বুধবার, ২৯শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

‘এক ব্যক্তির ইচ্ছা-অনিচ্ছার দুঃশাসন চলছে’

দেশে এখন আইনের শাসনের বদলে এক ব্যক্তির ইচ্ছা-অনিচ্ছার বর্বর দুঃশাসন চলছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। তিনি বলেন, শাসকগোষ্ঠী স্বেচ্ছাতন্ত্রের শেষ সীমানা অতিক্রম করে অতিকায় দানব হয়ে উঠেছে।

আজ রোববার এক বিবৃতিতে খালেদা জিয়া এসব কথা বলেন। বিএনপি জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ও যুগ্ম মহাসচিব আমানউল্লাহর জামিন বাতিল করে কারাগারে পাঠানোর পর ক্ষোভ ও প্রতিবাদ জানিয়ে এই বিবৃতি দেন তিনি।

অবিলম্বে গয়েশ্বর ও আমানের মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করে নিঃশর্ত মুক্তির জোর দাবি জানিয়ে খালেদা জিয়া বলেন, তাঁদের কারাগারে পাঠানোর ঘটনা সরকারের বন্য প্রতিহিংসার বহিঃপ্রকাশ ছাড়া কিছু নয়।

বিবৃতিতে বিএনপির চেয়ারপারসন বলেন, বর্তমান সরকারের আমলে দেশে আইনের শাসন এতটাই ভূলুণ্ঠিত হয়েছে যে বিরোধী দলের নেতা-কর্মীদের অন্যায়ভাবে মিথ্যা মামলায় জড়িত করার পর তাঁদের আইনি প্রতিকার পাওয়ার অধিকারটুকুও চরমভাবে হরণ করা হচ্ছে। দুঃশাসনের জাঁতাকলে পিষ্ট হচ্ছে বিরোধীদলীয় নেতা-কর্মীসহ সাধারণ মানুষ। সরকার নিজেদের হীন উদ্দেশ্য চরিতার্থ করার জন্য বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোকে দমন করতে পুলিশ প্রশাসনসহ রাষ্ট্রের সব অঙ্গকে সরকারি দলের অঙ্গসংগঠনে পরিণত করেছে। এর ফলে বিরোধী মত, বিবেক ও চিন্তার স্বাধীনতাকে নিষ্ঠুর পীড়নে স্তব্ধ করে দেওয়া হচ্ছে।

খালেদা জিয়া বলেন, দেশের মানুষের জানমালের কোনো নিরাপত্তা নেই। চারদিকে গভীর হতাশা ও নৈরাজ্যে দেশ আজ গভীর ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে। তিনি বলেন, অবৈধ সরকারের টিকে থাকার একমাত্র অবলম্বন হচ্ছে নির্যাতন, নিপীড়ন, মামলা, হামলা, গুম, অপহরণ, গুপ্তহত্যা, হুমকি-ধমকি, কুত্সা ও নির্জলা মিথ্যাচার।