বুধবার, ৫ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২০শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ইমরানের ওপর হামলার প্রমাণ পেলে ছাত্রলীগ ক্ষমা চাইবে’

ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি এইচ এম বদিউজ্জামান বলেছেন, ‘গণজাগরণ মঞ্চের কর্মীদের ওপর ছাত্রলীগ হামলা করেছে, মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকার এটা প্রমাণ করতে পারলে ছাত্রলীগ জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে দাঁড়িয়ে জাতির কাছে ক্ষমা চাইবে।’

আজ শনিবার দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মুধর ক্যানটিনে সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বদিউজ্জামান এ কথা বলেন। ইমরান এইচ সরকারের ‘মিথ্যা ও বিভ্রান্তিকর’ বক্তব্যের প্রতিবাদে এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রশিবিরের সভাপতি আশরাফুল আলমকে গ্রেপ্তারের দাবিতে এই সংবাদ সম্মেলন ডাকা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে বদিউজ্জামান রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সোহরাওয়ার্দী হল শাখার ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক রুস্তম আলী আকন্দের হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে ছাত্রশিবির রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি আশরাফুল আলমকে গ্রেপ্তারের দাবি জানান। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তাঁকে গ্রেপ্তার না করলে দেশব্যাপী ছাত্রধর্মঘট ডাকার হুমকি দেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকী নাজমুল আলম দাবি করেন, প্রায় ১০ মাস যাবত্ গণজাগরণ মঞ্চের সঙ্গে ছাত্রলীগের কোনো সম্পৃক্ততা নেই। তাদের সঙ্গে বিরোধ থাকার প্রশ্নই আসে না। বরং মঞ্চের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ছাত্রসংগঠনগুলোর সঙ্গে আমাদের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বিদ্যমান।

নাজমুল আলম আরও বলেন, ‘একটি বিষয় পরিষ্কার যে তাদের নিজেদের মধ্যে কিছুদিন যাবত্ অস্থিরতা ও উত্তেজনা আমরা পত্রপত্রিকার মাধ্যমে জানতে পেরেছি।’ তবে ইমরান এইচ সরকার ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির উপসংস্কৃতিবিষয়ক সম্পাদক শেখ আসমান ও সাবেক দপ্তর সম্পাদক নাসিম রূপককে নিয়ে যে বক্তব্য দিয়েছেন, তা সম্পূর্ণ অসত্য ও বিভ্রান্তিকর বলে দাবি করেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি জয়দেব নন্দী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শামসুল কবির, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি মেহেদী হাসান উপস্থিত ছিলেন।

দুপুরে মধুর ক্যানটিনে অপর এক সংবাদ সম্মেলনে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ডের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সদস্য সচিব আল মামুন সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি মেহেদী হাসানের নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানিয়েছেন। আল মামুনকে গতকাল শাহবাগ থেকে আটক করে পুলিশ।