বুধবার, ২৮শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

কাদের মোল্লার ফাঁসিতে পাকিস্তানি সংসদে শোক!

PK Parlamentবাঙালি জাতি যখন সোমবার বিজয়ের উৎসবে মেতে উঠেছে, তখন পাকিস্তানের সংসদের ঘটে চলেছে অন্য ঘটনা।

১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে মানবতাবিরোধী অপরাধে জড়িত থাকার দায়ে ১২ ডিসেম্বর জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল কাদের মোল্লার ফাঁসি কার্যকর করা হয়।

এর আগে জাতিসংঘের মহাসচিব ও মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি এবং অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল মানবাধিকারের দোহাই দিয়ে কাদের মোল্লাকে ফাঁসি না দেওয়ার আহ্বান জানায়।

কিন্তু বাঙালি জাতি এ অন্যায় আবদারকে কোনো পাত্তাই দেয়নি। কারণ, ১৯৭১ সালে বাঙালি জাতিকে বিনাবিচারে, নিরীহ নারী-পুরুষ এমনকি শিশুদেরও হত্যা করেছে কাদের মোল্লার দল জামায়াতে ইসলামী। এমনকী কাদের মোল্লা নিজেও হত্যা ও ধর্ষণের সঙ্গে জড়িত ছিলেন।

সোমবার পাকিস্তানি সংসদে সে দেশের জামায়াতে ইসলামীর সংসদ সদস্য শের আকবর খান একটি বিল আনেন। তাতে বাংলাদেশের জামায়াতে ইসলামীর নেতাদের বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধে জড়িত থাকার মামলা তুলে নিতে বলা হয়। এ ছাড়া ১৯৭১ সালে ঘটে যাওয়া ইস্যুটি সামনে না আনার দাবি জানায় সে দেশের সংসদ।

এ বাদেও কাদের মোল্লার পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানানো হয়। সেদেশের সংসদে এই বিলটি শেষ পর্যন্ত পাসও হয়।

পাকিস্তানির টেলিভিশন চ্যানেল জিও টিভির বরাত দিয়ে সে দেশের ‘ইন্টারন্যাশনাল দি নিউজ’ অনলাইন ভার্সনে এ বিষয়ে সংবাদ প্রকাশ করে।

খবরে বলা হয়, সংসদে এ সময় পাকিস্তানের অভ্যন্তরীণ মন্ত্রী চৌধুরী নিসার আলী খান সরকারের পক্ষে জামায়াতের বিলটিকে সমর্থন জানান। তবে দ্য পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি) ও মুত্তাহিদা কওমি মুভমেন্ট (এমকিউএম) এই বিলের বিরোধিতা করে।

সংসদে দাঁড়িয়ে বিলটির সমর্থনে নিসার আলী বলেন, “আমরা বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বকে সম্মান জানাই। তবে বাংলাদেশের ‘ক্ষমা ও ভুলে যাওয়ার’ নীতি গ্রহণ করা উচিত।”

তিনি কাদের মোল্লার ফাঁসিকে ‘হত্যা’ উল্লেখ করে বলেন, “কাদের মোল্লার  ফাঁসি একটা নিছক ‘বিচারিক হত্যা’।”

মন্ত্রী নিসার আলী কাদের মোল্লার প্রতি সমবেদনা জানিয়ে বলেন, ‘কাদের মোল্লা মৃত্যুর আগ পর্যন্ত অখণ্ড পাকিস্তানের সমর্থক ছিলেন এবং তা তিনি নিজের মুখেই বলেছিলেন।’

তিনি এ সময় সংসদকে জানান, কাদের মোল্লার ফাঁসিতে পাকিস্তানিরা শোকাহত।

এদিকে, নিসার আলী যখন জামায়াতের বিলটির সমর্থনে বক্তব্য রাখছিলেন, তখন পিপিপি ও এমকিউএম তার বক্তব্যের প্রতিবাদ জানায়।

এ সময় পিপিপির সংসদ সদস্য আব্দুল সাত্তার বাচানি দাঁড়িয়ে নিসার আলীর বক্তব্য এবং বাংলাদেশের জামায়াত নেতার ফাঁসির বিষয়ে অনির্ধারিত বিল উত্থাপনের বিরোধিতা করেন।

এ সময় তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের মতো স্বাধীন একটা দেশের সিদ্ধান্তের বিরোধিতা আমরা করতে পারি না।’

তিনি সংসদে পাল্টা প্রশ্ন তুলে বলেন, ‘এই কাদের মোল্লা  হাজার হাজার বাঙালি হত্যার দায় কি এড়াতে পারেন?’

তিনি নিজ দলের (পিপিপি) প্রতিষ্ঠাতা জুলফিকার আলী ভুট্টোর সম্পর্কেও বলেন, ‘জুলফিকার আলী ভুট্টো নিজেও বাঙালি নিধনের অভিযোগে অভিযুক্ত।’

এ জাতীয় আরও খবর

আরাকান আর্মির হামলায় রাখাইনে ৮০ জান্তা সেনা নিহত

নির্বাচন নিয়ে মানুষের অনাস্থাবোধ দূর হয়নি: সংসদে মেনন

প্রতিমন্ত্রী বললেন, ‘পণ্যের দাম বাড়লেও মানুষের ক্রয় ক্ষমতা বাড়ছে’

নাভালনিকে শেষ শ্রদ্ধা জানানোর জায়গা দিচ্ছে না কেউ

বইমেলার সময় বাড়ছে আরও ২ দিন

শাহজাহানপুরে আবাসিক ভবনে দুই দফা বিস্ফোরণ, বাবা-মেয়েসহ দগ্ধ ৭

রোহিঙ্গাদের জন্য ৬৯ মিলিয়ন ডলারের সহায়তা দিচ্ছে জাপান

আফগানিস্তানে দুই হাজার মানুষের সামনে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর

ওষুধ ও হার্টের রিংয়ের দাম কমাতেই হবে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

বুধবার ১৫ ঘণ্টা গ্যাস থাকবে না যেসব এলাকায়

সংরক্ষিত আসনের এমপিদের গেজেট প্রকাশ

দুর্ঘটনায় প্রাণ হারালেন জনপ্রিয় অভিনেত্রীসহ ৯ জন