মঙ্গলবার, ৯ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৫শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ভাগ্যকেই দুষছেন মাশরাফি

52fbea7ce67b6-17শেষ বলে যখন প্রয়োজন ৩, বল হাতে কোনো পেসার, ব্যাটসম্যান কেমন বল আশা করতে পারেন?

ইয়র্কার, স্লো ডেলিভারি কিংবা স্লোয়ার বাউন্সার? ব্যাটসম্যানের ভাবনায় হয়তো থাকবে এমন কিছুই। থিসারা পেরেরা যে বলটি করলেন, ম্যাচের ওই পরিস্থিতিতে ব্যাটসম্যানের জন্য ছিল আদর্শ এক বল। কোমরের দিকে ধেয়ে আসা ফুলটস। অন্য কোনো সময় হয়তো চাইলে লেগ সাইডে যেকোনো দিকে পাঠাতে পারতেন এনামুল হক। কিন্তু শরীরের সবটুকু জোর দিয়ে হাঁকাতে গিয়ে বল আকাশে তুললেন এনামুল। ২২ গজে দাঁড়িয়েই ক্যাচটি নিলেন বোলার নিজেই। সম্ভাবনার মৃত্যু! কিন্তু ব্যাখ্যা?

মাশরাফি বিন মুর্তজার কোনো ব্যাখ্যা জানা নেই। ক্রিকেটীয় অনিশ্চয়তা আর ভাগ্যদেবীর সুদৃষ্টি না পাওয়াকেই আপাতত সান্ত্বনা মানলেন বাংলাদেশ-অধিনায়ক, ‘মঞ্চটা আদর্শই ছিল। সবচেয়ে সেট ব্যাটসম্যান স্ট্রাইকে ছিল, বোলার চাপে ছিল। সব আমাদের পক্ষেই ছিল। কিন্তু ভাগ্যটাকে পক্ষে পাইনি। আরেকটু বেশি মিসটাইমিং হলে হয়তো টপ এজ হয়ে চার হয়ে যেত। কিন্তু এমন জায়গায় লেগেছে যে, শুধু ওপরেই উঠেছে। খুবই দুর্ভাগ্যজনক। তবে বিজয়কে (এনামুল) কৃতিত্ব দিতেই হবে। ও একা না টানলে হয়তো অনেক আগেই শেষ হয়ে যেত ম্যাচ।’

ব্যাখ্যা না থাকার ব্যথায় হয়তো সান্ত্বনা খুঁজে পাওয়া গেল। কিন্তু আফসোস কি কমছে? এমন সুযোগ তো সব সময় পাওয়া যায় না। শেষ বলটির আগে ছোটখাটো একটা সভার মতো হয়ে গেছে বোলার থিসারাকে নিয়ে। কিন্তু বোলার যে প্রচণ্ড চাপে ছিলেন, সেটির প্রমাণ ওই ফুলটসই। আক্ষেপ কি একটুও পোড়াচ্ছে না? মাশরাফি আবারও সান্ত্বনা খুঁজে নিচ্ছেন ভাগ্যকে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে, ‘এমনটা আসলে হতেই পারে। আগের দুটি বলে দুটি চার মারার পর বোলার চাপে ছিল, বিজয় ভালো অবস্থায় ছিল। কিন্তু শেষ বলে টাইমিংটা হয়নি। আর একজন ব্যাটসম্যান আউট হয় তো টাইমিং না হলেই। খুবই দুর্ভাগ্যজনক, কিন্তু এসব ব্যাখ্যা করা মুশকিল। এর থেকে ভালো বলেও বিজয় চার মেরেছে, এই বলে হলো না। ভাগ্যটাই আসলে পক্ষে ছিল না।’

অমন একটা সুযোগ ছিল বলেই শেষ বলটা নিয়ে এত আলোচনা। কিন্তু বাংলাদেশের ইনিংস পথ না হারালে তো ম্যাচ শেষ বল পর্যন্ত গড়ানোরই কথা নয়! মাশরাফির মতে, সাকিব-নাসিরের আউট দুটিতেই বদলে গেছে গতিপথ, ‘যে সময়ে আমাদের মেরে খেলব বলে ভেবেছি, সে সময়ই উইকেট হারাতে হয়েছে। সাকিব, নাসির সবাই রানরেট বাড়াতে গিয়ে আউট হয়েছে। ওখানেই আমরা পিছিয়ে পড়েছি। নাসির যে শটটি খেলেছে, সেটি ছক্কা হলেই হয়তো ম্যাচের ফল অন্য রকম হতে পারত। আগেই জিতে যেতে পারতাম আমরা। শেষ দিকে আবার সেটা পুষিয়ে দিতে পেরেছিলাম অনেকটাই। কিন্তু মালিঙ্গার মতো বোলারের বলে ওভারে ১০-১২ করে নেওয়া কঠিন।’

তীরে গিয়ে তরী ডোবার দায় ভাগ্যকে দিয়ে আক্ষেপ আড়াল করতে চাইলেও পুরোটা কি আর করা যায়! সংবাদ সম্মেলনে মাশরাফির চোখে-মুখেই মিশে ছিল হতাশা। সেই হতাশাটা একপর্যায়ে লুকানওনি বাংলাদেশ অধিনায়ক। তবে খুব কাছে গিয়ে হার থেকে খুঁজে নিচ্ছেন ঘুরে দাঁড়ানোর রসদ, ‘হারাটা খুবই হতাশার। খুব কাছে গিয়েও শেষ করতে পারিনি আমরা, সবারই খুব খারাপ লাগছে। এক নম্বর দলকে হারানোর এত কাছেও গিয়েও পারলাম না, সবাই খুব কষ্ট পেয়েছে। তবে আমাদের এটি ইতিবাচকভাবে নিতে হবে। আরেকটি ম্যাচ আছে, ঘুরে দাঁড়াতে হবে।’

গত কিছুদিনে টি-টোয়েন্টি ধাঁধার জট খুলতে গিয়েও শেষে গিয়ে আটকে গেছে বাংলাদেশ। এবার শেষটাও ছিল খুব কাছে, বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে স্রেফ ভাগ্য। সেটি প্রসন্ন ছিল না বলেই না বেঁচে গেল বিশ্বের এক নম্বর টি-টোয়েন্টি দল!

স্কোর কা র্ড

টস: বাংলাদেশ 

শ্রীলঙ্কা 

রান বল ৪ ৬ কুশল ক এনামুল ব আরাফাত ৬৪ ৪৪ ৭ ১

দিলশান ব মাশরাফি ০ ৩ ০ ০

চান্ডিমাল ক ফরহাদ রেজা ব সাকিব ১৮ ১৫ ২ ১

সাঙ্গাকারা ক নাসির ক সাকিব ১১ ৬ ১ ০

প্রসন্ন ক নাসির ব আরাফাত ৪ ৪ ০ ০

ম্যাথুস রান আউট ১১ ১১ ০ ০

থিসারা অপরাজিত ১৯ ১৬ ০ ০

কুলাসেকারা ক শামসুর ব মাশরাফি ৩১ ২১ ১ ২

সেনানায়েকে অপরাজিত ০ ০ ০ ০

অতিরিক্ত (লেবা ৭, ও ৩) ১০

মোট ( ২০ ওভারে, ৭ উইকেটে) ১৬৮

উইকেট পতন: ১-৭ (দিলশান, ০.৬ ওভার), ২-৬১ (চান্ডিমাল, ৬.৫), ৩-৭৭ (সাঙ্গাকারা, ৮.১), ৪-৮৭ (প্রসন্ন, ৯.৫), ৫-১১৬ (কুশল, ১৩.৩), ৬-১২০ (ম্যাথুস, ১৪.৩), ৭-১৬৪ (কুলাসেকারা, ১৯.৪)।

বোলিং: মাশরাফি ৪-০-৪৩-২, সোহাগ ৩-০-২৯-০, রুবেল ৪-০-২৭-০ (ও ১), সাকিব ৪-০-২৭-২, আরাফাত ৩-০-১৭-২ (ও ১), ফরহাদ রেজা ২-০-১৮-০ (ও ১)।

বাংলাদেশ

তামিম ক ম্যাথুস ব থিসারা ৩০ ২৫ ৬ ০

শামসুর ক ও ব মেন্ডিস ২২ ১৫ ৪ ০

এনামুল ক ও ব থিসারা ৫৮ ৪৫ ৭ ০

সাকিব ব কুলাসেকারা ২৬ ১৭ ২ ১

নাসির ক থিসারা ব মালিঙ্গা ১৬ ১৩ ০ ১

মিঠুন ক ম্যাথুস ব কুলাসেকারা ০ ১ ০ ০

ফরহাদ রেজা রানআউট ৭ ৫ ১ ০

সোহাগ অপরাজিত ০ ০ ০ ০

অতিরিক্ত (বা ১, লেবা ৪, ও ১, নো ১) ৭

মোট (২০ ওভারে, ৭ উইকেটে) ১৬৬

উইকেট পতন: ১-৫২ (শামসুর, ৬.১), ২-৬৪ (তামিম, ৭.৬), ৩-১০৭ (সাকিব, ১৩.৩), ৪-১৩২ (নাসির, ১৬.৫), ৫-১৩৪ (মিঠুন, ১৭.২), ৬-১৫৮ (ফরহাদ রেজা, ১৯.৩), ৭-১৬৬ (এনামুল, ১৯.৬)।

বোলিং: মালিঙ্গা ৪-০-৩৪-১ (নো ১), কুলাসেকারা ৪-০-২৯-২, সেনানায়েকে ৩-০-২১-০ (ও ১), মেন্ডিস ৪-০-২৯-১, থিসারা ৪-০-৪২-২, প্রসন্ন ১-০-৬-০। 

ফল: শ্রীলঙ্কা ২ রানে জয়ী।

ম্যান অব দ্য ম্যাচ: কুশল পেরেরা।