বৃহস্পতিবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বিএনপির জামাত ত্যাগ নিয়ে নানা কৌতূহল

bnp-logo1সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের সমাবেশে ১৮ দলের অন্য শরিকরা থাকলেও জামাতসহ ইসলামপন্থী দলগুলোকে প্রকাশ্যে দেখা যায়নি
খোন্দকার কাওছার হোসেন : সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে গত সোমবার বিএনপির সমাবেশে ১৮ দলের শরিক জামাতে ইসলামী ও অন্যান্য ইসলামী দলগুলোকে প্রকাশ্যে দেখা না যাওয়ায় জনমনে কৌতূহল সৃষ্টি হয়েছে। রাজনৈতিক অঙ্গনেও গতকাল দিনভর এ নিয়ে চলে নানা আলাপ-আলোচনা। ১৮ দলের অন্য দলগুলো অংশ নিলেও ইসলামপন্থী দলগুলোর কোনো নেতাকে খালেদা জিয়ার পাশে মঞ্চে দেখা যায়নি। যেখানে এর আগের যে কোনো সভা-সমাবেশে জামাত-শিবিরের প্রধান্য ছিল চোখে পড়ার মতো। যুদ্ধাপরাধীদের কারামুক্তির দাবিতে বড় বড় ব্যানার, প্ল্যাকার্ডসহ সমাবেশের সামনের দিকে মঞ্চের সামনেই থাকতো তাদের অবস্থান। কিন্তু সোমবার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে কেন তাদের দেখা যায়নি, এর পেছনে কী কারণ রয়েছে তা নিয়ে চলছে বিশ্লেষণ। বিশ্লেষকরা মনে করছেন এর পেছনে তিনটি কারণ থাকতে পারে। কারো পরামর্শে, চাপে পড়ে কিংবা কৌশলগত কারণে জামাত ও অন্য ইসলামপন্থী দলগুলোকে সমাবেশে ডাকেনি বিএনপি। এ ক্ষেত্রে জামাত ত্যাগের জন্য সরকার যে শর্ত বিএনপিকে দিয়ে আসছে, বাধ্য হয়ে কিংবা কৌশলগত কারণে সে শর্ত অনেকটা পূরণ করতেই বিএনপি এটা করে থাকতে পারে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। জামাত ত্যাগ ও সহিংসতা পরিহারের চাপ পশ্চিমা দেশগুলোরও রয়েছে। সন্ত্রাস-সহিংসতা পরিহার করে সুস্থ ধারার রাজনীতি করলে মধ্যস্থতার মাধ্যমে আগাম নির্বাচনের ব্যবস্থা করার বিষয়ে কূটনীতিকদের
দূতিয়ালি এর পেছনে থাকতে পারে বলেও মনে করা হচ্ছে। বিশেষ করে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে ও পরে দেশব্যাপী ১৮ দলের ব্যাপক সহিংসতার ঘটনা সাধারণ মানুষের মনে বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করেছে। লাগাতার অবরোধ-হরতালে জনজীবন ও মানুষের রুটিরুজির পথ বিপর্যস্ত হওয়ায় বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলের প্রতি সাধারণ নাগরিকরা চরম বিরক্তি প্রকাশ করে। তারা ভীত-সন্ত্রস্ত হয়ে পড়ে। আর এসব সহিংস ঘটনার পেছনে প্রধান ভূমিকা পালন করে জামাত-শিবির। তাই যুদ্ধাপরাধ ও নাশকতার দায়ে অভিযুক্ত দলটির সঙ্গ ছেড়ে রাজনীতি করতে বিএনপির প্রতি চাপ দেশের অভ্যন্তর ও বহির্বিশ্ব থেকে দীর্ঘদিন ধরেই রয়েছে।
জামাত-শিবির নেতারা অবশ্য বলছেন যে, সোমবারের গণসমাবেশে তাদের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিল। তবে তারা অন্যান্য সমাবেশের মতো ব্যানার-ফেস্টুন বহন করেনি। এটা কৌশলেরই একটি অংশ এবং এতে জোটের প্রধান দল বিএনপির সঙ্গে তাদের সম্পর্কে কোনো ফাটল ধরেনি।
এ প্রসঙ্গে জামাতের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য সৈয়দ আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ তাহের বলেন, বিএনপি যে সিদ্ধান্তই নিক না কেন এটি আমাদের সম্পর্ককে ক্ষতিগ্রস্ত করবে না। বিএনপির সঙ্গে পরামর্শ করেই আমরা সমাবেশে যোগ না দেয়ার সিদ্ধান্ত নিই। তিনি আরো বলেন, জামাত-শিবিরের নেতাকর্মীরা সোমবার সারাদেশেই ব্যানারসহ ১৮ দলীয় জোটের সমাবেশে অংশ নেয়। তবে ঢাকার সমাবেশ তারা এড়িয়ে চলে।
তবে শিবিরের সহকারী প্রচার সম্পাদক জামাল উদ্দিন বলেন, আমাদের নেতাকর্মীরা ঢাকার সমাবেশে অংশ নিলেও কৌশলগত কারণে কোনো ধরনের ব্যানার বা প্লেকার্ড তারা বহন করেনি।
সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের সমাবেশ প্রসঙ্গে ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ নেজামী গতকাল রাতে ভোরের কাগজকে বলেন, সমাবেশে আমাদের লোকজন ছিল। তবে ব্যক্তিগত কারণে আমি উপস্থিত ছিলাম না। তিনি আরো বলেন, সংলাপে বসার জন্য সরকার জামাত ছাড়ার শর্ত দিয়েছে। বিএনপি জামাতও ছাড়বে না আর সংলাপও হবে না।
১৮ দলীয় জোটে কোনো ভাঙন দেখা দিচ্ছে কিনাÑ এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমি কোনো ভাঙন দেখছি না। তবে পত্রিকায় ভাঙনের সংবাদ দেখি। বাস্তবে দেখছি না।
এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সাবেক সেনাপ্রধান লেফটেন্যান্ট জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান ভোরের কাগজকে বলেন, রাজনীতিতে প্রতিযোগিতা ও কৌশল থাকবেই। বিএনপি তার অবস্থানে থেকে জামাত নিয়ে কৌশল পাল্টাতে পারে। কৌশল আন্দোলনেরই অংশ। সময় হলেই জানা যাবে বিএনপির পরবর্তী কৌশল কী? তিনি দাবি করেন আলাপ-আলোচনা-সমঝোতাও রাজনীতিরই অংশ।
এদিকে কোনো সমঝোতার লক্ষ্যে সরকারও প্রধান বিরোধী দল বিএনপির প্রতি অনেকটা নমনীয় হয়েছে বলেই প্রতীয়মান হচ্ছে। হরতাল, অবরোধসহ রাজনীতির চলমান হিংসাত্মক পথ থেকে ফিরে আসছে বিএনপি। নতুন করে কোনো ধ্বংসাত্মক কর্মসূচি না দেয়ায় এ অবস্থানকে সরকারের পক্ষ থেকেও দেখা হচ্ছে ইতিবাচকভাবে। ফলে দলটির ব্যাপারে হার্ড লাইন থেকে সরে এসে অনেকটাই নমনীয় সরকার। যার কারণে সভা সমাবেশসহ অবাধে চলছে বিএনপির রাজনৈতিক এবং সাংগঠনিক কার্যক্রমও।
আওয়ামী লীগের গত সরকারের শেষ দুবছরে সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে একটির পর একটি রাজনৈতিক কর্মসূচি পালন করে তখনকার জাতীয় (নবম সংসদ) সংসদের প্রধান বিরোধী দল বিএনপি। হরতাল অবরোধসহ নানান ধ্বংসাত্মক কর্মসূচি ছিল তাতে।
গত বছর ২৫ নভেম্বর দশম সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। সে নির্বাচন প্রতিহতের ঘোষণা দিয়ে পরদিন ২৬ নভেম্বর থেকে লাগাতার অবরোধ ও হরতাল কর্মসূচি ঘোষণা করে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোট। ধ্বংসাত্মক সে কর্মসূচিতে সারা দেশে শতাধিক লোক প্রাণ হারান। পিকেটার নামধারী জামাত-শিবির কর্মীদের পেট্রলবোমা হামলায় ঝলসে যায় নিরীহ ড্রাইভার ও নারী-পুরুষ শিশুসহ অসংখ্য বাসযাত্রী।
এরই মধ্যে গত ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর দ্বিতীয় মেয়াদে সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট। ভোটারবিহীন নির্বাচন দাবি করে তা বাতিলের দাবিতে আন্দোলনের শেষ চেষ্টা চালায় বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোট।
সে আন্দোলনে সাধারণ মানুষের অংশগ্রহণ না থাকায় এবং জঙ্গিদের সম্পৃক্ততা থাকায় দেশে বিদেশে তা গ্রহণযোগ্য হয়নি বরং তা নিন্দনীয় কর্মসূচি হিসেবে চিহ্নিত হয়। জনগণ বিরোধী দলের আন্দোলনে সারা না দিয়ে অবরোধ কর্মসূচি প্রত্যাখ্যান করে রাজপথে নেমে আসে।
জনগণের এ মনোভাবের কারণে সরকারও বিরোধী দলের হিংসাত্মক কর্মসূচির ব্যাপারে কঠোর অবস্থান গ্রহণ করে। বিরোধী দলের অনেক নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়। মামলার আসামি হন কয়েক হাজার নেতাকর্মী। নিজ বাড়িতে অবরুদ্ধ হন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। আন্দোলনের মাঠ ছেড়ে পালিয়ে বাঁচার কৌশল নেন বিরোধী দলের নেতাকর্মীরা। ভারপ্রাপ্ত মহাসচিবসহ সিনিয়র নেতারা আত্মগোপনে চলে যান। বাধ্য হন ভিডিও বার্তার মাধ্যমে কর্মসূচি ঘোষণা করতে। তাতেও রেহাই হয় না বিরোধীদলীয় নেতাদের। একের পর এক নেতাকে গ্রেপ্তার করা হয়। রিমান্ড মঞ্জুর করা হয় কারো কারো ক্ষেত্রে। এমন প্রেক্ষাপটে রণেভঙ্গ দেন বিরোধী দল বিএনপি ও ১৮ দলের নেতাকর্মীরা।
এমন প্রেক্ষাপটে নতুন কৌশল নেয় বিরোধী দল বিএনপি। ঢাকায় কর্মরত বিদেশী কূটনীতিকদের মাধ্যমে সরকারের সঙ্গে সমঝোতা করার চেষ্টা চালায়। এতে সফলও হয় দলটি। সমঝোতার অংশ হিসেবে অবরুদ্ধ খালেদা জিয়া নিজ বাসভবন থেকে বের হয়ে গুলশান কার্যালয়ে অফিস করার সুযোগ পান। প্রায় দেড় মাস অবরুদ্ধ নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয় খুলে দেয়া হয়। সেখানে বিনা বাধায় প্রবেশ করে দাপ্তরিক কাজ করার সুযোগ পান দলের তিন সহ-দপ্তর সম্পাদকরা। আত্মগোপনে থাকা ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর হাইকোর্ট থেকে আগাম জামিন পান। তিনিও নয়াপল্টন কার্যালয়ে যান কোনোরকম বাধা ছাড়াই।
এছাড়া হোটেল ওয়েস্টিনে সংবাদ সম্মেলন করে জনসভা ও কালো পতাকা মিছিলের মতো নতুন কর্মসূচি ঘোষণাসহ দলের বক্তব্য তুলে ধরেন খালেদা জিয়া। গত ২০ জানুয়ারি সোমবার বিকালে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জনসভা করার সুযোগ দেয়া হয় খালেদা জিয়াকে। অবশ্য সেখানে বিতর্কিত দল জামাতে ইসলাম বা ইসলামী কোনো দলকে দেখা যায়নি। এটা সমঝোতার অংশ বলেই মনে করেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।
দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান দেশে ফিরে এসে আত্মসমর্পণ করলে আদালত থেকে জামিন পাবেন এমনটা জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী। কারারুদ্ধ সিনিয়র নেতা ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, রফিকুল ইসলাম মিয়া, এম কে আনোয়ার, আবদুল আউয়াল মিন্টু, শিমুল বিশ্বাসের জামিন হয়েছে। সাদেক হোসেন খোকা, মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিনসহ অন্যদের জামিনের সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। ইতোমধ্যে কারাগার থেকে বের হয়েছেন ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান।
রাজনীতিতে সরকারি দল ও বিরোধী দলের এমন অলিখিত সমঝোতার কারণেই হিংসার রাজনীতি থেকে নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতিতে ফিরে এসেছে বিরোধী দল বিএনপি। আগামী ২৯ জানুয়ারি কালো পতাকা মিছিল করবে বিএনপি। সে কর্মসূচি শান্তিপূর্ণ হবে এমন দাবি করে খালেদা জিয়া সে কর্মসূচিতে বাধা না দেয়ার জন্য ইতোমধ্যেই সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম গতকাল মঙ্গলবার দলীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, খালেদা জিয়া বর্তমান সরকারকে অবৈধ বলেও সরকারের সঙ্গে আলোচনা চান। কিন্তু তারেক রহমান আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার পক্ষে। আমরা বুঝি না ওই দলের লেজ কে? আর মাথা কে? সেটা ঠিক করতে পারলে আমরা বুঝবো কার কথার গুরুত্ব দেবো।