শনিবার, ২৯শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

গিনেস বুকে স্থান করে নেয়ার গৌরব

recordবিগত শতাব্দীতে আমাদের শ্রেষ্ঠ অর্জন একাত্তরের স্বাধীনতা। আর এই স্বাধীনতা অর্জিত হয়েছিল ডিসেম্বরে। দীর্ঘ নয় মাসের রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধের শেষ প্রাšেত্ম ১৬ ডিসেম্বর এদেশের দামাল ছেলেরা জগৎসেরা সেনাবাহিনীকে আত্মসমর্পনে বাধ্য করে বিশ্বের বুকে এক রেকর্ড সৃষ্টি করেছিল।

 

এই ডিসেম্বরেই এ জাতির অর্জন অনেক। গণতন্ত্রের লড়াইয়েও এ মাসেই জয়ী হয়েছিল এ জাতি। ১৯৯০ সালের ৬ ডিসেম্বর স্বৈরাচারের পতন ঘটিয়ে গণতন্ত্রের যাত্রা শুরু হয়। আবার এই ডিসেম্বরেই ৪২ বছরে যা করতে পারেনি তা করেছে এই জাতি। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ও বিচারের রায় কার্যকর হয়েছে এই ডিসেম্বরেই।

 

বিজয়ের এই মাসে বিশ্বের সর্ববৃহৎ জাতীয় পতাকা তৈরি করে বাংলাদেশ একটি রেকর্ড করতে যাচ্ছে। ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবসে শেরে বাংলা নগরে ন্যাশনাল প্যারেড গ্রাউ-ে এই মানব পতাকা তৈরি করা হবে। বাংলাদেশ সেনাবাহিনী, স্কুলের শিক্ষার্থী ও সাধারণ মানুষের অংশ গ্রহণে ত্রিশ হাজার স্বেচ্ছাসেবী এ পতাকা তৈরিতে অংশ নেবেন। চার কোনা লাল আর সবুজ প্লাকার্ড উচিয়ে এই পতাকাটি তৈরি করা হবে।

 

মোবাইল ফোন কোম্পানী রবি এর আয়োজন করছে। এ আয়োজন শুধু বিজয় দিবস উদযাপন নয়; এর মাধ্যমে বিশ্বের সামনে বাংলাদেশের মানুষের আত্মশক্তি ও ঐক্য তুলে ধরা হবে বলে জানিয়েছে আয়োজকরা।

 

লাল সবুজ প্লাকার্ড উচিয়ে তৈরি এই পতাকাই হবে বিশ্বের সর্ববৃহৎ পতাকার রেকর্ড। এর আগে ২০১২ সালে পাকি¯ত্মানের লাহোর জাতীয় হকি স্টেডিয়ামে পাঞ্জাব ইয়থ ফেস্টিভালে ২৪ হাজার ২০০ লোকের অংশ গ্রহণে সর্ববৃহৎ মানব রচিত পতাকার রেকর্ড ছিল।

 

বাংলাদেশ ত্রিশ হাজার লোকের অংশ গ্রহণে সর্ব বৃহৎ পতাকা তৈরি করে গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসেও স্থান করে নেবে। গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে জায়গা করে নেয়ার মত আরও একটি বিশ্ব রেকর্ডের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ১৫১টি আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোটের প্রার্থীরা। শুধু বাংলাদেশ নয়, বিশ্বের ইতিহাসেও এমন ঘটনা আর ঘটেনি। ৩০০ আসনের সংসদে ১৫১ জন, অর্থাৎ সরকার গঠন করার মত সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়ে যাচ্ছে মহাজোট কোন ভোট ছাড়াই।

 

এর আগে ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারীর নির্বাচনে ৪৮ জন এবং ২০১১ সালে বাতিল হওয়া ২২ জানুয়ারীর নির্বাচনে ১৭ জন বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় নির্বাচিত হওয়ার রেকর্ড আছে।

 

এবারের নির্বাচনের গ্রহণযোগ্যতা কতটা আছে তা নিয়ে বিভিন্ন মহল এমন কি কূটনৈতিক মহলে নানা প্রশ্ন উঠলেও সরকার সংবিধানিক বাধ্যবাধকতায় এ নির্বাচন করতে যাচ্ছে। আর এই নির্বাচনকে ঘিরে প্রতিদিন রাজপথ রক্তে লাল হচ্ছে, মানুষ পুড়ছে, সম্পদের ক্ষতি হচ্ছে। তবুও সরকার বলছে, বিএনপি অংশ না নিলেও নির্বাচন হবে এবং জনগণ তা গ্রহণ করবে। কিন্তু সত্যিই কি এই নির্বাচন জনগণ গ্রহণ করছেন, সত্যিই কি বিএনপি বা ১৮ দলীয় জোট ছাড়া বাকি সব দল এ নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন– এসব প্রশ্ন এখন সাধারণ মানুষের। কারণ বিএনপি বা ১৮ দলীয় জোট ছাড়া বাকি সব দল এ নির্বাচনে অংশ নিলে ১৫১টি আসনে প্রতিদ্বন্দী প্রার্থী খুঁজে পাওয়া যায়নি কেন? সংখ্যাগরিষ্ঠ প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় নির্বাচিত হওয়ার মত ঘটনাই বা ঘটল কেন?

 

সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা কি? আওয়ামী লীগের তীব্র আন্দোলনের মুখে বহু লাশের বিনিময়ে ত্রয়োদশ সংশোধনীর মাধ্যমে তত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা প্রবর্তনে বাধ্য হয়েছিল বিএনপি সরকার। আর ওই সংবিধানের আলোকেই তত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন ছিল সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা। আর আজ এই আওয়ামী লীগই সরকারে থেকে সংবিধানে আরও একটি সংশোধনী এনে দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনকে করেছে সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা। সংবিধানে পঞ্চদশ সংশোধনীর জন্য কোন রক্ত দিতে হয়নি। তবে এই সংশোধনীর বিরুদ্ধে আন্দোলন করতে গিয়ে এখন অনেক রক্ত ঝরছে। প্রতিদিন লাশ পড়ছে। পঙ্গুত্বকে বরণ করে নিচ্ছেন অনেকে। তবুও সরকার সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতায় নির্বাচনের নামে একটি সিলেকশনের দিকে যাচ্ছে।

 

তাহলে কি দেশ সংবিধানকে ধারণ করে অব্যাহত সহিংসতার দিকে এগিয়ে যাবে, সব দলের অংশ গ্রহণে একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচন করবে, নাকি গিনেস বুকে স্থান করে নেয়ার জন্য ১৫১ আসনে বিনা প্রতিদ্বšিত্মায় নির্বাচিত হওয়ার এক বিরল নজির স্থাপন করবে?

এ জাতীয় আরও খবর

রংপুরে করোনা শনাক্তের হার বাড়ছে  : একদিনে সর্বোচ্চ  ৪৩৮ জন

রংপুর নগরীর প্রধান সড়কগুলো চার্জার ও অটো রিকশার দখলে

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি নির্বাচনের পূর্ণাঙ্গ ফল

ইতালিতে হাইপোথার্মিয়ায় আক্রান্ত হয়ে সাত বাংলাদেশির মর্মান্তিক মৃত্যু ঘটেছে : দূতাবাস

সাড়ে ৪ ঘণ্টা পর পোশাক কারখানার আগুন নিয়ন্ত্রণে

রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ নিয়ে শঙ্কিত বলেই ষড়যন্ত্র-অপপ্রচারে বিএনপি : তথ্যমন্ত্রী

কাদের টাকায় লবিষ্ট নিয়োগ, ফখরুলকে কাদের

শাবিপ্রবি উপাচার্য ক্যাম্পাস ত্যাগ না করা পর্যন্ত আন্দোলনের ঘোষণা

রাতে তাপমাত্রা কমতে পারে

ফল ঘোষণা হয়নি, বাইরে বিজয়ের গুজব

রাত ৮টার পর রাজশাহীতে বন্ধ থাকবে সব দোকান

জোড়া সেঞ্চুরির ম্যাচে ঢাকার মধুর প্রতিশোধ