বৃহস্পতিবার, ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রোগী-চিকিত্সক সম্পর্কে অনাস্থা, উত্তরণের পথ কী?

news-image

১৬ এপ্রিল, ২০১৪। বারডেম হাসপাতালের বহির্বিভাগের সামনে যন্ত্রণাক্লিষ্ট অসহায় মানুষের মিছিল। দূর-দূরান্ত থেকে চিকিত্সা নিতে রোগীরা চিকিত্সক না পেয়ে ফিরে যাচ্ছেন। কারণ চিকিত্সকেরা কর্মবিরতি পালন করছেন।


একই দিনে হাসপাতালের ভেতরের চিত্র অন্যরকম। ভবনের তৃতীয় তলার মিলনায়তনে শত শত চিকিত্সক। ডায়াসের সামনে একজন চিকিত্সক সহকর্মীর রক্তমাখা অ্যাপ্রোন তুলে ধরে আছেন। ১৩ এপ্রিল কীভাবে তাঁদের এক নারী সহকর্মীকে টেনেহিঁচড়ে টয়লেট থেকে বের করে এনে লাঞ্ছিত করা হয়েছে তার বর্ণনা দিচ্ছেন একজন চিকিত্সক।


প্রশ্ন উঠেছে ‘ভুল চিকিত্সা’, ‘চিকিত্সায় অবহেলা’র অভিযোগে মারপিট, হাসপাতাল ভাঙচুর কতটা যৌক্তিক, আবার প্রতিবাদে রোগী ফেলে কর্মবিরতি পালনই বা কতটা যৌক্তিক।


এক মাসের ব্যবধানে বাংলাদেশের কমপক্ষে তিনটি জেলায় চিকিত্সকেরা কর্মবিরতি পালন করেছেন। গত মাসে রাজশাহীতে একটি ক্লিনিকের মালিক ও চিকিত্সক নেতা শামিউল ইসলামকে গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে জেলার সব চিকিত্সক ধর্মঘটে যান। ওই ঘটনার জেরে বিনা চিকিত্সায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে আসা এক রোগীর মৃত্যুর অভিযোগ ওঠে। ১৩ এপ্রিল রাতে চিকিত্সকদের ওপর হামলার অভিযোগে টানা দুই দিন কর্মবিরতি পালন করে বারডেম হাসপাতালের চিকিত্সকেরা কর্মবিরতি পালন করেন। এখন তাঁরা ধারাবাহিকভাবে প্রতিদিন এক ঘণ্টার কর্মবিরতির কর্মসূচিও পালন করে আসছেন। এরই মধ্যে গতকাল রোববার বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজের ইন্টার্ন চিকিত্সকেরা কর্মবিরতি পালন করেছেন।


চিকিত্সার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের আশঙ্কা, চিকিত্সক ও রোগীদের মধ্যে সম্পর্কে অনাস্থা-অবিশ্বাস ঢুকে গেছে। এ ধরনের ঘটনা আরও ঘটতে পারে। তাই সমস্যা সমাধানের উদ্যোগ নেওয়া জরুরি হয়ে পড়েছে বলে তাঁরা মনে করেন।


কী বলছেন দেশের শীর্ষ চিকিত্সকেরা: চিকিত্সকদের কর্মবিরতি সম্পর্কে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সহ-উপাচার্য ও চিকিত্সকদের শীর্ষ সংগঠন বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) সাবেক সভাপতি রশিদ ই মাহবুব বলেন, সংক্ষুব্ধ ব্যক্তিদের যাওয়ার কোনো জায়গা নেই। অভিযোগ উঠলেই চিকিত্সকদের গ্রেপ্তার করা হচ্ছে। এভাবে চলতে থাকলে সমস্যার সমাধান হবে না।


জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ জাফরুল্লাহ চৌধুরী চিকিত্সকদের গ্রেপ্তারের বিরোধী। তিনি বলেন, ‘শেখ হাসিনা, খালেদা জিয়াকে নানা অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে গ্রেপ্তার করা যায়। কিন্তু চিকিত্সককে নয়। চিকিত্সক কখনো রোগীকে হত্যা করতে চাইতে পারেন না।’


বাংলাদেশে চিকিত্সকদের সনদ প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিলের (বিএমডিসি) চেয়ারম্যান আবু সাফি আহমেদ আমিন বলেছেন, ‘একটা সময় বলা হতো সৃষ্টিকর্তার পরই চিকিত্সকদের অবস্থান। এখন রোগী বা রোগীর স্বজনেরা চিকিত্সকদের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করছেন। রোগনির্ণয়ের জন্য পরীক্ষার কথা বললেই রোগীর মনে প্রথম প্রশ্ন আসছে, চিকিত্সক এখান থেকে কত কমিশন পাবেন। কিছু কিছু চিকিত্সকের কারণে গোটা চিকিত্সক সমাজের নৈতিকতা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে।’


নামপ্রকাশ না করার শর্তে একজন চিকিত্সক বলেন, ‘ধরুন, আপনি চিকিত্সা করছেন। পাশে কেউ একজন আপনার মাথার ওপর ডাণ্ডা ধরে বসে আছেন। আপনি কি আপনার কাজটা ঠিকমতো করতে পারবেন? আপনি চোখ রাঙিয়ে চিকিত্সককে গ্রামে পাঠাচ্ছেন। উপজেলা চেয়ারম্যান, সাংসদ, গুণ্ডা, মাস্তান সবাই ডাক্তার পেটায়। এভাবে চলতে পারে না।’


সমাধানের উপায় কী: হামলা-ভাঙচুর-কর্মবিরতি এ সবকিছুর সৃষ্টি চিকিত্সায় অবহেলা বা ‘ভুল চিকিত্সা’র অভিযোগ থেকে। গত বছরের মার্চে আইন কমিশন ‘চিকিত্সায় অবহেলাসহ চিকিত্সাসেবার মানোন্নয়নের সমস্যা নিরসনে আইন কমিশনের সুপারিশ’ নামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে। এতে কমিশন বলেছে, ‘এক দিকে চিকিত্সায় অবহেলার শিকার রোগীরা প্রতিকার পাচ্ছেন এমন উদাহরণ কম। অন্যদিকে প্রকৃত অবহেলা থাকুক বা না থাকুক চিকিত্সকেরা রোগী বা তাঁর আত্মীয়স্বজনদের আক্রোশের শিকার হচ্ছেন। এ ধরনের আক্রোশের একটি কারণ হচ্ছে তাঁরা জানেন আইনি প্রতিকার পাওয়া কঠিন।…চিকিত্সক ও রোগী উভয়ের সুরক্ষা প্রয়োজন। চিকিত্সায় অবহেলা নিয়ন্ত্রণে কঠোর আইন ও বেশি এখতিয়ারসম্পন্ন আদালত অতি সতর্ক চিকিত্সার দিকে ঠেলে দিতে পারে এবং চিকিত্সা ধীরায়িত হতে পারে—যার ফলে চিকিত্সা ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।’


আইন কমিশনের ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশে চিকিত্সায় অবহেলার অভিযোগ নিষ্পত্তি করতে কিছু বিচ্ছিন্ন আইন থাকলেও কোনো পৃথক ও পূর্ণাঙ্গ আইন নেই। অবহেলার প্রতিকারের জন্য দণ্ডবিধির ধারা ৩০৪, ৩০৪ এ, ৩৩৬, ৩৩৭, ৩৩৮ বা অন্য কোনো আইনের অধীনে মামলা করা যায়। কিন্তু প্রতিকারের নজির কম। বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিলের (বিএমডিসি) মূল আইনে চিকিত্সায় অবহেলার বিষয়টিরই উল্লেখ নেই। কোড অব মেডিকেল এথিকসে অবশ্য এর উল্লেখ আছে। যতটুকু আছে, ততটুকুর কোনো ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য যথেষ্ট নয় বলে উল্লেখ করেছে আইন কমিশন।


এ ছাড়া ২০০৯ সালে যে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন আছে, তাতে রোগীরা অভিযোগ করতে পারেন। তবে এ প্রক্রিয়া দীর্ঘ। রোগীকে প্রথমে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ-সংক্রান্ত মহাপরিচালকের দপ্তরে যেতে হবে। মহাপরিচালকের অনুমতি নিয়ে তিনি আদালতে যেতে পারবেন।


বিএমডিসি বলছে, ভারতে ভোক্তা আদালত এ ধরনের বিরোধ মীমাংসায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন। বাংলাদেশে এ ধরনের আদালত গঠন করা যেতে পারে। ভারতে অভিযোগ উঠলেই চিকিত্সককে গ্রেপ্তারের নজির নেই।


জানা গেছে, বিএমডিসি একটি ধারণাপত্র তৈরি করেছে। এতে চিকিত্সকেরা ইনস্যুরেন্সের আওতায় আসবেন। এ ব্যবস্থায় কোনো কারণে রোগীর মৃত্যু হলে বা কোনো ভুল হয়ে থাকলে রোগী বা তাঁর স্বজন ক্ষতিপূরণ পাবেন।


তবে সহ-উপাচার্য রশিদ ই মাহবুব বলছেন, এ ব্যবস্থায় চিকিত্সায় ব্যয় বেড়ে যেতে পারে। চিকিত্সকেরা রোগ নির্ণয়ে আরও বেশি যন্ত্রনির্ভর হয়ে পড়বেন এবং ফিও বাড়িয়ে দিতে পারেন। তিনি শক্তিশালী ভোক্তা আদালতের পক্ষে। প্রতিটি হাসপাতালে মৃত্যুর কারণ খতিয়ে দেখার (ডেথ অডিট) প্রক্রিয়া চালুরও পরামর্শ দেন তিনি।


সমস্যা সমাধানে আইন কমিশনও কিছু সুনির্দিষ্ট সুপারিশ করেছে। কমিশন পৃথক একটি দেওয়ানি আদালত গঠনের পরামর্শ দিয়েছে। এই আদালত ক্ষতিপূরণ ও মধ্যস্থতার মাধ্যমে বিরোধ নিষ্পত্তি করবেন। সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে ওই আদালত চিকিত্সার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞ ও নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিদের সমন্বয়ে গঠিত একটি কমিটি বা কমিশনের পরামর্শ নেবেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এ ধরনের ব্যবস্থা কার্যকারিতার প্রমাণ রেখেছে।


তবে আইনগত কাঠামোর মধ্যে শাস্তি, ক্ষতিপূরণের বিষয়টি নিশ্চিত হলেও চিকিত্সক ও রোগীদের মধ্যে অনাস্থা, অবিশ্বস্তার যে সম্পর্ক, আইন দিয়ে তা থেকে উতরানো সম্ভব হবে না বলে মন্তব্য করেছেন বিএমডিসির চেয়ারম্যান আবু সাফি আহমেদ আমিন।


আর জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলছেন, মেডিকেলে ভর্তির সময় শুধু স্কোর দেখলে চলবে না। দেশের মাটি ও মানুষ, স্বাধীনতা, সততা, নৈতিকতার ওপর পরীক্ষা নেওয়া বাঞ্ছনীয়।

এ জাতীয় আরও খবর

সীমান্তে কাউকে ঢুকতে দেব না: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

করোনায় আরও ২ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৬৭৯

২ বাংলাদেশিকে অপহরণ করেছে ‘রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা’

রাজনীতিতে কালো মেঘ দেখা যাচ্ছে: পরিকল্পনামন্ত্রী

অবসরের পরও অস্ত্রধারী পুলিশের নিরাপত্তা পাবেন বেনজীর

লাঠির সঙ্গে জাতীয় পতাকা নিয়ে নামলে খবর আছে: ওবায়দুল কাদের

ব্রিটেনের রানির মৃত্যুর কারণ প্রকাশ

২ বছর আগেই ছেলের মা হন বুবলী, বাবা শাকিব

‘জবাবদিহির আওতায় না আনা পর্যন্ত র‌্যাবের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা থাকবে’

সালমান-ভীতি; নায়ক :জারিন খান

গৃহকর্মীদের জীবন নিরাপদ করতে উদ্যোগ নেবে সরকার: পরিকল্পনামন্ত্রী

‘সালমানের জন্য ওটিটি নয়, তিনি বড় পর্দার মানুষ’