করছে রায়টি ঘোষণার জন্য প্রস্তুত কিনা তার উপর। গত ২৪ মার্চ থেকে এই মামলাটি রায়ের জন্য অপেক্ষমান রয়েছে।

নিজামীর মামলার রায় ঘোষণা করা হলে এটি হবে ট্রাইব্যুনালের দশম রায়। এর আগে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ ও ২ নয়টি মামলার রায় ঘোষণা দিয়েছেন।

এছাড়া ফরিদপুরের নগরকান্দা পৌর মেয়র পলাতক জাহিদ হোসেন খোকন মামলাটি গত ১৭ এপ্রিল থেকে রায় অপেক্ষামাণ রাখা হয়েছে। যে কোনো দিন এই মামলার রায়ও ঘোষণা করা হতে পারে।

এদিকে বর্তমানে ট্রাইব্যুনালে পাঁচটি মামলার বিচার চলছে। এর মধ্যে জামায়াত নেতা মীর কাসেম আলী ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আওয়মী লীগ নেতা হাজী মোবারক হোসেনের মামলার যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের জন্য তারিখ ধার্য রয়েছে। এছাড়া জাতীয় পার্টি আমলের মন্ত্রী সৈয়দ মুহম্মদ কায়সার, আবদুস সুবহান ও এটিএম আজহারের মামলার শুনানি অব্যাহত রয়েছে। তবে বিচার চলাকালে অবস্থায় জামায়াত নেতা একেএম ইউসুফ মারা যাওয়ায় মামলাটি নথিভুক্ত করা হয়।

দ্বিতীয় দফা যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে গত ২৪ মার্চ জামায়াত নেতা মতিউর রহমান নিজামীর মামলার রায় যে কোনো দিন ঘোষণা করা হবে বলে অপেক্ষামাণ রাখেন বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের নেতৃত্বে তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১।

ওইদিন প্রসিকিউটর মোহাম্মদ আলী নিজামীর সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি করে বলেন, ‘নিজামীর বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগগুলো আমরা সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছি।’ অন্যদিকে আসামিপক্ষের আইনজীবী এডভোকেট তাজুল ইসলাম বলেছেন, ‘রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে নিজামীর বিরুদ্ধে এসব মিথ্যা অভিযোগ আনা হয়েছে’।

এর আগে গত ১০ থেকে ১৩ মার্চ নিজামীর বিরুদ্ধে যুক্তিতর্ক (আর্গুমেন্ট) উপস্থাপন করেন রাষ্ট্রপক্ষ। তাদের যুক্তিতর্ক শেষে ১৪ মার্চ আসামিপক্ষ যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন। এরপর চারদিন আসামিপক্ষে মিজানুল ইসলাম এবং গত রোববার আইনি পয়েন্টে যুক্তি উপস্থাপন করেন তাজুল ইসলাম। এ নিয়ে জামায়াত নেতা মতিউর রহমান নিজামীর মামলায় দুইবার যুক্তি উপস্থাপন করা হলো।

এর আগেও বিচারপতি এটিএম ফজলে কবীরের নেতৃত্বাধীন ট্রাইব্যুনাল গত বছরের ১৩ নভেম্বর আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের শেষ দিনে মামলাটি রায়ের জন্য অপেক্ষামান (সিএভি) রাখেন। তবে পরবর্তীতে রায়ের জন্য অপেক্ষামাণ রাখা আদেশ পুনর্বিবেচনা (রিভিউ) চেয়ে আবেদন করা হলে ট্রাইব্যুনাল নিজামীর পক্ষে নতুন করে যুক্তি উপস্থাপনের সুযোগ দেন। এরপর ২০ নভেম্বর ফের উভয়পক্ষের আইনজীবীদের সমাপনী বক্তব্য শেষে মামলাটি রায়ের জন্য অপেক্ষামান রাখার আদেশ দেন ট্রাইব্যুনাল-১।

কিন্তু এরই মধ্যে গত ৩১ ডিসেম্বর ট্রাইব্যুনাল-১ এর চেয়ারম্যান বিচারপতি এটিএম ফজলে কবীরের চাকরির বয়সসীমা পূর্ণ হওয়ায় অবসরে চলে যাওয়ায় মামলার রায় আর ঘোষণা করা হয়নি। এরপর গত ২৩ ফেব্রুয়ারি ট্রাইব্যুনাল-১ এর চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয় বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমকে। তিনি দায়িত্ব গ্রহণের পর গত ২৬ ফেব্রুয়ারি এই মামলায় ১০ মার্চ সোমবার নতুন করে যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের তারিখ নির্ধারণ করেন।

উল্লেখ্য, ২০১২ সালের ২৮ মে নিজামীর বিরুদ্ধে বুদ্ধিজীবী হত্যাসহ মানবতাবিরোধী অপরাধের ১৬টি অভিযোগে অভিযোগ গঠন করা হয়। এ মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের ২৬ জন সাক্ষী ট্রাইব্যুনালে সাক্ষী দিয়েছেন। নিজামীর পক্ষে সাক্ষ্য প্রদানের জন্য চার সাফাই সাক্ষী নির্ধারণ করেন ট্রাইব্যুনাল। যদিও প্রথমে ১০ হাজার ১১১ জন এবং পরবর্তীতে ২৫ জন সাফাই সাক্ষীর একটি তালিকা ট্রাইব্যুনালে জমা দিয়েছিল আসামিপক্ষ।

নিজামীর বিরুদ্ধে ১৬টি অভিযোগ:

১. নিজামী জামায়াতে ইসলামীর ছাত্র সংগঠন ছাত্র সংঘের সভাপতি হিসেবে ১৯৭১ সালের ৩ আগস্ট চট্টগ্রাম মুসলিম হল ইন্সটিটিউটে মুক্তিযুদ্ধের বিরুদ্ধে উস্কানিমূলক বক্তব্য দেন। এ বক্তব্যে তিনি মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের লোকদের নিমূর্ল করতে তার সহযোগীদের আহ্বান জানান।

২. একাত্তর সালের ২২ আগস্ট ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক একাডেমি হলে নিজামী বক্তৃতা করেন। তিনি মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের লোকদের ইসলামের শত্রু হিসেবে আখ্যা দিয়ে তাদের নিশ্চিহ্ন করতে প্রচোরণা দেন।

৩. একাত্তরের ৮ সেপ্টেম্বর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলাভবন প্রাঙ্গণে দেওয়া এক বক্তৃতায় স্বাধীনতার পক্ষের লোকদের ভারতের দালাল উল্লেখ করে তাদের নির্মূলের আহ্বান জানান নিজামী।

৪. একাত্তরের ৯ ও ১০ সেপ্টেম্বর যশোর বিডিহলে আয়োজিত এক সভায় স্বাধীনতাকামী বাঙ্গালী জনগোষ্ঠীকে নির্মূলে তার সহযোগীদের প্রতি আহ্বান জানান।

৫. একাত্তরের ১৪ এপ্রিল পাবনার সাথিয়া থানার বাউশগাড়ী গ্রামে ৪৫০ জন নিরীহ নারী-পুরুষকে নির্বিচারে হত্যায় নিজামীর বিরুদ্ধে জড়িত থাকার অভিযোগ। ওই দিন বাউশগাড়ী গ্রামে পাক বাহিনী ও তাদের সহযোগী রাজাকার, আল-বদর বাহিনী হত্যাকাণ্ডসহ ধর্ষণের ঘটনা ঘটিয়েছে।

৬. একাত্তরের ৮ মে সাথিয়ায় সুরেন্দ্রনাথ ঠাকুরের পূজা ঘরের সামনে নিজামীর পরিকল্পনা ও সিদ্ধান্তে হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজনকে হত্যা, নারীদের ধর্ষণ, লুন্ঠন ও বাড়িতে অগ্নিসংযোগের ঘটনা সংঘটিত হয়।

৭. ২৭ নভেম্বর পাবনার সাথিয়া থানার ধুলাউড়ি গ্রামে আব্দুল আওয়ালের বাড়ি ঘেরাও করে ৩০ জনকে হত্যা, বাড়িতে লুট, নারীদের ধর্ষণ ও অগ্নিসংযোগের অভিযোগ।

৮. ১৬ এপ্রিল পাবনার ঈশ্বরদী থানার আড়পাড়া ও ভূতের গাড়ি গ্রামের বিভিন্ন বাড়িতে লুট, অগ্নিসংযোগ ও নিরীহ হাফেজ ওমর আলীসহ ১৯ জনকে হত্যার অভিযোগ।

৯. পাবনা জেলা স্কুলের হেড মাওলানা শহীদ মাওলানা কছিম উদ্দিন আহমদসহ তার দুই সঙ্গীকে একাত্তরের ১০ জুন হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় নিজামী জড়িত।

১০. পাবনা শহরের নূরপুর ওয়াপদা পাওয়ার হাউজে একাত্তরের ৯ আগস্ট মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মাজেদ ও মোহাম্মদ আলীকে হত্যা।

১১. ১৯৭১ সালের ৩ ডিসেম্বর পাবনার বেড়া থানার বৃশালিকা গ্রামের সোহরাব আলী প্রামাণিককে হত্যার ঘটনা। এছাড়া প্রফুল্ল প্রামাণিক, ষষ্টি-প্রামাণিকসহ হিন্দু সম্প্রদায়ের ৭০ জন নর-নারীকে হত্যা, তাদের বাড়িঘরে লুটপাট ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা।

১২.  একাত্তরের আগস্ট মাসে সাথিয়া থানার সোনাতলা গ্রামে মুক্তিযোদ্ধা অনিল চন্দ্র কুণ্ডের বাড়িতে অগ্নিসংযোগ ও লুটের ঘটনা।

১৩. মুক্তিযুদ্ধকালীন ঢাকার মোহাম্মদপুর ফিজিক্যাল ট্রেনিং ইন্সটিটিউটে পাক বাহিনীর ক্যাম্প, রাজাকার ও আল-বদর বাহিনীর প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে মানবতাবিরোধী অপরাধের পরামর্শ ও ষড়যন্ত্রের সঙ্গে নিজামীর জড়িত থাকার ঘটনা। তিনি নিখিল পাকিস্তানের ছাত্র সংঘের সভাপতি এবং আল-বদর বাহিনীর প্রধান হিসেবে এ ক্যাম্পে সব সময় গমন করে মুক্তিযুদ্ধের বিরুদ্ধে কার্যক্রম করতেন।

১৪. একাত্তরের ৩০ আগস্ট ঢাকার নাখাল পাড়ায় পুরাতন এমপি হোস্টেলে স্থাপিত পাক ক্যাম্পে বন্দি জহির উদ্দিন জালাল, বদি, রুমি, জুয়েল ও আযাদ এদের মধ্যে একজন ছাড়া বাকীদের নিজামীর নির্দেশে হত্যা করা হয়।

১৫. পাবনার সাথিয়া পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে স্থাপিত রাজাকার ক্যাম্প থেকে মুক্তিযুদ্ধকালীন মানবতাবিরোধী অপরাধের পরামর্শ ও ষড়যন্ত্রের সঙ্গে নিজামী জড়িত থাকার ঘটনা।

১৬. মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ের দ্বারপ্রান্ত একাত্তরের ১৪ ডিসেম্বর বুদ্ধিজীবী হত্যার সঙ্গে নিজামী জড়িত থাকার ঘটনা।

এ জাতীয় আরও খবর