রবিবার, ২৩শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৯ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

জমে উঠেছে সরাইলের উপজেলা নির্বাচন

saril upzilaআগামী ২৭ ফেব্রুয়ারি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলা পরিষদের নির্বাচন। এ নির্বাচনকে ঘিরে প্রচারণা এখন তুঙ্গে। বিগত সংসদ নির্বাচনে এখান ভোটাররা অধিকাংশই ভোট দিতে পারেন নি। এই নির্বাচনে ভোট দেয়ার ব্যাপক প্রস্তুতি ভোটারদের মাঝে। এই উপজেলায় বিএনপি আওয়ামীরীগ এবং নির্দরীয় প্রার্থীর মদ্যে ত্রিমুখী ভোট যুদ্ধ হবে বলে দাবী করছে ভোটাররা। আওয়ামীলীগের প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচনী আচরণ বিধি লঙ্গনের অভিযোগ রয়েছে এখানে।
সরাইল উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানপদে ২১জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। এর মধ্যে চেয়ারম্যান পদে ৯জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৭ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪ জন। নির্বাচনে বিএনপি চেয়ারম্যান পদে একক প্রার্থী দিতে পারলেও আওয়ামীলীগ থেকে প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন ৩জন। দলের একক প্রার্থীর বিরুদ্ধে লড়ছেন দলের ২জন বিদ্রোহী প্রার্থী।
চেয়ারম্যান প্রার্থীরা হলেন, বিএনপির একক প্রার্থী ও সরাইল উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট আব্দুর রহমান (কাপ পিরিজ)। আওয়ামীলীগের ঘোষিত একক প্রার্থী ও বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান রফিক উদ্দিন ঠাকুর (ঘোড়া), আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ও উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহবায়ক অ্যাডভোকেট জয়নাল উদ্দিন (আনারস), আওয়ামীলীগ নেতা মুখলেছুর রহমান (চিংড়ি মাছ)। জামায়াতের ইসলামীর উপজেলা আমীর মাওঃ কুতুব উদ্দিন (দোয়াত-কলম)। নির্দলীয় প্রার্থী মুক্তিযোদ্ধা ওসমান উদ্দিন আহমেদ খালেদ (মোটর সাইকেল), বিলকিস বেগম (টেলিফোন), মোঃ তাজুল ইসলাম ভূঁইয়া(ব্যাটারী) এবং মোঃ এস.এ.এম আল-আমীন আরেফিন (হেলিকপ্টার)।
ভাইস চেয়ারম্যান প্রাথীরা হলেন, আওয়ামীলীগের একক প্রার্থী ও বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ শাহজাহান মিয়া (বৈদ্যুতিক বাল্ব), আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী সাবেক ছাত্রলীগ নেতা শের আলম মিয়া(মাইক), বিএনপির আবু সুফিয়ান সিদ্দিকী (টিয়াপাখি), মোঃ জয়নাল আবেদীন (তালা) এবং জহির উদ্দিন আহমেদ(টিউবওয়েল), ইসলামী ঐক্যজোটের লাল বাদশা (উড়োজাহাজ) ও মোঃ ইসহাক( চশমা)।
মহিলা ভাইস চেয়াম্যান পদে আওয়ামীলীগের ঘোষিত একক প্রার্থী রোকেয়া বেগম(হাঁস), বিএনপির তাহমিনা আক্তার (প্রজাপতি),নির্দলীয় শামীমা আক্তার (ফুটবল) ও নির্দলীয় শিরিনা আক্তার (কলস)।
এদিকে বিএনপিতে চেয়ারম্যান পদে একক প্রার্থী থাকার কারনে উপজেলা বিএনপির নেতা-কর্মীরা ঐক্যবদ্ধভাবে তাদের প্রার্থীর পক্ষে কাজ করছেন। বিএনপির নেতা কর্মীরা জানায়, আমরা ঐক্যবদ্ধভাবে প্রার্থীর পক্ষে কাজ করছি। বিএনপির একক প্রার্থী ও সরাইল উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট আব্দুর রহমান বলেন, আমার পক্ষে ভোটরাদের মধ্যে যে আগ্রহ দেখেছি তাতে আমি জয়ী হবো ইনশাল্লাহ। তবে প্রতিপক্ষরা নানা ষড়যন্ত্র করছে বলে তিনি অভিযোগ করে নির্বাচনী প্রচারণায় আচরণ বিধি লঙ্গন এর বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ সহ নির্বাচনের দিন সংশ্লিস্টদের যথাযথ দায়িত্ব পালনের আহবান জানান। তিনি সর্বস্তরের ভোটারদের দোয়া ও সহযোগিতা কামনা করেন।
অপরদিকে আওয়ামীলীগের ৩জন প্রার্থী থাকার কারনে ৩জন প্রার্থীই তাদের সমর্থক নেতা-কর্মীদের নিয়ে মাঠে গন সংযোগ চালিয়ে যাচ্ছে। আওয়ামীলীগ ঘোষিত একক প্রার্থীদের পক্ষে ভোট চেয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাবেক একান্ত সচিব র.আ.ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী গত শনিবার উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে এক সভায় প্রচারণা চালিয়ে নির্বাচনী আচরণ বিধি লঙনের অভিযোগ এনেছেন খোদ আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থীরা।
গতকাল রবিবার চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ও ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট জয়নাল উদ্দিন বলেন, একজন সংসদ সদস্য হিসেবে মোকতাদির চৌধুরী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে রির্টানিং কর্মকর্তার দফতরের সামনে মাইকে প্রার্থীর পক্ষে প্রকাশ্যে ভোট চেয়েছেন। এটা নির্বাচনী আচরণ বিধি লঙন। এ ব্যাপারে কমিশনের কাছে লিখিত অভিযোগ দেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে। তিনি আরও বলেন, নিজ দলের নেতাকে প্রকাশ্যে খুনের দায়ে রফিক উদ্দিন ঠাকুরসহ অন্যদের এক সভার মাধ্যমে দল থেকে বহিস্কার করেন জেলার নেতারা। এ সভায় সাংসদ মোকতাদির চৌধুরীও উপস্থিত ছিলেন। একজন বহিস্কৃত ও বির্তকিত লোককে প্রার্থী হিসেবে স্থানীয় আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা মেনে নিচ্ছে না। তাই জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে আরো শক্তিশালী করার লক্ষ্যে আমি চেয়ারম্যান পদে ‘আনারস’ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছি। এখানকার দলের নেতা-কর্মী সকলেই আমার পক্ষে কাজ করছেন এবং আপামর জনতা আমার পক্ষে। আমি বিজয়ী হব ইনশাল্লাহ্ ।
ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী সাবেক ছাত্রলীগ নেতা মোঃ শের আলম বলেন, আমি জনগণকে সাথে নিয়ে নির্বাচন চালিয়ে যাব। জনসমর্থন বিবেচনা না করে দলের কয়েকজন নেতা এখানে বির্তকিত লোককে প্রার্থী হিসেবে সমর্থন দিয়েছে। এটা তৃণমূল ত্যাগী নেতা-কর্মী ও সমর্থকরা মেনে নিতে পারছে না।
উপজেলার বিভিন্ন এলাকার ভোটারের সাথে কথা বলে জানা গেছে, নির্বাচনে বিএনপির একক প্রার্থী অ্যাডভোকেট আবদুর রহমান, আওয়ামীলীগের একক প্রার্থী রফিক উদ্দিন ঠাকুর ও নির্দলীয় প্রার্থী মুক্তিযোদ্ধা ওসমান উদ্দিন আহমেদ খালেদের ত্রিমুখী প্রতিদ্বন্ধিতা হবে।