বুধবার, ১৯শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৫ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

কেজরিওয়ালের ৪৯ দিন

5300f7d7eb069-Untitled-3ভারতের দলিত-দেবী মায়াবতী নব্বইয়ের দশকে দুই দফায় সামান্য সময়ের জন্য উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী হয়েছিলেন। প্রথমবার মুখ্যমন্ত্রিত্ব চলে যাওয়ার পর সাক্ষাৎকারের সময় তাঁকে প্রশ্ন করেছিলাম, ক্ষণস্থায়ী হবে জেনেও কেন তিনি এই ঝুঁকি নিলেন? তিনি পাল্টা প্রশ্ন করে জানতে চেয়েছিলেন, আমি ব্রাহ্মণ কি না। আমি ‘হ্যাঁ’ বলায় উনি জবাব দিয়েছিলেন, ‘২৪ ঘণ্টার জন্য দায়িত্ব পেলেও আমি তা গ্রহণ করতাম। কারণ, ওই সময়ের মধ্যেই আমি এমন কিছু করতাম, যা আপনাদের মতো উচ্চবর্গীয় মানুষ আমাদের দলিত সমাজের জন্য কখনো করেনি, আর করবেও না।’ একটু থেমে তিনি স্বগতোক্তি করেছিলেন, ‘তিলক, তরাজু ঔর তলোয়ার, ইনকো মারো জুতে চার’। দলিত উত্থানে এই স্লোগানটি মায়াবতীর রাজনৈতিক জন্মদাতা কাঁসিরাম সেই সময় বেঁধে দিয়েছিলেন। তিলক মানে ব্রাহ্মণ, তরাজু মানে ব্যবসায়ী বা বেনিয়া, আর তলোয়ার মানে ক্ষত্রিয়। এদের দেখলেই চার-চারবার জুতা মারো।

মাত্র ৪৯ দিন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী থেকে বিদায় নেওয়ার প্রাক্কালে আম আদমি পার্টির (এএপি) ডাকাবুকা নেতা অরবিন্দ কেজরিওয়াল বিধানসভায় দাঁড়িয়ে বিদায়ী ভাষণে ওই মায়াবতীর মতোই তাঁর রাজনৈতিক লড়াইয়ের অভিমুখটি জানিয়ে গেলেন। স্পষ্ট বলে দিলেন, কংগ্রেস ও বিজেপি—দুই দলই তাঁদের রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ। কারণ, দুই দলই দেশের এক নম্বর শিল্পপতি মুকেশ আম্বানির কৃপাধন্য। আম্বানির টাকায় তাঁদেরই স্বার্থে এরা রাজনীতি করে। তাঁর সরকার যেহেতু মুকেশ আম্বানির বিরুদ্ধে মামলা করেছে, সে জন্য জন লোকপাল বিলকে তারা কিছুতেই আসতে না দিয়ে তাঁর বিদায়ের পথ প্রশস্ত করছে। সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষের স্বার্থে এসব ধনকুবের ও তাঁদের বশংবদদের বিরুদ্ধে আম আদমি পার্টির লড়াই অব্যাহত থাকবে।

৪৯ দিনের শাসনকে কেজরিওয়াল কিন্তু অনায়াসেই দীর্ঘায়িত করতে পারতেন। কারণ, এত তাড়াতাড়ি আম আদমি পার্টি পাততাড়ি গোটাক, লোকসভার সঙ্গে দিল্লি বিধানসভার ভোটও হয়ে যাক, কংগ্রেস তা চায়নি। কংগ্রেস বিলক্ষণ জানে, প্রধানত তাদের ও কিছুটা বিজেপির ভোটে ভাগ বসিয়েই আম আদমি পার্টির উত্থান। যে প্রতিশ্রুতি জাগিয়ে তারা ক্ষমতায় বসেছিল, প্রত্যাশামতো তা তারা পূর্ণ করতে পারেনি। সাধারণদের জন্য কিছু জনপ্রিয় সিদ্ধান্ত নিলেও সবার মনে দারুণ কোনো দাগ তারা ফেলতে পারেনি। বরং প্রশাসনিক ক্ষেত্রে হঠকারিতা ও নৈরাজ্য সৃষ্টির প্রবণতায় বহু শিক্ষিত মানুষ তাদের প্রতি হতাশ। এ অবস্থায় আবার ভোট হলে বিজেপিরই বরং আঠারো আনা লাভ। কংগ্রেস তাই সমর্থন প্রত্যাহারের কথা ভাবনাতেই আনেনি। কিন্তু কেজরিওয়ালও নানা করম অঙ্ক কষেই ময়দানে নেমেছেন। নজরে তাঁর লোকসভা ভোট। সততার প্রতীক সেজে অসৎদের বিরুদ্ধে জিহাদ ঘোষণা করে সাধারণ ও অতিসাধারণ মানুষের সমর্থনে ভর করে তিনিও কেল্লা ফতে করতে আগ্রহী। তাই কংগ্রেস কবে সমর্থন তুলে নেবে বা কংগ্রেসের কিসে ভালো হবে, তাতে আমল না দিয়ে তিনি নিজের নাক নিজেই কাটলেন।

সন্দেহ নেই, সাম্প্রতিক কালে ভারতীয় রাজনীতিতে সবচেয়ে আলোচিত নাম অরবিন্দ কেজরিওয়াল ও তাঁর আম আদমি পার্টি। মানুষের ক্ষোভ-বিক্ষোভ-অভাব-অপ্রাপ্তির কারণগুলোর দিকে আলো ফেলে দুর্নীতির বিরুদ্ধে আপসহীন সংগ্রামের অঙ্গীকার করে সততার প্রতিমূর্তি সেজে কেজরিওয়ালেরা এক অদ্ভুত স্বপ্ন ফেরি করেছেন এই কয় মাসে। এই প্রথম দেখা গেল, দিল্লির মানুষ জাত-ধর্ম-বর্ণ-প্রাদেশিকতা বা অর্থনৈতিক ভেদাভেদ ভুলে আম আদমি সেজে তাঁদের ভোট দিলেন। সমাজের বহু জ্ঞানী-গুণী-সম্মানীয় মানুষ কিছু করার আশা নিয়ে এই দলে যোগ দিলেন।

কেজরিওয়ালের দাবি, তাঁর বিরুদ্ধে প্রশাসনহীনতার অভিযোগ আনা হলেও এই কদিনে তাঁর সরকার বহু সিদ্ধান্ত নিয়েছে, যা সাধারণ মানুষ এযাবৎ দেখেনি। বিদ্যুতের বিলে বিরাট ছাড়, বিনা পয়সায় দিনে ৬০০+ লিটার পানীয় জল, দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য হেল্পলাইন খোলা, বিদ্যুতের কারচুপি ঠেকাতে কোম্পানিগুলোর হিসাবের সরকারি অডিট করানোর নির্দেশ, পুলিশের হয়রানির হাত থেকে অটোচালকদের রক্ষা ও তাঁদের অনেক দাবি পূরণ, অরুণাচলের ছাত্র নিডো তানিয়া হত্যার ম্যাজিস্ট্রেট তদন্তের নির্দেশ, জল-মাফিয়াদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ, ফুটপাতবাসীর জন্য রাতযাপনের আবাসের ব্যবস্থা করা সেগুলোর অন্যতম। সরকারি যোগসাজশে গ্যাসের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে শিল্পপতি মুকেশ আম্বানিসহ বর্তমান ও সাবেক কেন্দ্রীয় তেল-গ্যাসমন্ত্রী যথাক্রমে বীরাপ্পা মইলি ও মুরলি দেওরার বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়েরও দুর্নীতি রোধে একটা বড় পদক্ষেপ। এসব ব্যবস্থা সাধারণ মানুষকে এটা বোঝাতে নিশ্চয় সাহায্য করেছে যে তিনি তাদেরই একজন। কিন্তু যেভাবে তিনি রাজ্য শাসন করছিলেন, যেভাবে একটার পর একটা ফ্রন্ট খুলে তিনি লড়াইয়ের ক্ষেত্র বৃদ্ধি করছিলেন, যেভাবে রাস্তায় শুয়ে-বসে অবাঞ্ছিত ও অনর্থক বিতর্ক সৃষ্টি করে মূল লক্ষ্য থেকে সরে যাচ্ছিলেন, তাতে প্রশাসনিক দিক থেকে তিনি যে বিরাট একটা ভরসাস্থল, সেই আস্থা সর্বস্তরে জোগাতে পারছিলেন না। তাঁরই মন্ত্রী রাত-বিরাতে টহলদারির ভূমিকায় নেমে আফ্রিকার একাধিক দেশের সঙ্গে অনভিপ্রেত কূটনৈতিক সংকটও সৃষ্টি করে ফেললেন, যা মেটাতে পররাষ্ট্র মন্ত্রককে মাথার ঘাম পায়ে ফেলতে হলো। প্রশাসক অরবিন্দ কেজরিওয়াল ‘বেস্ট ইম্প্রেশন’-এর ছাপ আমজনতার জন্য রাখলেও সর্বস্তরের সব মানুষের জন্য কিন্তু রাখতে পারেননি।

প্রশ্ন হলো, কেজরিওয়ালের পদত্যাগ আগামী নির্বাচনে কী প্রভাব ফেলতে পারে। দুটি ক্ষেত্র রয়েছে। দিল্লি ও সর্বভারতীয়। দিল্লিতে বিধানসভা জিইয়ে রাখা হয়েছে। এর অর্থ বিকল্প সরকার গঠনের দরজাটা খোলা। বিজেপি এখনই চাইলে তাদের ৩২ সদস্যের সঙ্গে আরও তিনজনের সমর্থন পেয়ে টায়টায় গরিষ্ঠতা নিয়ে সরকার গড়তেই পারে। কিন্তু তারা এখনই তা করতে রাজি নয় ‘ইমেজ’ খারাপ হওয়ার আশঙ্কায়। কংগ্রেসের পক্ষে কিছু করার উপায় নেই। সে ক্ষেত্রে লোকসভার ভোটের সঙ্গেই দিল্লি বিধানসভার ভোট হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। বিভিন্ন জরিপে নরেন্দ্র মোদির প্রতি ভরসা রাখার একটা প্রবণতা দেখা যাচ্ছে। মোদির ‘নো ননসেন্স’ ভাবমূর্তি, তাঁর অভিনব বাচনভঙ্গি, প্রশাসনিক রেকর্ড, দলের সাংগঠনিক দক্ষতা, প্রচারমাধ্যমের একটা বড় অংশ ও কট্টর হিন্দুত্ববাদীদের সমর্থন তাঁকে অন্যদের তুলনায় এগিয়ে রেখেছে। কিন্তু এগিয়ে রাখলেও নিরঙ্কুশ গরিষ্ঠতা বিজেপি বা তাদের জোটের পক্ষে এখনো দেখা যাচ্ছে না। আম আদমি পার্টি দিল্লিতে বিজেপির বিকল্প হলেও হতে পারে। কিন্তু এই ৪৯ দিনের শাসন তাদের সমর্থকদের একটা বড় অংশের মোহ ও স্বপ্নভঙ্গের কারণও হয়েছে। স্থিতিশীল সরকারের জন্য তারা কি আরও একবার কেজরিওয়ালদের জন্য বাজি ধরবে? কেজরিওয়ালেরা আশাবাদী হলেও জোর দিয়ে বলা কঠিন। সর্বভারতীয় ক্ষেত্রে এএপির উপস্থিতি এখনো পরীক্ষিত নয়। বিচ্ছিন্নভাবে কিছু শহরে কিছু কেন্দ্রে তাদের উপস্থিতি হয়তো রয়েছে, কিন্তু প্রতিষ্ঠিত দলগুলোর অর্থবল, লোকবল এবং বাহুবলের মোকাবিলা করে আম আদমি পার্টির দাঁত ফোটানো খুবই কঠিন।

এ বিষয়ে সন্দেহ নেই, ভারতে এএপি একটা নতুন ধারার রাজনীতির জন্ম দিয়েছে। দেশের বিভিন্ন অংশে তারা ভালোমতো সাড়াও ফেলেছে। সেই সাড়ায় ভর দিয়ে তারা দেশের ৩৫০ লোকসভা আসনে লড়াইয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এটাও শেষ পর্যন্ত আরও একটা হঠকারী সিদ্ধান্ত না হয়ে যায়। কারণ, কথায় বলে, ততটাই কামড়ানো উচিত যতটা চিবানো যায়। ৩৫০ আসনে দাঁড়িয়ে ২০-২৫টি জেতার চেয়ে ৫০টি আসন বেছে নিয়ে সর্বশক্তি নিয়োগ করাই বুদ্ধিমানের কাজ হবে বলে দলেরই একাংশের অভিমত। কেজরিওয়াল তা মানতে রাজি হননি। তাঁকে স্বৈরতন্ত্রী তকমা দিয়ে ইতিমধ্যেই কেউ কেউ দল ছেড়েছেন। সরকার গড়ার সময় গণতন্ত্রী কেজরিওয়াল আমজনতার দরবারে গিয়ে রায় নিয়েছিলেন। সরকার ছাড়ার রায় নিতে তিনি কিন্তু তা করেননি। দিল্লির সরকার থেকে সরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত তাঁদের স্বেচ্ছায় নেওয়া। দায়িত্ব ছেড়ে দেওয়ার জন্য কিন্তু দিল্লির মানুষ তাঁদের ভোট দেয়নি। ভোট দিয়েছিল সরকার গড়া ও টিকে থেকে যত বেশি সম্ভব আমজনতার স্বার্থে সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য। তা না করে সরে এসে অনেকের কাছেই কেজরিওয়াল ‘এসকেপিস্ট’ বা পলায়ন মনোবৃত্তির বিশেষণ পাচ্ছেন। বিজেপি ও কংগ্রেস ইতিমধ্যেই বলতে শুরু করেছে, যারা পালিয়ে বাঁচতে চায়, তাদের ওপর ভরসা করা উচিত নয়।

কেজরিওয়াল যে দাবিই করুন, গত এক মাসে তাঁদের জনপ্রিয়তার গ্রাফ কিন্তু নিম্নমুখী। আম আদমি পার্টি তহবিলে দেশ-বিদেশ থেকে যে অর্থ দৈনিক জমা হয়, তার হিসাবেই এ তথ্য প্রমাণিত। গত বছরের ৮ থেকে ২৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত দলীয় তহবিলে দৈনিক চাঁদা পড়েছে প্রায় আট লাখ রুপি, ২৮ ডিসেম্বর থেকে ১১ জানুয়ারি পর্যন্ত তা বেড়ে দাঁড়ায় ১৯ লাখে, অথচ ১২ জানুয়ারি থেকে ৮ ফেব্রুয়ারি সময়ে দৈনিক চাঁদা কমে হয়েছে মাত্র চার লাখ ৮২ হাজার রুপি!

মায়াবতীর সঙ্গে অরবিন্দ কেজরিওয়ালের পার্থক্য অনেক। মায়াবতীর অভিধানে পালানো শব্দটি গরহাজির। অরবিন্দ কেজরিওয়াল নীতির অজুহাতে দায়িত্ব ছাড়তে তৈরি। দিল্লি ও দেশের মানুষ কতটা তাঁকে আঁকড়ে ধরে রাখতে ব্যগ্র, মে মাসেই তা বোঝা যাবে।

এ জাতীয় আরও খবর

এটিএম কার্ড ক্লোনকারী তুর্কি নাগরিক গ্রেপ্তার ঢাকায়

আইসিসির বর্ষসেরা টি-টোয়েন্টি দলে মুস্তাফিজ

বুয়েট ছাত্র আবরার হত্যা : সাক্ষীর জবানবন্দি পাল্টে ছেলেকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছে, অভিযোগ অমর্ত্যর বাবার

১৮ কোটি টাকা সহায়তা পেলেন দেড় হাজার পোশাক শ্রমিক

ইসি আইনের উদ্যোগকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে চায় বিএনপি: ওবায়দুল কাদের

মহামারি ফুরিয়ে যায়নি, আসছে নতুন ভেরিয়েন্ট: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণে অধিক ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে রংপুর বিভাগ

এক সপ্তাহে রোগী বেড়েছে ২২৮ শতাংশ: স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

লুটপাট ধামাচাপা দিতে ১৪ বছর ধরে ল‌বিস্ট নিয়োগ করেছে সরকার : বিএনপি

পপির এবার মেয়ের মা হওয়ার গুঞ্জন!

সেবা প্রকাশনীর প্রতিষ্ঠাতা কাজী আনোয়ার হোসেন মারা গেছেন

যুব বিশ্বকাপে ক্যারিবিয়ান বিশপের ‘সুপারম্যান ক্যাচ’ (ভিডিও)