বুধবার, ৫ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২০শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রকাশিত হলো মেসির প্রথম জীবনী

নাটকীয় একটা পটপরিবর্তন শুধু লিওনেল মেসির জীবনই না, বদলে দিয়েছে পুরো ফুটবলবিশ্বের চালচিত্রই। হরমোনজনিত সমস্যার কারণে শারীরিক বৃদ্ধি ঠিকমতো হবে কি না, একসময় সেটা নিয়েই ছিল ঘোর সংশয়। তখন তাঁর বয়স মাত্র ১৩ বছর। সেই অবস্থা থেকে পরিবার-পরিজন ছেড়ে পাড়ি জমিয়েছিলেন বার্সেলোনায়। তার পরের কাহিনি তো সবারই জানা। অনেকের চোখেই তিনি এ সময়ের সেরা ফুটবলার। পায়ের অসাধারণ সব কারুকাজ দেখিয়ে প্রায়ই ভাষা কেড়ে নেন ধারাভাষ্যকারদের। মুগ্ধ করে রাখেন ফুটবলবিশ্বকে। মেসির এই বিস্ময়কর উত্থানের কাহিনিগুলোই লিপিবদ্ধ করেছেন স্প্যানিশ সাংবাদিক গুইলেম বালেগ। বইয়ের পাতায় তুলে এনেছেন আর্জেন্টাইন তারকার জীবনকাহিনি।


মেসির জীবনী এর আগে অনেকেই লিখেছেন। তবে সেগুলোর কোনোটির ভাগ্যেই জোটেনি আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি। গত ডিসেম্বরে প্রকাশিত হওয়া বালেগের বইটাই পেয়েছে আনুষ্ঠানিক অনুমোদন। ৬০০ পাতার বইটি সম্প্রতি স্প্যানিশ ও কাতালান ভাষায়ও প্রকাশ করেছেন বালেগ। গতকাল বার্সেলোনায় হয়ে গেল ‘মেসি’ নামের এই বইয়ের মোড়ক উন্মোচন। এটাই মেসির প্রথম অনুমোদিত জীবনী।


মেসির ফুটবল ক্যারিয়ারের খুঁটিনাটি বর্ণনার পাশাপাশি এই বইয়ে আছে মেসিকে নিয়ে বার্সেলোনার সাবেক প্রেসিডেন্ট সান্দ্রো রসেল, সাবেক কোচ পেপ গার্দিওলা, আর্জেন্টিনার কোচ আলেসান্দ্রো সাবেলা, সতীর্থ জাভি, ইনিয়েস্তা, ফ্যাব্রিগাস, পিকে ও মাচেরানোর মন্তব্য।