বৃহস্পতিবার, ২৭শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বিজয়ের মাসে মানুষের প্রার্থনা

BangladeshGenocideনির্বাচনে অনুকূল পরিবেশ তৈরি আর সংলাপে উৎসাহ যোগাতে ঢাকায় জাতিসংঘের রাজনীতি বিষয়ক সহকারী মহাসচিব অস্কার ফার্নান্দেজ তারানকোর মিশন শুরু হলেও দুই দলের মনোভাব এখনো অনড় রয়েছে। শুক্রবার রাতে তারানকো তৃতীয় দফা ঢাকায় এসেছেন।

 

জাতিসংঘের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, বাংলাদেশে ৫ জানুয়ারী সংসদ নির্বাচনের যে তারিখ রয়েছে, সেই নির্বাচনের অনুকূল পরিবেশ তৈরি এবং দলগুলোর মধ্যে মতপার্থক্য দুর করে সংলাপে উৎসাহ যোগাতেই মি. তারানকোর চারদিনের এই সফর।

 

তার সফর নিয়ে আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতা ও মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বিবিসি বাংলাকে বলেছেন, নির্বাচনের শিডিউল ঘোষণা হয়েছে, মনোনয়ন পত্র বাছাই শেষ ও এখন তা প্রত্যাহারের তারিখ এসে গেছে।  বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অনেকে নির্বাচিত হয়েছে। তো ছাড় দেয়ার একটা সময় থাকে। সংলাপের পরিবেশ আছে কী না কারণ শিডিউল ঘোষণা করা হয়েছে। তারপরও  জাতিসংঘের রাজনীতি বিষয়ক সহকারী মহাসচিব অস্কার ফার্নান্দেজ তারানকোর সঙ্গে তার দলের পক্ষ থেকে সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হবে বলে আশ্বাস দেন তোফায়েল আহমেদ।

 

অন্যদিকে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শমসের মুবিন চৌধুরী বলেছেন, রাজনৈতিক সদিচ্ছার ওপর নির্ভর করে ছাড় দেয়া না দেয়া। তবে এ বিষয়ে বলা মুস্কিল। দেখি জাতিসংঘের রাজনীতি বিষয়ক সহকারী মহাসচিব অস্কার ফার্নান্দেজ তারানকো কি বলেন। তবে তিনি মনে করেন, শনিবার থেকে তৃতীয় দফা অবরোধ কর্মসূচী শুরু হলেও তা তারানকোর সফরে কোনো প্রভাব পড়বে না। এটা আন্দোলনের কর্মসূচী এবং এর পাশাপাশি তারানকোর সঙ্গে বিভিন্ন মহলের আলোচনা চলবে।

 

তারানকো তার মিশন শুরু করেছেন, প্রধান দুই দলের অনড় অবস্থান পরিবর্তন করে সংলাপে উৎসাহ যোগাতে। তিনি চেষ্টা করবেন দুই দলের মধ্যে মতপার্থক্য কমিয়ে এনে সংলাপের অনুকূল পরিবেশ তৈরি করতে। আর তা না হলে তিনি সার্বিক বিষয় জাতিসংঘের মহাসচিবকে জানাবেন। তবে সংলাপের ব্যাপারে তারানকো সর্ব্বোচ্চ গুরুত্বারোপ করলেও দুই দলের মধ্যে ছাড় দেয়ার ব্যাপারে অনড় অবস্থান অব্যাহত রয়েছে। বিএনপি এখনো নির্দলীয় ব্যক্তির অধীনে নির্বাচনের দাবি থেকে সরে আসেনি। অন্যদিকে পদত্যাগ করে গ্রহণযোগ্য ব্যক্তির অধীনে নির্বাচন করার কোনো চিšত্মা করছে না আওয়ামী লীগ। এমত অবস্থায় ভারতের পররাষ্ট্র সচিব সুজাতা সিং’এর মত হয়ত তারনকোকে বলতে হবে গ্রহণযোগ্য নির্বাচনে সবদলের অংশগ্রহণ জরুরি।

 

সফরকালে তারানকো সরকার, বিরোধী দল, সংসদ সদস্য, নাগরিক সমাজ, কূটনীতিক এবং নির্বাচন সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন পক্ষের সাথে কথা বলবেন। তারানকো এমন সময়ে বাংলাদেশ সফর করছেন, যখন শনিবার থেকেই পার্লামেন্ট নির্বাচনের সময় নির্দলীয় সরকারের দাবিতে বিএনপি নেতৃত্বাধীন বিরোধী জোটের তৃতীয় দফার অবরোধ শুরু হচ্ছে। এর আগে দু’দফা অবরোধ চলার সময় সংঘর্ষ আর হামলায় অর্ধশতাধিক ব্যক্তি নিহত হয়েছে। পুলিশের গুলি, সহিংসতা ও বাসে আগুন দেয়ার মত নাশকতার মত ঘটনায় প্রাণহানির মত ঘটনা ঘটছে।  

 

এর আগেও গত বছরের ডিসেম্বর এবং এ বছরের মে মাসে দুই দফায় বাংলাদেশ সফর করেন তারানকো। সে সময় তিনি নির্বাচনকালীন সরকার প্রশ্নে দলগুলোর মতপার্থক্য নিয়ে সরকার ও বিরোধী দলসহ বিভিন্ন পক্ষের সাথে আলোচনা করেন। এরই ধারাবাহিকতায় তারানকো বৃহস্পতিবার রাতে ঢাকায় আসেন। তৃতীয় দফার এই সফরে ১০ ডিসেম্বর পর্যন্ত তিনি ঢাকায় থাকবেন।

 

বাংলাদেশ সফর শেষে তারানকো সরকারি ও বিরোধী দলের অবস্থান সম্পর্কে জাতিসংঘকে অবহিত করবেন। কিন্তু রাজনৈতিক সংকট নিয়ে ফয়সালা না হলে দেশের চলমান রাজনৈতিক সংকট আরো গভীর থেকে গভীরতর হবে। প্রতিদিনই ঘটছে নাশকতা, প্রাণহানি। হরতাল-অবরোধে দেশের অর্থনীতি হুমকির সম্মুখীন। নাগরিক জীবনের উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা এখন ভয় আর আতঙ্কে রূপ নিয়েছে। ছয় দিনের লাগাতার অবরোধে নিত্যপ্রয়োজনীয় প্রতিটি পণ্যের দাম লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়েছে। মাঠে নামতে পারছেন বলে গ্রেপ্তার আতঙ্কে অজ্ঞাত স্থান থেকে পাঠানো ভিডিওবার্তায় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব আবার শনিবার ভোর ৬টা থেকে লাগাতার ৭২ ঘণ্টার অবরোধ কর্মসূচি ঘোষণা করেছেন। সেই ৭২ ঘণ্টায় আরো কত যানবাহনে আগুনে পুড়বে, কত ট্রেন দুর্ঘটনাকবলিত হবে এবং কত প্রাণ ঝরে যাবে, তার দায় রাজনীতিবিদরা নিতে চাইবেন না। কারণ তাদের প্রয়োজন ক্ষমতা। কিন্তু যাদের ‘সেবা’ করার জন্যে এ ক্ষমতা তারা খাদের কিনারা থেকে কি আরো গভীর খাদেই নিমজ্জিত হবে?

 

ক্ষমতার রাজনীতিতে চমকের পর চমক দেখিয়ে যাচ্ছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ। তিনি নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন। অন্তর্র্বতী সরকারে থাকা জাতীয় পার্টির সদস্যদের পদত্যাগেরও নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। যদিও গতকাল সন্ধ্যা পর্যন্ত তাঁরা কেউ পদত্যাগ করেননি। নিজের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহর করেননি এরশাদ। এখনো শেষ খেলা খেলেননি এরশাদ।

 

অন্যদিকে সরকার নির্বাচন করেই ছাড়বেন বলে প্রধান বিরোধী দলবিহীন নির্বাচনের গ্রহণযোগ্যতা ক্রমশ কমে যাচ্ছে। জাতীয় পার্টি নির্বাচনে শেষ পর্যšত্ম যাবে কী না তা নিয়ে সংশয় থাকলেও কথিত সর্বদলীয় সরকারের অন্যদলের নেতারা নিশ্চুপ। কারণ নৌকার ব্যানারে তারা ফের সংসদ সদস্য নির্বাচিত হতে পারলেই খুশি। এজন্যে এলাকায় যেয়ে ভোটারদের কাছে ভোট চাওয়ার প্রয়োজন পড়বে না। নির্বাচন হওয়ার আগেই ৩২ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। এরশাদা এলে এ সংখ্যা ৮০ ছাড়িয়ে যাবে। গ্রহণযোগ্য নির্বাচন কী না এ নিয়ে অšত্মত সরকার কোনো মাথা ঘামাচ্ছে বলে মনে হয় না।

 

সরকারি দল বলছে, ঘোষিত তফসিল অনুযায়ীই নির্বাচন করতে হবে। তফসিলের পরিবর্তন তারা মেনে নেবে না। অন্যদিকে বিরোধী দল এখনো নির্দলীয় সরকারের দাবিতে একের পর এক কর্মসূচি দিয়ে বলছে তা আরো কঠোর হবে। গণতান্ত্রিক আন্দোলনের পথ ছেড়ে দেশের রাজনীতি ক্রমেই নাশকতার পথে ধাবিত হচ্ছে। দুটি দলের পক্ষ থেকে মাঝেমধ্যে সংলাপের কথা বলা হলেও এটি এখন স্পষ্ট যে কোনো দলই প্রকৃতপক্ষে সমঝোতা চায় না। তারা কেবল একে অপরকে কাবু করতে চায়। এ অবস্থায় জাতিসংঘের সহকারী মহাসচিব অস্কার ফার্নান্দেজ তারানকো আর কতটুকুই বা করতে পারবেন।

 

অথচ রাজনৈতিক সংকট দূর করতে সমঝোতার লক্ষ্যে শেষ আন্তর্জাতিক এ উদ্যোগ ব্যর্থ হলে সংঘাত-সংঘর্ষ-নাশকতা যে অবস্থায় চলে যাবে তাকে স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনা প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়বে। গণতন্ত্র বিপন্ন হবে। জঙ্গিবাদ, চরমপন্থা ও অশুভ শক্তির বিস্তার ঘটবে। বাংলাদেশ হয়তো তখন আফ্রিকার সংঘাতমুখর দেশগুলোর কাতারে চলে যাবে। বিজয়ের মাস ডিসেম্বরে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণ করে আমরা কি এটাই চাইব। এটাই কি আমাদের কাম্য!

 

রাজনীতিবিদদের প্রতি দেশের মানুষের শ্রদ্ধাবোধ যদি তলানিতে নেমে আসে তাহলে দলনিরপেক্ষ ও লেজুরবৃত্তিহীন নাগরিক সমাজের এগিয়ে আসা উচিত। এটা বুঝতে কারো কষ্ট হওয়ার কথা নয়। কারণ সহিংসতা দীর্ঘস্থায়ী হলে ( তা না হোক) সবচেয়ে ক্ষতিগ্র¯ত্ম হবে সাধারণ মানুষ। দায় যদি রাজনীতিবিদদের না থাকে তাহলে এবার সাধরণ মানুষকে রা¯ত্মায় নেমে আসতে হবে বৈকি। তবে তাদের নামতে হবে জনতার ব্যানারে। তারা যদি বাধাপ্রাপ্ত হন তাহলে বুঝতে হবে গণতন্ত্রের আসল শত্রু কারা?

 

রাজনীতির নামে অস্থিতিশীল কোনো দেশে ভিন্ন কোনো শক্তির আরোপিত বা স্থাপন করা কোনো পুতুল সরকার কখনো একটি স্বাধীন ও সার্বভৌম দেশের স্বার্থ রক্ষা করতে পারে না। পরিস্থিতির গুরুত্ব অনুধাবন রাজনীতিবিদরা করতে পারছেন না দেখে তা সাধারণ মানুষের দায় হয়ে গেছে। রাজনীতিবিদরা নিজেদের অযৌক্তিক একগুঁয়েমি ছেড়ে সমঝোতার পথে আসবেন- এটা এখন দুরুশা। কে না চায় সরকার এগিয়ে আসুক এবং বিরোধী দলও তাদের ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ড পরিহার করুক। কিন্তু চাইলেই হয় না, তা অর্জন করে নিতে হয়।

এ জাতীয় আরও খবর

স্পেনে ৩১৯ অভিবাসী উদ্ধার, নিহত ১৮

সিলেটের সাংবাদিকদের হাতাহাতিও থামালেন জাফর ইকবাল

‘ফায়ার ইমোজি’র মতো পোশাক, কটাক্ষের শিকার দীপিকা

সমৃদ্ধ অঞ্চল গড়ে তুলতে ভারতের সঙ্গে কাজ করবে বাংলাদেশ

দেশে প্রতি ১০ জনে ৭ জন মারা যাচ্ছে অসংক্রামক রোগে

সস্ত্রীক করোনায় আক্রান্ত আমির খসরু

‘শাবিতে পুলিশি হামলার সত্যতা পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে’

কাস্টমসকে আরো প্রযুক্তিনির্ভর হতে হবে

সিয়াম আমার মন জয় করে নিয়েছে, ‘ভক্ত’ হয়ে গিয়েছি : রিয়াজ

ওমিক্রন নিয়ে ‘ক্লিনিক্যাল গাইডলাইন’ চূড়ান্ত

টিআইবি রাজনৈতিক স্বার্থে ব্যবহৃত হয় : তথ্যমন্ত্রী

ভারত ও মিয়ানমার থেকে আসা বিষাক্ত বস্তুকণায় দূষিত ঢাকার বাতাস