বুধবার, ৮ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ ২৫শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ইয়াবা পোড়াতে গিয়ে পুড়লেন ১১ বিজিবি সদস্য

yaba-1কক্সবাজারে জব্দ করা ইয়াবা ট্যাবলেটসহ মাদকদ্রব্য পুড়িয়ে ধ্বংস করার সময় হঠাৎ বিস্ফোরণে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) ১১ সদস্য দগ্ধ হয়েছেন। মারাত্মক দগ্ধ ছয়জনকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ওই সময় অল্পের জন্য রক্ষা পেয়েছেন স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ও বিজিবি মহাপরিচালক।
গতকাল রবিবার দুপুর দেড়টার দিকে কক্সবাজারে বিজিবির ১৭ ব্যাটালিয়ন দপ্তরের মাঠে এ ঘটনা ঘটে।
দগ্ধ ১১ বিজিবি সদস্য হলেন হাবিব উল্লাহ, ফাইজুল কবির, বেলায়েত হোসেন, সজিব, জাহেদ, আদনান, আবদুল হালিম, বিপ্লব, আলিম, আশরাফুল ইসলাম ও মিলন কান্তি ধর।
মাদক ধ্বংসের আনুষ্ঠানিকতার খবর সংগ্রহের জন্য সেখানে উপস্থিত থাকা স্থানীয় সাংবাদিকদের মধ্যে বৈশাখী টেলিভিশনের ক্যামেরাম্যান জসিম উদ্দিনও এতে আহত হন।
আহতদের কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে তাঁদের মধ্যে গুরুতর দগ্ধ ছয়জনকে সন্ধ্যার দিকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।
সদর হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. রতন চৌধুরী কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘অগ্নিদগ্ধ ওই ছয়জনের অবস্থা একটু খারাপ। এখানে যেহেতু বার্ন ইউনিট নেই তাই তাঁদের পর্যাপ্ত চিকিৎসা দিতেই চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে পাঠানো হয়েছে।’ বিজিবির ১৭ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল খন্দকার সাইফুল আলম সাংবাদিকদের বলেন, বিভিন্ন সময়ে জব্দ করা এক লাখ ৭১ হাজার ৬০টি ইয়াবা ট্যাবলেট ও অন্য আরো কিছু মাদকদ্রব্য ধ্বংস করার আনুষ্ঠানিকতা ছিল গতকাল। শুধু জব্দ করা ইয়াবার দাম ছিল পাঁচ কোটি টাকা। এসব ইয়াবা পোড়ানোর সময় হঠাৎ করেই চুল্লিতে বিস্ফোরণ ঘটে আগুন লেগে যায়।
 
 
Yaba-2
আগুনে দগ্ধ বৈশাখী টেলিভিশনের স্থানীয় ক্যামেরা পারসন জসিম উদ্দিন বলেন, ইয়াবা পোড়ানোর চুল্লিতে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান প্রথম কিছু ইয়াবা ঢেলে দেন। এরপর বিজিবি মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আজিজ আহমদ ও অন্য কর্মকর্তারা চুল্লিতে ইয়াবা ঢেলে দেন। এ সময় বিজিবির এক জওয়ান পাত্রে থাকা সব ইয়াবা ট্যাবলেট চুল্লিতে ঢেলে দিলে আগুন নিভে যায়। অন্য কয়েকজন জওয়ান তখন চুল্লিতে কেরোসিন ঢেলে দেন। সঙ্গে সঙ্গে চুল্লিতে বিস্ফোরণ ঘটে। এতে চুল্লির পাশে থাকা বিজিবি জওয়ানদের গায়ে আগুন লেগে যায়। স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ও বিজিবি মহাপরিচালকসহ অন্য কর্মকর্তারা চুল্লি থেকে মাত্র দুই গজ দূরে ছিলেন।
জসিম বলেন, অগ্নিদগ্ধ বিজিবি সদস্যরা মাটিতে গড়াগড়ি দিয়ে এবং অন্যরা তাঁদের শরীরে পানি ঢেলে আগুন নিভিয়ে ফেলেন।
ঘটনার পরপরই দ্রুত অগ্নিদগ্ধ বিজিবি সদস্যদের জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। দুপুর  পৌনে ৩টার দিকে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী হাসপাতালে তাঁদের দেখতে যান।
মাদকদ্রব্য ধ্বংসের সময় সেখানে উপস্থিত বিজিবির চট্টগ্রাম দক্ষিণ-পূর্ব জোন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার সৈয়দ আহমদ আলী সাংবাদিকদের বলেন, ‘এটি নিছক দুর্ঘটনা। ইয়াবা পোড়ানোর জন্য তৈরি চুল্লিতে কেরোসিন ঢালতে গিয়ে বিস্ফোরণ ঘটেছে।’
বিজিবি মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আজিজ আহমেদ বলেন, এটি একটি দুর্ঘটনা মাত্র। কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) ডা. সুলতান আহমদ সিরাজী ছয়জনকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানোর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
বিস্ফোরণ কেন : ইয়াবাসহ মাদকদ্রব্য পোড়ানোর সময় আকস্মিক বিস্ফোরণের কারণ সম্পর্কে কেউই নিশ্চিত করে কিছু বলতে পারছেন না। মাদক হিসেবে ইয়াবার ব্যবহার এখানে বলতে গেলে নতুন। এর আগে এত বিপুল পরিমাণ আটক ইয়াবা এভাবে ধ্বংস করা হয়নি। মাদক নিয়ন্ত্রণ বিভাগের একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ইয়াবা আগুনে নয় পানিতে ফেলেই নষ্ট করতে হয়। কেননা ইয়াবা সেবন করা হয় আগুনের ধোঁয়ায়। একে তো গুদাম থেকে ড্রামভর্তি বিপুল পরিমাণের ইয়াবা চুল্লিতে ফেলা হয়, তার ওপর সেখানে কেরোসিন দিয়ে আগুন দিতেই বিস্ফোরণ ঘটে।