বৃহস্পতিবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বহুল আলোচিত টিকফা চুক্তি সই হচ্ছে আজ

Ban & USAবাংলাদেশ ও আমেরিকার মধ্যে বহুল আলোচিত ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টম্যান্ট কো-অপারেশন ফোরাম এগ্রিমেন্ট (টিকফা) সই হচ্ছে সোমবার। ওয়াশিংটনে বাংলাদেশের পক্ষে বাণিজ্য সচিব মাহবুব আহমেদ এবং আমেরিকার পক্ষে সে দেশের উপ-বাণিজ্য প্রতিনিধি ওয়েন্ডি কাটলার চুক্তিতে সই করবেন।

গত ১৭ জুন মন্ত্রিসভা টিকফা সইয়ের ব্যাপারে অনুমোদন দেয়। এরপর মার্কিন বাজারে বাংলাদেশের জিএসপি সুবিধা বাতিল হলে টিকফা সইয়ের বিষয়টি অনেকটা অনিশ্চিত হয়ে পড়ে। দীর্ঘ আলোচনা এবং দর কষাকষির পর সরকারের মেয়াদের একেবারে শেষ পর্যায়ে এসে এই চুক্তি সই হচ্ছে। এই চুক্তি স্বাক্ষরের মাধ্যমে দুই দেশের মধ্যে বাণিজ্য এবং বিনিয়োগের ব্যাপারে মুক্ত ও টেকসই পরিবেশ নিশ্চিত করা হবে। টিকফা সইয়ের মাধ্যমে বেশ কিছু ইস্যুতে বাংলাদেশের দায়বদ্ধতা তৈরি হবে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

নির্বাচনের ঠিক আগমুহূর্তে গুরুত্বপূর্ণ এই চুক্তিকে ভালো চোখে দেখছেন না কেউ কেউ। বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি ও প্রধানমন্ত্রী নিজের অধীনে আগামী  নির্বাচন অনুষ্ঠানে আমেরিকার সমর্থন পেতে টিকফা সই করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে মনে করেন তারা।

এ বিষয়ে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. আনু মুহাম্মদ নতুন বার্তা ডটকমকে বলেন, “নির্বাচনের আগে আমেরিকার প্রসন্ন চেহারা পাওয়ার জন্য টিকফা চুক্তি করার জন্য তাড়াহুড়া করছে সরকার। টিকফা চুক্তি বাংলাদেশের স্বার্থকে জলাঞ্জলি দিয়ে গলায় ফাঁস লাগানোর মতো ব্যাপার। বাংলাদেশের স্বার্থবিরোধী কোনো চুক্তি করার অধিকার কোনো সরকারের নেই। ”

আনু মুহাম্মদ বলেন, “বর্তমান নির্বাচনকালীন সরকারের আইনগত কোনো বৈধতা নেই।  তাই কোনো চুক্তি করার অধিকারও তাদের নেই।  এই সরকার যদি টিকফা চুক্তি করে, তবে এটি হবে অবৈধ চুক্তি।”
 
কূটনীতিকরা বলছেন, জিএসপি বাতিল, ড. ইউনূসের বিষয়ে বিতর্ক- সব মিলিয়ে আমেরিকার সঙ্গে আওয়ামী লীগ সরকারের সম্পর্কে একটা দূরত্ব চলছে। আগামী নির্বাচনের আগে এই দূরত্ব কমাতে চায় সরকার। তাই  ভারতের পাশাপাশি বিশ্বের প্রভাবশালী এই দেশটির সমর্থন পেতেই আমেরিকার ডাকে এবার সাড়া দিয়েছে সরকার।
 
এদিকে টিকফা চুক্তির ফলে জিএসপি ফিরে পাওয়া সহজ হবে বলে মনে করছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। কারণ, টিকফা সই হলেই বাংলাদেশ ও আমেরিকার মধ্যে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্যের বিষয়ে আনুষ্ঠানিক ফোরাম গঠিত হবে। জিএসপি নিয়ে দর-কষাকষির সুযোগ পাবে বাংলাদেশ। এর আগে আমেরিকার বাণিজ্য প্রতিনিধি (ইউএসটিআর) বলেছিলেন, জিএসপি ফিরে পেতে টিকফা অন্যতম বাহন হিসেবে কাজ করবে।

এ বিষয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী জি এম কাদের নতুন বার্তা ডটকমকে বলেন, “এ চুক্তি দুই দেশের বিনিয়োগ ও বাণিজ্য বৃদ্ধিতে সহায়ক হবে। তাতে লাভবান হবে বাংলাদেশ। বর্তমানে আমেরিকায় আমরা প্রায় পাঁচ বিলিয়ন ডলারের মতো পণ্য রফতানি করছি। টিকফার ফলে ব্যবসাসংক্রান্ত  যেকোনো বিষয়ে আলোচনার সুযোগ তৈরি হবে।”

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন,  নিজ নিজ  দেশের আইন ও পদ্ধতি অনুসরণ করে এ চুক্তি বাস্তবায়িত হবে। বিশ্বের ৪২টি দেশের সঙ্গে বাংলাদেশের এবং  ৯২টি দেশের সঙ্গে আমেরিকার এ ধরনের চুক্তি রয়েছে। সার্কভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে শুধু ভুটান ছাড়া সবার সঙ্গে আমেরিকার এই চুক্তি আছে বলে জানান মন্ত্রী।

বাণিজ্যমন্ত্রী জানান, টিকফা চুক্তির পরপর ফোরামের প্রথম বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। এই  ফোরামে দুই দেশের পক্ষ থেকেই দুটি করে এজেন্ডা উপস্থাপন করা হবে। বাংলাদেশের পক্ষ থেকে  তোলা হবে, জিএসপি ফেরত চাওয়া এবং পোশাকশিল্প ছাড়া অন্যান্য বাণিজ্যিক পণ্যেও জিএসপি দেয়া। আর আমেরিকার পক্ষ থেকে বাংলাদেশে সহজ শর্তে তুলা রফতানি করার বিষয়টি। এছাড়া বাংলাদেশে  ইনসুলিন রফতানি করার বিষয়টিও তুলবে আমেরিকা।

প্রসঙ্গত, ২০০২ সালে বাংলাদেশের সঙ্গে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ চুক্তি (টিফা) স্বাক্ষরের জন্য আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব দেয় আমেরিকা। কিন্তু মেধাস্বত্ব সংরক্ষণ, শ্রম অধিকার, ঘুষ-দুর্নীতির বিষয়ে দুই দেশের মতৈক্য না হওয়ায় আলোচনা আর এগোতে পারেনি। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর কয়েক দফা আলোচনা শেষে ২০১০ সালে এ বিষয়ে একটা অবস্থানপত্র পাঠায় বাংলাদেশ। তখন চুক্তির নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় টিকফা। গত জুন মাসে মন্ত্রিসভার অনুমোদন পায় টিকফা চুক্তি।